গরু মেরে কন্যাদান: বরের বয়স ৮, কন্যার ৫

  • ১৭ এপ্রিল ২০১৭
গ্রাম পঞ্চায়েতের সভা ছবির কপিরাইট এএনআই
Image caption গ্রাম পঞ্চায়েতের সভা

একটি বাছুরের প্রাণ সংহার করার দায়ে ভারতের এক গ্রাম-পঞ্চায়েত এক লোককে আদেশ দিয়েছে নিজের মেয়েকে গরুর মালিকের ছেলের সাথে বিয়ে দিতে।

কন্যার বয়স পাঁচ, আর বরের বয়স আট।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের গুনা জেলায়।

ইন্ডিয়া টাইমস পত্রিকা খবর দিয়েছে, তিন বছরের পুরনো এক বিবাদের মীমাংসা করতেই তারাপুর গ্রামের পঞ্চায়েত এই ব্যবস্থা নিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, মেয়ে শিশুটির বাবা জগদীশ বানজারা একদিন দেখেন যে একটি বাছুর তাঁর ফসলের ক্ষেতে চড়ে বেড়াচ্ছে।

উত্তেজিত হয়ে তিনি তখন বাছুরটিকে ঢিল ছুঁড়ে মারেন।

কিন্তু ঢিল লেগে বাছুরটি মারা যায়।

এরপর বাছুরের মালিকের সাথে তার দীর্ঘদিন ধরে ঝগড়া চলে।

আরো দেখুন:

আজানের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে বিতর্কে গায়ক সনু নিগম

ফেসবুকের শুদ্ধি অভিযান ও ‘লাইকের রাজা’ বৃত্তান্ত

গো-হত্যার দায়ে জগদীশ বানজারাকে সামাজিকভাবে এক ঘরে করা হয়।

গঙ্গাস্নান করে শুদ্ধ হওয়া এবং গ্রামবাসীদের মধ্যে খাবার বিতরণ করার পরও তার রেহাই হয়নি।

বার্তা সংস্থা এএনআই খবর দিচ্ছে, ঐ ঘটনার পর থেকে গ্রামে কোন শুভ ঘটনা না ঘটায় পঞ্চায়েত সিদ্ধান্ত নেয় যে জগদীশ বানজারাকে তার মেয়ের বিয়ের দিতে হবে বাছুরের মালিকের ছেলের সাথে।

মেয়েটির মা এ নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করার পরই ঘটনাটি সম্পর্কে সংবাদমাধ্যম জানতে পারে।

গুনা জেলার ম্যাজিস্ট্রেট নীরাজ শর্মা এএনআইকে জানিয়েছে, অভিযোগটি তারা এখন তদন্ত করে দেখছেন।

ওদিকে গ্রামে এই বাল্যবিবাহের প্রস্তুতি পুরোদমে চলছে বলে খবর দিচ্ছে ইন্ডিয়া টাইমস।

সম্পর্কিত বিষয়