Got a TV Licence?

You need one to watch live TV on any channel or device, and BBC programmes on iPlayer. It’s the law.

Find out more
I don’t have a TV Licence.

সার সংক্ষেপ

  1. সাইক্লোন মোরা বাংলাদেশের উপকূলে ভোর ছ'টার দিকে আঘাত হেনেছ।
  2. টেকনাফে বাতাসের গতি ছিল ঘণ্টায় ১১৫ কিলোমিটার, সেন্ট মার্টিন্সে ১১৪ কিলোমিটার।
  3. সমুদ্রের পানিতে শাহপরীর দ্বীপ, মহেশখালী এবং কক্সবাজারের কিছু নিম্নাঞ্চল প্লাবিত।
  4. ঘূর্ণিঝড়ে সেন্ট মার্টিন্স দ্বীপে বাড়িঘরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
  5. স্থানীয় প্রশাসন উপকূল এলাকা থেকে কয়েক লক্ষ লোককে আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়েছে।

সরাসরি রিপোর্টিং

time_stated_uk

আশ্রয়ের সন্ধানে

ক্সবাজারের সমুদ্র পাড়ের মানুষজন তাদের জিনিসপত্র নিয়ে আশ্রয়ের সন্ধানে চলছেন।
AFP/Getty Images
বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় উপকূলে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার পূর্ব মুহূর্তে কক্সবাজারের সমুদ্র পাড়ের মানুষজন তাদের জিনিসপত্র নিয়ে আশ্রয়ের সন্ধানে চলছেন। প্রায় তিনলক্ষ মানুষ কক্সবাজারসহ কয়েকটি জেলার সাইক্লোন কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়।

ছয়জনের মৃত্যু

বাংলাদেশে কর্তৃপক্ষ সাইক্লোন মোরার আঘাতে ছয়জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। কক্সবাজারে জেলা প্রশাসন জানাচ্ছে, তিনজন গাছের চাপা পরে এবং একজন সম্ভবত হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে মারা গেছে। অন্য দু'জন মারা গিয়েছে পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটিতে।

রোহিঙ্গাদের নিয়ে উদ্বেগ

নবাধিকার কর্মী ম্যাথিউ স্মিফ টুইট করেছেন
.
ঘূর্ণিঝড় মোরার আঘাতে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে কী পরিমাণ ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে, সেটা এখনো পরিষ্কার নয়, কিন্তু তাদের পরিস্থিতি নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। যেমন, মানবাধিকার কর্মী ম্যাথিউ স্মিথ টুইট করেছেন, 'আমরা যতদূর জানতে পারছি বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের শরণার্থী ক্যাম্প থেকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যায় নি'।

পকূলীয় গ্রামের অধিবাসীরা আশ্রয় নিয়েছেন কক্সবাজারের একটি আশ্রয় কেন্দ্রে
AFP/Getty Images
সাইক্লোন মোরা বাংলাদেশে আঘাত হানার সময় উপকূলীয় গ্রামের অধিবাসীরা আশ্রয় নিয়েছেন কক্সবাজারের একটি আশ্রয় কেন্দ্রে। কর্তৃপক্ষ বলছে, কক্সবাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় প্রায় তিন লক্ষ মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় দুর্বল হয়ে আসছে

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় মোরা কক্সবাজার-চট্টগ্রাম উপকূল অতিক্রম করে দুর্বল হয়ে পড়েছে এবং স্থল গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি বর্তমানে রাঙ্গামাটি ও এর আশেপাশের এলাকায় অবস্থান করছে। সেখানে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে।