বিবিসির শত নারী: সফল অভিবাসন আইনজীবী তাহমিনা ওয়াটসন

ছবির কপিরাইট Imaginoor/Tahmina Watson
Image caption সিয়াটলে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত আইনজীবী তাহমিনা ওয়াটসন

অভিবাসন আইন নিয়ে শুরুতে অতটা আগ্রহ না থাকলেও পরবর্তীতে সফল আইনজীবী হিসেবে অভিবাসন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলে কাজ করছেন তাহমিনা ওয়াটসন।

শুধু আইনজীবী হিসেবে কাজ করাই নয়, নিজের আগ্রহ থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন আইনের সংস্কার নিয়ে জোরালো প্রচারণাও চালাচ্ছেন দীর্ঘদিন ধরে।

নিয়মিত লেখালেখির পাশাপাশি সপ্তাহে দুদিন রেডিওতে আলোচনা করেন অভিবাসন আইন নিয়ে।

লন্ডনে জন্ম নেয়া বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত নারী, তাহমিনা যুক্তরাজ্যেই বার এট ল ডিগ্রি লাভ করে এখন যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলে আইনজীবী হিসেবে কাজ করছেন। পরবর্তীতে মার্কিন আইনজীবী স্বামীর সাথে যুক্তরাষ্ট্রেই বসবাস এবং কাজ শুরু করেন মিসেস ওয়াটসন।

নতুন একটি জায়গায় কাজ শুরু করাটা কিছুটা চ্যালেঞ্জের হলেও তিনি বিভিন্ন বার অ্যাসোসিয়শনের সাথে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে এবং অলাভজনক অনেক কাজে নিজেকে নিয়োজিত করেন।

একপর্যায়ে ঝুঁকে পড়েন অভিবাসন আইনের দিকে। তার মতে, পুরনো অভিবাসন আইনের কারণে অনেক মানুষ নানা ধরণের সমস্যার মধ্যে পড়ছে।

"আমি যখন মানুষকে সাহায্য করি, তখন দেখি যে এই আইনগুলো পরিবর্তন করা দরকার। আমি রাত-বিরাত সেই আইনটাই পড়ে দেখলাম যে কিভাবে সেই পরিবর্তন করা যায়। আমি তখন মানুষকে শেখানোর চেষ্টা করলাম যে এভাবে পরিবর্তনটা করা দরকার"। বলেন তাহমিনা ওয়াটসন।

অভিবাসন আইন নিয়ে কাজ করতে গিয়েই তিনি আইনপ্রণেতাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেন এবং লেখালেখিও শুরু করেন।

একপর্যায়ে সিয়াটলে ভারতীয় একটি রেডিও চ্যানেল চালু করার সময় তাকে অভিবাসন আইন নিয়ে কথা বলার আমন্ত্রণ জানানো হয়। এরপর থেকে নিয়মিত তিনি অভিবাসন আইন নিয়ে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন।

সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সাথেও তিনি নিজেকে জড়িত রেখেছেন। ঝঙ্কার ও প্রতিধ্বনি নামক দুটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্য তিনি।

তাহমিনা ওয়াটসন মনে করেন, নারীদের জন্য আইন পেশাটি খুবই ভালো একটি পেশা এবং দিন দিন এই পেশায় নারীদের সংখ্যাও বাড়ছে।