BBC Bangla

মূলপাতা > খবর

আসাদ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে

Facebook Twitter Google+
17 জুলাই 2012 08:11

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পক্ষ ত্যাগকারী এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বিবিসিকে বলেছেন সিরিয় কর্তৃপক্ষ আল কায়েদার সহযোগীদের দিয়ে শহরগুলোতে বোমা বর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে।

বিভিন্ন শহরে কর্তৃপক্ষের চালানো বোমা বর্ষণের যেসব ঘটনায় সবচেয়ে বেশি নিহত হবার ঘটনা ঘটেছে তা সিরিয় কর্তৃপক্ষই আল কায়েদার সহযোগীদের দিয়ে করিয়েছে বলে উল্লেখ করেন ঐ কর্মকর্তা নায়েফ আল ফারেস।

বাগদাদে গত সপ্তাহে রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব ছাড়ার পর আল ফারেস কাতারে বিবিসিকে বলেন বাশার আল আসাদের অবস্থা এখন আহত নেকড়ের মতো যে কিনা নিজে বেচে থাকার জন্য সবকিছুই করতে পারে।

আল ফারেস বলছিলেন, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ নিজ দেশের মানুষের ওপর রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের জন্যও প্রস্তুত ছিলেন এবং তাকে একমাত্র জোর করেই ক্ষমতা থেকে সরানো সম্ভব। মি আল ফারেস বলেন রাজধানী দামেস্কে যে লড়াই হচ্ছে তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং একে তিনি আসাদ শাসনের পতনের শুরু বলে বর্ণনা করছেন।

ওদিকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন বিবিসিকে বলেছেন পক্ষ ত্যাগের ঘটনা এবং দামেস্কে যে প্রচণ্ড লড়াই হচ্ছে তা থেকে এটি স্পষ্ট যে সরকার বেশ চাপে আছে এবং তারা আর টিকতে পারবে না।মিসেস ক্লিনটন বলেন এখনো রাজনৈতিক ভাবে সমাধানের সময় আছে এবং রাশিয়া এবং চীন যদি প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের ওপর চাপ দেয় তাহলে এর সরাসরি প্রভাব দেখা যাবে।

তবে প্রেসিডেন্ট আসাদের প্রতি রাশিয়া তার সমর্থন পুনর্ব্যাক্ত করেছে। সিরিয়ার ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ানোর চেষ্টায় রাশিয়াকে শরিক করার আরেক দফা চেষ্টায় মস্কোতে গেছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত কফি আনান।

মিসেস ক্লিনটনের এ মন্তব্য এমন সময় এলো যখন দামেস্কের কেন্দ্রস্থলের কাছে লড়াই চলছে এবং মিদান এলাকায় প্রথমবারের মতো সরকারী সৈন্য মোতায়েন করা হয়েছে।

বৈরুত থেকে বিবিসির জিম মিউর জানাচ্ছেন গত ১৬ মাস ধরে চলা এই গন অভ্যুত্থানে এই প্রথম কর্তৃপক্ষ প্রচুর সৈন্য সহ দামেস্কে ভারী অস্ত্রবাহী যান মোতায়েন করেছে। তবে এটি বলা কঠিন যে রাজধানী দখলের লড়াই এখনই শুরু হয়েছে।

বুকমার্ক করুন

Email Facebook Google+ Twitter
রিফ্রেশ