ব্রিটেনের পুলিশ লন্ডন হামলার জন্য দায়ী তিন ব্যক্তির পরিচয় শনাক্ত করেছে

ঘটনাস্থলে ফুল দিয়ে নিহতদের প্রতি সম্মান জানাচ্ছেন একজন নারী পুলিশ। ছবির কপিরাইট AFP
Image caption ঘটনাস্থলে ফুল দিয়ে অনেকেই নিহতদের প্রতি সম্মান জানাচ্ছেন।

ব্রিটেনের পুলিশ লন্ডন হামলার জন্য দায়ী তিন ব্যক্তির পরিচয় শনাক্ত করেছে বলে জানা যাচ্ছে তবে তাদের নাম প্রকাশ করেনি।

নিহতদের মধ্যে একজন ফরাসি ও এক কানাডার নাগরিক রয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পূর্ব লন্ডনের কিছু এলাকায় তল্লাসি চলছে।

হামলাকারীদের একজনের বাড়িতে তল্লাসি চালানো হয়েছে।

ব্রিটেনের সন্ত্রাস বিরোধী বাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন নিহত তিন হামলাকারীকে প্রতিহত করতে আটজন পুলিশ কর্মকর্তা মুল ভূমিকা রেখেছেন।

তারা তিন হামলাকারীকে হত্যা করার সময় ৫০ টি গুলি ছুড়েছেন। তিন হামলাকারীই তাতে নিহত হয়েছে।

ছবির কপিরাইট PA
Image caption হামলার পরপরই ভয়ে নিরাপদে যাচ্ছেন পথচারীরা।

হামলাকারীদের পরিচয় জানা গেলেও এখনি তা প্রকাশ না করতে গণমাধ্যমকে অনুরোধ করা হয়েছে।

ওদিকে পুলিশ পূর্ব লন্ডনের বার্কিং এলাকায় হামলাকারীদের একজনের ফ্ল্যাটে তল্লাসি চালিয়েছে।

তল্লাসি চালানোর সময় পুলিশ সেখানে কিছু নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে।

এর পর ঐ এলাকা থেকে ১২ জনকে গ্রেফতার করেছে যার মধ্যে সাত জন নারী রয়েছেন।

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন হামলাকারী ঐ ফ্ল্যাটে স্ত্রী ও দুই সন্তান সহ তিন বছর ধরে বাস করছিলেন।

একজন প্রতিবেশী জানিয়েছেন গত দুই বছর ধরে তার মধ্যে উগ্রবাদী চিন্তাভাবনা দেখছিলেন তিনি।

সেনিয়ে পুলিশকেও জানিয়েছিলেন কিন্তু তারা কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।

আরো পড়ুন:

ইসলামী চরমপন্থা মোকাবেলার কথা বলছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

লন্ডন হামলা: এখন পর্যন্ত যা জানা যাচ্ছে

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption আহতদের অ্যাম্বুলেন্সে করে সরিয়ে নিতে কাজ চলছে।

ওদিকে ব্রিটেনে প্রধান রাজনৈতিক দলের নেতারা এখন এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে একে অপরের সমালোচনা করে বক্তব্য দিচ্ছেন।

লেবার পার্টি নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, "জনগণের নিরাপত্তা সবচাইতে গুরুত্ব পাওয়া উচিত।

সেজন্য নিরাপত্তাবাহিনীকে যেকোনো ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার পূর্ণ কর্তৃত্ব দেয়া উচিত। কিন্তু পুলিশ বাহিনীতে ২০ হাজার জনবল কমিয়ে সেটি কোনদিন সম্ভব নয়"।

তিনি বলেন, "কিপটেমি করে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দেয়া সম্ভব নয়"।

টরি পার্টি জেরেমি করবিনের পাল্টা সমালোচনা করে বলেছে তিনি মরিয়া হয়ে নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

ইসলামিক স্টেট গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেছে। এই হামলার নিন্দা চলছে বিশ্বজুড়ে।

শনিবার রাতের ঐ হামলায় সাতজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ৫০ জনের মতো।

সম্পর্কিত বিষয়