BBC navigation

মার্কিন নির্বাচন ২০১২

সর্বশেষ আপডেট সোমবার, 1 অক্টোবর, 2012 13:44 GMT 19:44 বাংলাদেশ সময়

বেশিরভাগ অঙ্গরাজ্য কোন একটি দলকে ভোট দেয় এবং এবারের নির্বাচনেও প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীরা এদের সমর্থন চাইবেন। তাই ভোটের ফলাফল নির্ভর করবে স্বল্প ক'টি অঙ্গরাজ্যের ওপর। এগুলোই হবে নির্বাচনের আসল রণক্ষেত্র।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয় ইলেকটোরাল কলেজ পদ্ধতিতে।জনসংখ্যার অনুপাতে প্রতিটি অঙ্গরাজ্যকে কিছু ভোট বরাদ্দ করা হয়। ফলে কোন কোন অঙ্গরাজ্যের ভোটের সংখ্যা বেশি।

যেমন, ক্যালিফোর্নিয়ার (জনসংখ্যা ৩ কোটি ৭৭ লক্ষ) ভোটসংখ্যা ৫৫। অন্যদিকে মন্টানার (জনসংখ্যা ১০ লক্ষ) ভোটসংখ্যা ৩।প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কোন একটি রাজ্যে জেতা মানে তিনি ঐ অঙ্গরাজ্যের সবগুলো ভোটই পেয়েছেন।*

প্রেসিডেন্ট পদে জয়ের জন্য প্রয়োজন ২৭০টি ভোট।

দলীয় শক্তি দেখতে ক্লিক করুন

জোর লড়াইয়ের ক্ষেত্র (১৬১টি ভোট) - এই অঙ্গরাজ্যগুলিতে লড়াই এতই প্রবল যে কোন একজন প্রার্থী জিততে পারেন।প্রার্থীরা এইসব 'বেগুনি রাজ্যে' সময় এবং অর্থ ব্যয় করবেন।

রিপাবলিকান ঘাঁটি (১৯১টি ভোট) - রিপাবলিকান-প্রধান এই 'লাল রাজ্য'গুলি মূলত দক্ষিণ এবং মিড-ওয়েস্ট অঞ্চলে। তবে কৃষি-প্রধান এসব অঙ্গরাজ্যে ভোটের সংখ্যা কম।

ডেমোক্র্যাট ঘাঁটি (১৮৬টি ভোট) - উত্তর-পূর্ব এবং পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলীয় 'নীল রাজ্য'গুলির জনসংখ্যা বেশি এবং শহুরে লোকের সংখ্যা বেশি।এই অঙ্গরাজ্যগুলোর ভোট সংখ্যাও বেশি।

লোড হচ্ছে ...

কলোরাডো, ৯টি ভোট

যুক্তরাষ্ট্রে অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে কলোরাডো সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সবেচয়ে উঁচুতে। এই রাজ্যে রকি পর্বতের ১০০০টি শিখর রয়েছে যার প্রতিটির উচ্চতা ১০,০০০ ফিটের বেশি।

পশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে কলোরাডোকে আগে রিপাবলিকানদের ঘাঁটি বলে মনে করা হতো। কিন্তু সেখানে হিসপ্যানিক জনসংখ্যা বাড়ছে। এখন রাজ্যটি ডেমোক্র্যাটদের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। পর পর তিনটি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এই রাজ্যে রিপাবলিকান প্রার্থী জয়লাভ করলেও ২০০৮ সালে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বারাক ওবামা কলোরাডোকে রিপাবলিকানদের হাত থেকে ছিনিয়ে নেন।

কিন্তু ডেমোক্র্যাটদের জন্য কলোরাডো নিরাপদ নয়। ২০১০ সালে রিপাবলিকানরা এই রাজ্যে কংগ্রেসের দু'টি আসনে জয়ী হয়। তৃতীয় একটি দল থেকে চ্যালেঞ্জের কারণে সিনেটের একটি আসন এবং গভর্নরের পদটি রিপাবলিকানদের দখলে যেতে পারেনি। ডেনভার এবং বোল্ডারের মত শহরগুলিতে ডেমোক্র্যাট ভোট বেশি। রিপাবলিকানদের প্রাধান্য গ্রামীণ কাউন্টি আর কলোরাডো স্প্রিংস্‌ এলাকায়, যেটি সামাজিক ও ধর্মীয় রক্ষণশীলদের নিয়ন্ত্রণে। ডেনভারের শহুরে অঞ্চলগুলোতে লড়াই হবে তীব্র।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 70.0%শ্বেতাঙ্গ
  • 3.8%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 20.7%হিসপ্যানিক
  • 5.4%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $56,344 গড় বাৎসরিক আয়
  • 11.2% দারিদ্রের হার
  • 8.20% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 8.4%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 4.7%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 8.9%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়
previous next
অঙ্গরাজ্যের ওপর ক্লিক করুনপরিচিতি

ভোটযুদ্ধের ক্ষেত্র

এই রাজ্যগুলিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা এতই তীব্র যে প্রার্থীদের মধ্যে যে কেউ জিততে পারেন। এই অঙ্গরাজ্যগুলির ভোটে জয়পরাজয় নির্ধারিত হবে

ফিরে যাব

কলোরাডো, ৯টি ভোট

যুক্তরাষ্ট্রে অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে কলোরাডো সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সবেচয়ে উঁচুতে। এই রাজ্যে রকি পর্বতের ১০০০টি শিখর রয়েছে যার প্রতিটির উচ্চতা ১০,০০০ ফিটের বেশি।

পশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে কলোরাডোকে আগে রিপাবলিকানদের ঘাঁটি বলে মনে করা হতো। কিন্তু সেখানে হিসপ্যানিক জনসংখ্যা বাড়ছে। এখন রাজ্যটি ডেমোক্র্যাটদের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। পর পর তিনটি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এই রাজ্যে রিপাবলিকান প্রার্থী জয়লাভ করলেও ২০০৮ সালে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বারাক ওবামা কলোরাডোকে রিপাবলিকানদের হাত থেকে ছিনিয়ে নেন।

কিন্তু ডেমোক্র্যাটদের জন্য কলোরাডো নিরাপদ নয়। ২০১০ সালে রিপাবলিকানরা এই রাজ্যে কংগ্রেসের দু'টি আসনে জয়ী হয়। তৃতীয় একটি দল থেকে চ্যালেঞ্জের কারণে সিনেটের একটি আসন এবং গভর্নরের পদটি রিপাবলিকানদের দখলে যেতে পারেনি। ডেনভার এবং বোল্ডারের মত শহরগুলিতে ডেমোক্র্যাট ভোট বেশি। রিপাবলিকানদের প্রাধান্য গ্রামীণ কাউন্টি আর কলোরাডো স্প্রিংস্‌ এলাকায়, যেটি সামাজিক ও ধর্মীয় রক্ষণশীলদের নিয়ন্ত্রণে। ডেনভারের শহুরে অঞ্চলগুলোতে লড়াই হবে তীব্র।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 70.0%শ্বেতাঙ্গ
  • 3.8%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 20.7%হিসপ্যানিক
  • 5.4%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $56,344 গড় বাৎসরিক আয়
  • 11.2% দারিদ্রের হার
  • 8.20% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 8.4%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 4.7%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 8.9%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

ফ্লোরিডা, ২৯টি ভোট

ডাক নাম 'সানশাইন স্টেট', ফ্লোরিডা বিখ্যাত তার দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত আর ডিজনি ওয়ার্ল্ডের মত পর্যটন কেন্দ্রের জন্য।

ফ্লোরিডা হচ্ছে একটি আদর্শ 'সুইং স্টেট'।১৯৯৬ সালের পর থেকে এই অঙ্গরাজ্য যাদের পক্ষে ভোট দিয়েছে তারাই পরে প্রেসিডেন্ট হয়েছেন।২০০০ সালের নির্বাচনে জর্জ ডাব্লিউ বুশ এবং অ্যাল গোরের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা এতই তীব্র ছিল যে ভোট পুনর্গণনার ডাক ওঠে। পরে সুপ্রিম কোর্টের একটি বিতর্কিত আদেশে সেটি রদ করা হয়।

এখানে জনসংখ্যা মিশ্র।উত্তরে শ্বেতাঙ্গ প্রটেস্টান্ট এবং দক্ষিণে কিউবান-আমেরিকানরা রিপাবলিকানপন্থী। মায়ামি এবং ট্যাম্পার নাগরিক ভোটার, পাম বিচের ইহুদি অবসরভোগী এবং কিউবান নন এমন হিসপ্যানিক জনগোষ্ঠী সমর্থন করেন ডেমোক্র্যাটদের। হিসপ্যানিক ভোটারদের জন্য অভিবাসন এবং অবসরভোগীদের জন্য ইসরায়েল ও স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থা বড় ইস্যু হলেও বেশিরভাগ ভোটারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে অর্থনৈতিক সমস্যা।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 57.9%শ্বেতাঙ্গ
  • 15.2%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 22.5%হিসপ্যানিক
  • 4.3%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $47,051 গড় বাৎসরিক আয়
  • 13.1% দারিদ্রের হার
  • 8.8% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 0.0%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 5.0%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 2.8%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

আইওয়া, ৬ ভোট

আমেরিকান ইন্ডিয়ান আইওয়ে জাতিগোষ্ঠীর নামে এই অঙ্গরাজ্য এবং এই গোষ্ঠীর নেতা 'ব্ল্যাক হক্'-এর নামে এই রাজ্যকে 'হক্ আই স্টেট' নামে ডাকা হয়।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের প্রথম ককাস হয় আইওয়াতে। ২০০০ এবং ২০০৪ সালে এই রাজ্য স্বল্প ভোটের ব্যবধানে ডেমোক্র্যাট এবং রিপাবলিকান প্রার্থী নির্বাচিত করে। তবে ২০০৮ সালে তারা বারাক ওবামাকে নির্বাচিত করে।

এই অঙ্গরাজ্যের পশ্চিম দিকে রয়েছে দিগন্ত বিস্তৃত কৃষি খামার, যেখানে মূলত ভুট্টার চাষ হয়। সেখানকার অধিবাসীরা রিপাবলিকানদের ভোট দেন। অন্যদিকে রাজ্যের কেন্দ্র এবং পূর্বদিকের এলাকা, রাজধানী ডে মাইনে এবং কলেজ শহর আইওয়া সিটি, ডেমোক্র্যাটদের প্রতি বন্ধুভাবাপন্ন। নির্বাচনে কৃষি সংক্রান্ত বিষয়গুলো এখানকার ভোটারদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 88.7%শ্বেতাঙ্গ
  • 2.9%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 5.0%হিসপ্যানিক
  • 3.5%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $48,457 গড় বাৎসরিক আয়
  • 12.4% দারিদ্রের হার
  • 5.4% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 0.3%
    ২০০০ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 0.7%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 9.5%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

মিশিগান, ১৬টি ভোট

ডাক নাম গ্রেট লেক স্টেট। মার্কিন মোটর গাড়ি শিল্পের প্রাণকেন্দ্র হচ্ছে ডেট্রয়েট শহর।

মিশিগান ১৯৯২ সাল থেকে প্রতিটি নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটদের পক্ষে ভোট দিয়েছে। তবে জর্জ ডাব্লিউ বুশ এখানে ২০০০ এবং ২০০৪ সালে সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। স্থানীয় নির্বাচনে এই রাজ্যে রিপাবলিকানদের ভাল করার ইতিহাস রয়েছে।

মিশিগান হচ্ছে তথাকথিত `রাস্ট বেল্ট` -- মরচে পড়া এলাকা। ১৯৮০র দশকে ভারী শিল্পে মন্দা শুরু হওয়ার পর এখানে চরম বেকারত্ব শুরু হয়। মিশিগানের জন্য বড় বিষয় হচ্ছে অর্থনীতি। ২০০৯ সালে তিনটি বড় মোটর কারখানা দেউলিয়া হওয়ার উপক্রম হলে প্রেসিডেন্ট ওবামা দুটি কারখানাকে সরকারি ঋণ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। সরকার ব্যবসা-বাণিজ্যে নাক গলাচ্ছে এই অভিযোগ করে রিপাবলিকানদের একাংশ এর বিরোধিতা করেন।ডেমোক্র্যাটরা বলছেন এই ঋণ, কারখানা এবং বহু চাকরি রক্ষা করেছে।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 76.6%শ্বেতাঙ্গ
  • 14.0%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 4.4%হিসপ্যানিক
  • 4.9%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $47,461 গড় বাৎসরিক আয়
  • 14.1% দারিদ্রের হার
  • 9.4% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 5.1%
    ২০০০ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 3.4%
    ২০০৪ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 16.5%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

মিনেসোটা, ১০টি ভোট

মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের আরেক নাম `স্টার অফ দা নর্থ`, এই রাজ্যটি স্ক্যানডিনেভিয়ান আমেরিকান সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র। সুইডিশ এবং নরওয়েজিয়ান ঐতিহ্য এই রাজ্যে প্রবল।

১৯৭২ সাল থেকেই মিনেসোটা ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে ভোট দিয়ে এসেছে। এমনকী ১৯৮৪ সালে অন্য সব রাজ্য যখন রোনাল্ড রেগানকে ভোট দেয় তখনও মিনেসোটা ডেমোক্র্যাট প্রার্থীর পক্ষে ভোট দিয়েছে।২০০০ এবং ২০০৪ সালে জর্জ ডাব্লিউ বুশ সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। তবে রিপাবলিকানরা স্থানীয় নির্বাচনে ভাল ফল দেখিয়েছেন। ২০০৬ সালে গর্ভনর নির্বাচনেও তারা বিজয়ী হন। ২০১০ সালে রিপবালিকান গভর্নর প্রার্থী প্রায় জিতে গিয়েছিলেন।

সারা দেশের মতই চাকরি এবং অর্থনীতি হবে মিনেসোটার প্রধান রাজনৈতিক বিষয়, বিশেষভাবে মিনিয়াপোলিস, সেন্ট পল এবং ডুলুথ শহরে। তবে মিনেসোটার রাজনৈতিক ধারা অন্যান্য রাজ্যের চেয়ে ভিন্ন এবং তৃতীয় প্রার্থী এখানে নিয়মিতভাবে সফল হন।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 83.1%শ্বেতাঙ্গ
  • 5.1%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 4.7%হিসপ্যানিক
  • 6.9%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $56,704 গড় বাৎসরিক আয়
  • 10.6% দারিদ্রের হার
  • 5.9% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 2.4%
    ২০০০ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 3.5%
    ২০০৪ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 10.2%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

নেভাদা, ৬টি ভোট

রুপার খনির জন্য নেভাদাকে `সিলভার স্টেট` নামে ডাকা হয়। নেভাদার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য স্থান হচ্ছে লাস ভেগাস শহর।

নেভাদার ভোটকে নির্বাচনের আগাম সংকেত হিসেবে দেখা হয়। ১৯৮০ সালের পর থেকে বিজয়ী প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর প্রত্যেকে নেভাদায় জিতেছেন। ২০০৮ সালে বারাক ওবামা এখানে খুব সহজেই বিজয়ী হন। ডেমোক্র্যাটরা আশা করছেন ২০১২ সালেও তারা আবার সফল হবেন। এখনে হিসপ্যানিক ইমিগ্র্যান্ট জনসংখ্যা ক্রমশই বাড়ছে। ফলে অভিবাসন এখানে একটা বড় ইস্যু।

২০০৮ সালের অর্থনৈতিক সংকটে নেভাদা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ২০১০ সালে বেকারত্বের হার দাঁড়ায় ১৫%। ফলে নির্বাচনে অর্থনীতি হবে বড় বিষয়। ডেমোক্র্যাটদের প্রাধান্য লাস ভেগাস এবং রেনোতে। আর রিপাবিলকানদের সমর্থন শহরতলী এলাকায়, গ্রামে আর সেনানিবাসগুলোতে।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 54.1%শ্বেতাঙ্গ
  • 7.7%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 26.5%হিসপ্যানিক
  • 11.5%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $55,322 গড় বাৎসরিক আয়
  • 9.4% দারিদ্রের হার
  • 12.1% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 3.5%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 2.6%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 12.5%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

নিউ হ্যাম্পশায়ার, ৪টি ভোট

গ্রেনাইট পাথরের খনির জন্য এই অঙ্গরাজ্যের নাম গ্রেনাইট স্টেট। এখানকার ওল্ড ম্যান অফ দা মাউন্টেন পর্বত রাজ্যের সরকারি প্রতীক।

নিউ হ্যাম্পশায়ার একটি উদারপন্থী অঙ্গরাজ্য, হঠাৎ করেই যেটিতে রিপাবলিকান প্রার্থী জয়লাভ করেন। যদিও বারাক ওবামা এখানে সহজেই জয়ী হয়েছেন, কিন্তু ২০০০ সালে জর্জ ডাব্লিউ বুশ এখানে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন। ২০১০ সালের মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকানরা এখানে একটি সিনেট এবং কংগ্রেসের দু'টি আসনে জয়লাভ করেন। মিট রমনি যদি রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়ন পান, তাহলে পাশ্ববর্তী ম্যাসাচুসেট্‌স রাজ্যের গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালনের ইতিহাস তাকে এই রাজ্যেও বিজয়ী হতে সাহায্য করতে পারে।

নির্বাচনের প্রাইমারি পর্যায়ের প্রথম ভোট এই রাজ্যে অনুষ্ঠিত হয় বলে এখানকার বাসিন্দারা বেশ গর্বিত। ভোটাররা নির্বাচনের আগে প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে যাচাই করে নেন। এই রাজ্যে স্বাধীনচেতা ও সরকার-বিরোধী মনোভাব বেশ প্রবল। এই রাজ্যে করের হার কম বলে বহু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে নিউ হ্যাম্পশায়ার আকর্ষণ করে থাকে।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 92.3%শ্বেতাঙ্গ
  • 1.0%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 2.8%হিসপ্যানিক
  • 3.7%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $62,629 গড় বাৎসরিক আয়
  • 8.7% দারিদ্রের হার
  • 5.7% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 1.3%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 1.4%
    ২০০৪ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 9.6%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

নিউ মেক্সিকো, ৫টি ভোট

নেটিভ আমেরিকানদের সূর্যের প্রতীক, যার নাম দা যিয়া, এই অঙ্গরাজ্যের পতাকায় স্থান পেয়েছে।এই রাজ্যে আমেরিকান ইন্ডিয়ান জনসংখ্যার হার যুক্তরাষ্ট্রে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

২০০০ এবং ২০০৪ সালে নিউ মেক্সিকোর নির্বাচন ছিল শ্বাসরুদ্ধকর। ২০০০ সালে অ্যাল গোর এখানে মাত্র ৩৬৬ ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন। ২০০৪ সালে জর্জ বুশ জিতেছিলেন ৬০০০ ভোটের ব্যবধানে। কিন্তু বারাক ওবামা ২০০৮ সালে মোট ১৫% ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হন।২০১০ সালে রিপাবলিকানরা গর্ভনর পদটি ছিনিয়ে নিলেও জনমত জরিপে বলা হচ্ছে ২০১২ সালে ডেমোক্র্যাটরা সহজেই জয়লাভ করবেন।

এই অঙ্গরাজ্যের রাজনৈতিক বিভাজন এর ভৌগলিক সীমানা অনুযায়ী। ডেমোক্র্যাটরা নগর এলাকায় এবং রিপাবলিকানরা রাজ্যের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় শক্ত অবস্থানে রয়েছে। এখানে লাতিনো জনগোষ্ঠী ২০০৮ সালে বারাক ওবামাকে ভোট দিয়েছিলেন। যদিও তিনি প্রতিশ্রুতিমত অভিবাসন আইনে সংস্কার করতে ব্যর্থ হয়েছেন, কিন্তু ইমিগ্রেশন নিয়ে রিপাবলিকানদের অবস্থান লাতিনোরা পছন্দ করেন না।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 40.5%শ্বেতাঙ্গ
  • 1.7%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 46.3%হিসপ্যানিক
  • 11.3%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $42,737 গড় বাৎসরিক আয়
  • 16.2% দারিদ্রের হার
  • 6.5% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 0.1%
    ২০০০ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 0.8%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 15.1%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

নর্থ ক্যরোলাইনা, ১৫টি ভোট

১৯০৩ সালে এই অঙ্গরাজ্যে কিটি হক্ শহরের কাছে রাইটস্ ভাইয়েরা প্রথম যন্ত্রচালিত বিমানের পরীক্ষা চালান।

বহু বছর ধরে নর্থ ক্যারোলাইনা রিপাবলিকানদের ঘাঁটি। কিন্তু ২০০৮ সালে বারাক ওবামা এখানে সামান্য ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন। সম্প্রতি এই রাজ্যে জনসংখ্যার বিন্যাসে যে পরিবর্তন ঘটেছে সেটি হয়তো তাঁর জয়ের পেছনে একটা বড় কারণ হতে পারে।

দক্ষিণ যুক্তরাষ্ট্রে নর্থ ক্যরোলাইনা একটি সমৃদ্ধ এবং দ্রুত উন্নতিশীল অঙ্গরাজ্য। রাজ্যের প্রাণকেন্দ্রে রালে এবং ডারাম শহরে 'রিসার্চ ট্রায়াঙ্গেল' নামে পরিচিত প্রতিষ্ঠানগুলিতে উচ্চশিক্ষিতদের আগমন ঘটেছে। এখানে কৃষ্ণাঙ্গ জনসংখ্যা আগে থেকেই বড় ছিল। হিসপ্যানিক জনসংখ্যাও সম্প্রতি বহু গুণে বেড়েছে। ফলে এখানে ডেমোক্র্যাট সমর্থন এখন বাড়ছে।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 65.3%শ্বেতাঙ্গ
  • 21.2%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 8.4%হিসপ্যানিক
  • 5.0%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $45,131 গড় বাৎসরিক আয়
  • 15.1% দারিদ্রের হার
  • 9.7% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 12.8%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 12.4%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 0.3%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

ওহাইও, ১৮টি ভোট

যুক্তরাষ্ট্রের মোট সাতজন প্রেসিডেন্টের বাড়ি এই অঙ্গরাজ্যে। তাই একে কখনও কখনও প্রেসিডেন্টদের সূতিকাগার বলে ডাকা হয়। তবে এই রাজ্যের সবচেয়ে খ্যাতিমান সন্তান হলেন ইলেকট্রিক বাল্বের উদ্ভাবক টমাস এডিসন।

আরেকটি রাজ্য যেখান থেকে নির্বাচনের আগাম ফলাফল সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। ১৯৬০ সাল থেকে ওহাইওতে পরাজিত হয়ে কোন প্রার্থী প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হতে পারেননি। সুতরাং ২০১২ সালেও সবার নজর থাকবে বারাক ওবামা আবার এখানে জিততে পারেন কী না। রিপাবলিকানরা আশা করছেন ২০১০ সালের মত ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের জোরে তারা সিনেট এবং গর্ভনর পদটি দখল করতে পারবেন।

প্রতিবেশী মিশিগান ও পেনসিলভ্যানিয়ার মত ওহাইও এক সময় ছিল দেশের প্রধান শিল্পাঞ্চল। প্রক্টর অ্যান্ড গ্যাম্বল এবং ফায়ারস্টোন টায়ারের মত বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠানগুলোর অবস্থান এই অঙ্গরাজ্যে। ২০০৭-০৯ সালের মন্দায় ওহাইও'র বেশ ক্ষতি হয়েছে। সুতরাং অর্থনীতিই হবে রাজ্যের প্রধান নির্বাচনী বিষয়।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 81.1%শ্বেতাঙ্গ
  • 12.0%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 3.1%হিসপ্যানিক
  • 3.7%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $46,838 গড় বাৎসরিক আয়
  • 14.5% দারিদ্রের হার
  • 7.2% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 3.5%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 2.1%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 4.6%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

পেনসিলভ্যানিয়া, ২০টি ভোট

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার দলিল সই হয়েছিল এই অঙ্গরাজ্যে। লিবার্টি ঘন্টাও রয়েছে এখানে। পেনসিলভ্যানিয়াকে ডাকা হয় 'কিস্টোন' রাজ্য নামে।

যদিও ১৯৯২ সাল থেকেই এই রাজ্য ডেমোক্র্যাট প্রার্থীকে সমর্থন করে আসছে, কিন্তু ২০০০ ও ২০০৪ সালে প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল তীব্র। ২০১০ সালে গভর্নর এবং সিনেট নির্বাচনে জয়ের সুবাদে রিপাবলিকানরা ২০১২ সালেও বড় চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয়ার আশা করছেন।

পেনসিলভ্যানিয়ার শিল্পাঞ্চলে ডেমোক্র্যাটরা শক্তিশালী এবং রিপাবলিকারদের জোর গ্রামীণ এলাকায়। তবে গত ক'বছরের অর্থনৈতিক মন্দা সবাইকেই স্পর্শ করেছে। ফলে এ নিয়ে উদ্বেগই হবে নির্বাচনের প্রধান ইস্যু।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 79.5%শ্বেতাঙ্গ
  • 10.4%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 5.7%হিসপ্যানিক
  • 4.2%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $50,028 গড় বাৎসরিক আয়
  • 13.2% দারিদ্রের হার
  • 8.1% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 4.2%
    ২০০০ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 2.5%
    ২০০৪ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 10.3%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

ভার্জিনিয়া, ১৩টি ভোট

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম দিকের বহু প্রেসিডেন্ট এই অঙ্গরাজ্যের সন্তান। তাই একে 'মাদার অফ প্রেসিডেন্টস' বলে ডাকা হয়। এদের মধ্যে রয়েছেন টমাস জেফারসন, যার বাড়ি 'মন্টিচেলো' একটি দর্শনীয় স্থান।

দক্ষিণ যুক্তরাষ্ট্রের অনেক অঙ্গরাজ্যের মতই ভার্জিনিয়া মার্কিন গৃহযুদ্ধের পর থেকে ডেমোক্র্যাটদের শক্ত ঘাঁটি ছিল। কিন্তু ১৯৬০ সালে ডেমোক্র্যাটদের সিভিল রাইটস্ সংস্কারের পর এই রাজ্যটি রিপাবলিকানদের হাতে চলে যায়।

তবে ওয়াশিংটন ডিসির বাইরে জনপদের বিস্তার এবং হিসপ্যানিক জনসংখ্যা বাড়ার ফলে ডেমোক্র্যাটদের প্রতি সমর্থন জোরদার হচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে ভার্জিনিয়া একটি সত্যিকারের 'সুইং স্টেট'-এ পরিণত হয়েছে। ২০০৮ সালে বারাক ওবামা এখানে মাঝারি ব্যবধানে বিজয়ী হন (১৯৬০ সালের পর তিনিই প্রথম ডেমোক্র্যাট যিনি এখানে জয়লাভ করেন); রাজ্যের দু'জন সিনেটারই ডেমোক্র্যাট। তবে ২০০৯-এর শেষে রিপাবলিকানরা গভর্নর পদে বিজয়ী হয়। নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও তারা জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 64.8%শ্বেতাঙ্গ
  • 19.0%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 7.9%হিসপ্যানিক
  • 8.2%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $60,539 গড় বাৎসরিক আয়
  • 10.4% দারিদ্রের হার
  • 5.9% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 8.0%
    ২০০০ রিপাবলিকান বিজয়
  • 8.2%
    ২০০৪ রিপাবলিকান বিজয়
  • 6.3%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

উইসকনসিন, ১০টি ভোট

উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যের সরকারি প্রতীক এবং পতাকায় রয়েছে ব্যাজার নামে পরিচিত একটি বেজী-জাতীয় প্রাণী। এমনকী রাজ্যের সরকারি সংগীতেও রয়েছে এই প্রাণীর কথা। তাই এই রাজ্যকে 'ব্যাজার স্টেট' নামে ডাকা হয়।

১৯৮৮ সাল থেকে ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীরা এখানে বিজয়ী হয়ে আসছেন।তবে ২০০৪ এবং ২০০৮ সালে রিপাবলিকানরা সামান্য ভোটে হেরে যান। ২০১০ সালে তারা গভর্নর এবং সিনেট পদে জয়লাভ করেন। ফলে এখানে জোর লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

২০০৮ সালে যে মার্জিনে বারাক ওবামা এখানে জিতেছিলেন, তিনি এবারও সেটা ধরে রাখার চেষ্টা করবেন। তাঁর সমর্থনে থাকবে রাজ্যের শক্তিশালী ট্রেড ইউনিয়ন। রাজ্যের নতুন রিপাবলিকান গভর্নর স্কট ওয়াকার শ্রমিক ইউনিয়নগুলোর ক্ষমতা খর্ব করে আইন তৈরি করার চেষ্টা চালালে প্রবল বিরোধিতার মুখে পড়েন। এক পর্যায়ে তার চাকরি নিয়েই টানাপোড়েন শুরু হয়।

বাসিন্দাদের সম্পর্কে

  • 83.3%শ্বেতাঙ্গ
  • 6.2%কৃষ্ণাঙ্গ
  • 5.9%হিসপ্যানিক
  • 4.6%অন্যান্য

অর্থনীতি

  • $51,257 গড় বাৎসরিক আয়
  • 11,5% দারিদ্রের হার
  • 7.5% বেকারত্বের হার

পূর্ববর্তী নির্বাচনের হিসেব

  • 0.2%
    ২০০০ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 0.4%
    ২০০৪ ডেমোক্র্যাট বিজয়
  • 13.9%
    ২০০৮ ডেমোক্র্যাট বিজয়

*নেব্রাস্কা ও মেইন বাদে। এই রাজ্যগুলিতে কংগ্রেশনাল ডিস্ট্রিক্ট নির্বাচন এবং সরাসরি ভোটে ফলাফল নির্ধারিত হয়।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻