খাদিজার শরীরের বামদিক এখনো পুরো অবশ

Image caption খাদিজা এখনো কথা বলছে না তবে চোখ খুলছে।

বাংলাদেশের সিলেটে ছাত্রলীগ নেতার চাপাতির আঘাতে গুরুতর আহত কলেজ ছাত্রী খাদিজা বেগমের হাতে আজ হাতে একটি অস্ত্রোপচার করার কথা রয়েছে।

গত তেসরা অক্টোবর তাকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম।

এরপর থেকেই মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে খাদিজা ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তাকে কৃত্রিমভাবে বাঁচিয়ে রাখা হচ্ছিল।

হাসপাতালটির পরিচালক ডাক্তার মির্জা নাজিমউদ্দিন সংবাদদাতা আহরার হোসেনকে জানিয়েছেন, খাদিজার অবস্থার বেশ উন্নতি হয়েছে।

তাকে লাইফ সাপোর্ট বা ভেন্টিলেশন খুলে আইসিইউ থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

তবে ডাক্তার নাজিম উদ্দিন জানিয়েছেন, তার শরীরের বামদিক এখনো পুরো অবশ।

সে এখনো কথা বলছে না তবে চোখ খুলছে।

তার মস্তিষ্কের ডান দিকে মুল আঘাতটি রয়েছে সেজন্যেই তার শরীরের বামদিক এখনো অবশ বলে জানিয়েছেন তিনি।

তাই সে কতদিনের মধ্যে উঠে দাড়াতে পারবে সেটা বলা মুস্কিল।

সে পুরোপুরি কোনদিন স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবে কিনা তার জবাবে ডা উদ্দিন বলেন তার বয়স যেহেতু কম। সেটিই হয়ত তাকে সহায়তা করবে।

প্রেম নিবেদনে ব্যর্থ হয়ে তেসরা অক্টোবর বিকেলে সিলেটের এমসি কলেজ প্রাঙ্গণে ওই ছাত্রীকে কুপিয়ে আহত করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম।

ঘটনার পর মূমুর্ষ অবস্থায় প্রথমে সিলেটে তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়।

পরে তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়।

তার মাথায় এর আগে একটি অস্ত্রোপচার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডা. নাজিম উদ্দিন।