BBC navigation

বিশ্ব ব্যাংকের দিকে তাকিয়ে থাকলে সেতু হবে না

সর্বশেষ আপডেট বৃহষ্পতিবার, 14 ফেব্রুয়ারি, 2013 12:56 GMT 18:56 বাংলাদেশ সময়

পর্ব-১২:

পদ্মাসেতু বানাতে বিশ্ব ব্যাংকের কথা মতো চলতে হবে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি: নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করতে গেলে অর্থনীতির উপর চাপ পড়বে বলে মনে করেন বিএনপি নেতা মাহবুবুর রহমান।

দেখুন:

ক্লিক করুন ইউটিউব

বাংলাদেশ সংলাপ-পর্ব:১২

বাংলাদেশ সংলাপ-পর্ব:১২

শুনুনmp3

আপনার ফ্ল্যাশ প্লেয়ারের ভার্সনটি সঠিক নয়

বিকল্প মিডিয়া প্লেয়ারে বাজান

বিবিসি’র বাংলাদেশ সংলাপে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন এমন কোন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি যে বিশ্বব্যাংকের কথা মতো চলতে হবে। একই সংগে বিশ্ব ব্যাংকের ঋণ প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার আবেদন প্রত্যাহার করে বিকল্প অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণে বাংলাদেশ সরকারের নেয়া সিদ্ধান্তকে বাস্তবসম্মত বলেও দাবি করেন তিনি।

তবে একই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) মাহবুবুর রহমান বলেন, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে গেলে তা অর্থনীতির উপর মারাত্মক চাপ সৃষ্টি করবে। এ টাকা কার পকেটে যাবে তা নিয়েও জনমনে উৎকণ্ঠা রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

শাজাহান খান

"একজনকে আসামী করতেই হবে এমন শর্ত নিয়ে বিশ্ব ব্যাংকের দিকে তাকিয়ে থাকলে পদ্মা সেতু হবেনা। ডিজাইন পরিবর্তন করলে ও রেল লাইন বাদ দিলে সেতু নির্মাণের ব্যয় অনেক কমে যাবে।"

শনিবার ঢাকায় বিয়াম মিলনায়তনে বিবিসি’র বাংলাদেশ সংলাপে এ পর্বে পুলিশ বাহিনীর উপর জামায়াত-শিবিরের সাম্প্রতিক হামলার ঘটনা, বাংলাদেশের গণতন্ত্র রক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার আহবান এবং সর্বস্তরে বাংলাভাষার প্রসারের জন্য সরকার যথেষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে কি-না এসব বিষয়গুলো আলোচনায় উঠে আসে।

এবার প্যানেল আলোচকদের মধ্যে মি. খান ও মি. রহমান ছাড়াও ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম এবং বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

বিশ্ব ব্যাংকের সংগে দীর্ঘ টানাপোড়েন শেষে পদ্মা সেতু নির্মাণে অর্থায়নের অনুরোধ ফিরিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। এরপর সহ-দাতা সংস্থা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক ও জাপান উন্নয়ন সংস্থাও প্রকল্প থেকে তাদের সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দেয়। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, নিজস্ব বা বিকল্প অর্থায়নে গুরুত্বপূর্ণ এ সেতুর নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরু হবে এবছরের মার্চ মাস থেকেই।

এ প্রেক্ষাপটে অনুষ্ঠানে দর্শক মোহাম্মদ সায়েম জানতে চান, সরকার বিশ্ব ব্যাংকের ঋণ প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার আবেদন বাতিল করে বিকল্প অর্থায়নে সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এ সিদ্ধান্ত কি বাস্তব সম্মত ?

পদ্মা সেতু প্রসঙ্গে একজন দর্শক

"যে দেশে সরকার নিজস্ব অর্থায়নে একটা কালভার্ট করতে পারেনা সেখানে এতো বড় একটা সেতু কিভাবে নিজস্ব অর্থায়নে করা সম্ভব?"

জবাবে মি. খান বলেন, ‘একজনকে আসামী করতেই হবে এমন শর্ত নিয়ে বিশ্ব ব্যাংকের দিকে তাকিয়ে থাকলে পদ্মা সেতু হবেনা। দুদক যাতে প্রভাবিত না হয় সেজন্য ওই মন্ত্রীকে আগেই মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। ডিজাইন পরিবর্তন করলে ও রেল লাইন বাদ দিলে সেতু নির্মাণের ব্যয় অনেক কমে যাবে।’

তবে মি. রহমান বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংক দুর্নীতির কারণে মুখ ফিরিয়ে নিলো এটি অত্যন্ত লজ্জার। দাতা সংস্থা বাদ দিয়ে পদ্মা সেতুর মতো এতো বড় একটি প্রকল্পের টাকার সংস্থান করা যাবে বলে আমি মনে করিনা’।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংক বা অন্য দাতা সংস্থা আসুক বা না আসুক সেতু নির্মাণ করা উচিত । কারণ এটি জনগণের জন্য প্রয়োজন। তবে স্বচ্ছতা রক্ষা করেই তা করতে হবে’।

একজন দর্শক বলেন, ‘যে দেশে সরকার নিজস্ব অর্থায়নে একটা কালভার্ট করতে পারেনা সেখানে এতো বড় একটা সেতু কিভাবে নিজস্ব অর্থায়নে করা সম্ভব’।

তাজমেরী এস এ ইসলাম বলেন, ‘নিজস্ব অর্থায়নে সেতু নির্মাণের জন্য জনমনে যেটুকু আস্থা থাকা দরকার সেটুকু সরকার এখনো অর্জন করতে পারেনি’।

খালেদার আহবান নিয়ে বিতর্ক

লে. জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) মাহবুবুর রহমান

"গণতন্ত্র এখন সংকটের মধ্যে রয়েছে। নির্বাচন নিয়েও অনিশ্চয়তা রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে এসব আলোচনা হতেই পারে। আমরা দলের কোন সুপারিশ নিয়ে যাইনি। শুধু দেশের পরিস্থিতি তুলে ধরেছি"

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের একটি পত্রিকায় প্রকাশিত খালেদা জিয়ার একটি নিবন্ধের প্রসঙ্গে দর্শক জ্যোতির্ময় দত্ত জানতে চান বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বাংলাদেশের গণতন্ত্র রক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহবান জানিয়েছেন; এতে কি বাংলাদেশের সম্মান ক্ষুণ্ণ হয়না?

জবাবে মি. চৌধুরী বলেন, ‘গণতন্ত্রের জন্য উদ্বেগ প্রকাশের এবং সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তা প্রকাশের অধিকার বিরোধী দলীয় নেতার রয়েছে। তবে জনগণই দেশের গণতন্ত্র রক্ষা করবে, তৃতীয় কোন শক্তি নয়। তিনি জনগণকে আহবান জানাতে পারতেন’।

তবে মি. রহমান বলেন, ‘গণতন্ত্র এখন সংকটের মধ্যে রয়েছে। নির্বাচন নিয়েও অনিশ্চয়তা রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে এসব আলোচনা হতেই পারে। আমরা আমাদের দলের কোন সুপারিশ নিয়ে যাইনি। শুধু দেশের পরিস্থিতি তুলে ধরেছি’।

ড. ইসলাম বলেন, ‘এগুলোর কিছুই হতোনা যদি গণতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে দুই নেত্রী একসাথে সংলাপ করতেন’।

মন্ত্রী বলেন, ‘একটি স্বাধীন দেশের বিরোধী দলীয় নেত্রীর কাছ থেকে এটা আশা করিনি। গণতন্ত্র রক্ষার জন্য বিদেশে যাওয়ার দরকার নেই। দেশেই চর্চা করতে হবে’।

জামায়াত শিবির এবং পুলিশের উপর হামলা প্রসঙ্গ

ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম

"জামায়াত ইসলাম একটি রাজনৈতিক দল। আর একটি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল হিসেবে সভা সমাবেশ করা জামায়াতের আইনগত অধিকার। তারা এ অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।"

সাম্প্রতিক সময়ে পুলিশের উপর বিভিন্ন হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনার সূত্র ধরে অনুষ্ঠানে দর্শক মোঃ আসাদ হোসাইন জানতে চান জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করা হচ্ছেনা আবার তাদের সভা সমাবেশও করতে দেয়া হচ্ছেনা; এটি সরকারের দ্বৈত আচরণ নয়?

জবাবে ড. ইসলাম বলেন, ‘জামায়াত ইসলাম একটি রাজনৈতিক দল। আর একটি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল হিসেবে সভা সমাবেশ করা জামায়াতের আইনগত অধিকার। তারা এ অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ’

পুলিশের উপর হামলা প্রসঙ্গে উপস্থাপকের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কেউ যদি আত্মরক্ষার জন্য এটা করে তাহলে করতেই পারে’।

একজন দর্শক অবশ্য বলেন, ‘লাঠিসোটা নিয়ে, ককটেল ফুটিয়ে, পেট্রোল ঢেলে পুলিশকে হত্যার চেষ্টা করা আত্মরক্ষার অধিকার হতে পারেনা’।

মি. রহমান বলেন, ‘শিবির যা করছে তা একটা অস্থিরতা। তারা পুলিশকে পেটাচ্ছে, পুলিশও ব্যর্থ হচ্ছে এটা সরাকরের ব্যর্থতা। আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে। জনগণের জান মালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব সরকারের। নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি হলে অবশ্যই সরকারকে বাধা দিতে হবে’।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী

"গণতন্ত্রের জন্য উদ্বেগ প্রকাশের এবং সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তা প্রকাশের অধিকার বিরোধী দলীয় নেতার রয়েছে। তবে জনগণই দেশের গণতন্ত্র রক্ষা করবে, তৃতীয় কোন শক্তি নয়।"

মি. চৌধুরী বলেন, ‘পুলিশের উপর আক্রমণ, গাড়ি পোড়ানো, জানমালের ক্ষয়ক্ষতি করার অধিকার কোন নিবন্ধিত দলেরও নেই। মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচার করা হচ্ছে জনগণের ম্যান্ডেট অনুযায়ী। সংসদেও সর্বসম্মত প্রস্তাব রয়েছে এ বিষয়ে।’

বিষয়টি নিয়ে নৌ মন্ত্রী মি. খান বলেন, সরকারের অবস্থান অত্যন্ত কঠোর। কোন ক্রমেই আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হতে দেয়া হবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি। তবে জামায়াতে ইসলামীকে রাজনৈতিক দল হিসেবে নিষিদ্ধ করা হবে কি না এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন 'এটা সময়ই বলে দেবে'।

বাংলা ভাষার প্রসার ও হিন্দি কার্টুন

অনুষ্ঠানে শিশুদের মধ্যে হিন্দি ভাষার বিস্তারের প্রেক্ষিতে সরকার বাংলা ভাষার প্রসারে যথেষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে কি-না এমন প্রশ্ন করেন দর্শক মার্জিয়া শরমিন।

তাজমেরী এস এ ইসলাম বলেন, ‘হিন্দি কার্টুন ও সিনেমার প্রসার বেশী হয়ে গেছে। এটা আতংকের মতো ছড়িয়ে গেছে। বাংলা অনুষ্ঠান ও কার্টুন যথেষ্ট পরিমাণ না হলে এ সমস্যা মোকাবেলা করা কঠিন হবে’।

মি. রহমান বলেন, ‘ভারত আমাদের চ্যানেলগুলোকে অনুমতি দেয়না। সুতরাং এখানে তাদের চ্যানেল বন্ধ করে দেয়া উচিত। আমাদের শিশুদের আমাদের ভাষায় ও সংস্কৃতিতে বড় করা উচিত’।

sanglap_ep12_audience

বাংলাদেশ সংলাপে অংশ নেয়া দর্শকদের একাংশ।

মি. চৌধুরী বলেন, ‘বন্ধ করে নয় বরং আমাদের অনুষ্ঠানগুলো যাতে শিশুদের বেশি আকৃষ্ট করতে পারে সেটি নিশ্চিত করা দরকার’।

মি. খান বলেন, ‘ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই। বাংলার উপর সরকার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে’।

আপনাদের মন্তব্য:

বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপে চলতি সপ্তাহে আলোচিত বিষয়বস্তু সম্পর্কে আপনার কী মতামত?:

মন্তব্য করুন

* এই ঘরগুলি অবশ্যই পূরণ করতে হবে

একই ধরনের খবর

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻