আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

মাঠে ময়দানে

Image caption লুইস সুয়ারেজ

'ডাইভিং'। যারা নিয়মিত মাঠে গিয়ে বা টিভিতে ফুটবল খেলা দেখেন, তাদের এখন কথাটা অতি পরিচিত হয়ে গেছে।

একজন ফুটবলার যখন প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের সঙ্গে গায়ে ধাক্কা লেগে ইচ্ছে করে পড়ে যান - সেটাকে বলা হয় ডাইভিং। বিশেষ করে স্ট্রাইকাররা পেনাল্টি বা সুবিধামত জায়গা তেকে ফ্রি-কিক আদায় করতে এ কাজটা করে থাকেন। অনেক খেলোয়াড়ের নাম হয়েছে তাদের ডাইভিং-এর প্রবণতার জন্য।

এবছরই ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে মোট ১৩ জন হলুদ কার্ড পেয়েছেন এ জন্য। বিবিসির সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে ২০০৮ থেকে এ পর্যন্ত শুধুমাত্র ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগেই ১২ জন ফুটবলার মোট ৩১ বার হলুদ কার্ড পেয়েছেন এই ডাইভিংএর জন্য।

এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি হলুদ কার্ড পেয়েছেন টটেনহ্যাম থেকে রিয়াল মাদ্রিদে যাওয়া তারকা গ্যারেথ বেল - মোট ৭ বার। এ মওসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের আদনান ইয়ানাজাই ৫টি ইয়েলো কার্ডের তিনটিই পেয়েছেন ডাইভিংএর জন্য।

কয়েকদিন আগে চেলসী আর সাউদাম্পটনের একটি ম্যাচের সময় চেলসির তারকা অস্কার পেনাল্টি বক্সের মধ্যে পড়ে যাবার ভান করলেও রেফারি ব্যাপারটা ঠিকই দেখতে পেয়েছিলেন এবং অস্কারকে হলুদ কার্ড দেখান তিনি। চেলসির ম্যানেজার জোসে মুরিনিও - যিনি সংবাদ সম্মেলনে সহজে নিজের খেলোয়াড়দের দোষ স্বীকার করতে চান না - তিনিও স্বীকার করেছেন যে অস্কারের হলুদ কার্ড প্রাপ্য ছিল।

আর অন্য দলের খেলোয়াড়দের ডাইভিং নিয়ে মুরিনিও সবসময়ই উচ্চকণ্ঠ। কয়েকদিন আগেই লিভারপুলের আর চেলসির খেলার পর লিভারপুলের লুইস সুয়ারেজ সম্পর্কে তিনি অভিযোগ করেন, সে সুইমিং পুলের এক্রোব্যাটদের মতো ডাইভ দিয়েছে।

মুরিনিওর নিজের দেশ পর্তুগালেও ফুটবলাররা ডাইভিংএ সিদ্ধহস্ত - স্বীকার করেন তিনি।

ইউরোপের অন্যন্য দেশেরও বলাবাহুল্য, চিত্রটা মোটেও আলাদা নয়। এই ডাইভিং এখন এমন বেড়ে গিয়েছে যে এখন ফিফার প্রেসিডেন্ট সেপ বলাটার ও মুখ খুলেছেন। তিনি বলেছেন, আধুনিক কালে ডাইভিং, পড়ে যাবার ভান করা, বা আঘাত পাবার ভান করার জন ফুটবল ম্যাচে সবচেয়ে বেশি সময় নষ্ট হচ্ছে।

মি ব্ল্যাটার বলেন, এটা ঠেকাতে এমন আইন করা উচিত যাতে আহত হবার ভান করলে একজন খেলোয়াড়কে বাধ্যতামূলকভাবে একটা নির্দিষ্ট সময় মাঠের বাইরে থাকতে হবে।

এর আগে ফিফার ভা্ইস প্রেসিডেন্ট জিম বয়েস প্রস্তাব করেছিলেন, ডাইভিং ঠেকাতে ভিডিও প্রযুক্তি ব্যবহার করা হোক।

কথা বলেছিলাম সাবেক ভারতীয় ফুটবল তারকা এবং কোচ সুব্রত ভট্টাচার্যের সাথে। তিনি বলছিলেন, ফিফা যখন ফুটবল খেলাকে আক্রমণাত্মক এবং আকর্ষণীয় করার জন্য ফাউলসংক্রান্ত নিয়মগুলো পরিবর্তন করে - তার পর থেকেই বিশেষত ল্যাটিন আমেরিকান ফুটবলাররা এই ডাইভিং শুরু করে। তার পর এটা অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে গেছে।

তিনি বলছেন, ডাইভিংএর শাস্তি আরো কঠোর করা উচিত, তাহলেই এটা কমে যাবে।

বাংলাদেশের ক্রিকেটে অনিশ্চয়তার ছায়া রাজনীতির কারণে

বাংলাদেশে চলমান রাজনৈতিক সংকটের কারণে এ মওসুমের খেলাধুলার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ক্রিকেট।

এ কারণে মার্চ মাসে অনুষ্ঠেয় টি২০ বিশ্বকাপ আদৌ বাংলাদেশে হবে কিনা তা নিয়ে অনিশ্চয়তা এখনো পুরোপুরি কাটেনি।

রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অনুর্ধ ১৯ দলের সফরটি বাতিল হয়ে গেছে।

এ মাসেই আসছে শ্রীলংকা দল, এই সফরে দুটি টেস্ট খেলবে তারা, যার প্রথমটি শুরু ২৭শে জানুয়ারি।

এর পর আছে এশিয়া কাপ । এই টুর্নামেন্ট ও সিরিজগুলোর ব্যাপারে বাংলাদেশের ক্রিকেট কর্তারা অবশ্য এখনো আশাবাদী যে এগুলো যথাসময়েই হবে।

অন্যদিকে এই টুর্নামেন্টগুলোর আগে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা খেলারই সুযোগ পাচ্ছেন না। শীত মওসুমের দু মাস পার হয়ে গেলেও জাতীয় লিগও শুরু হয়নি এখনো ।

এ অবস্থায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড একটি মিনি টুর্নামেন্ট আয়োজন করে খেলোয়াড়দের অন্তত খানিকটা ম্যাচ প্র্যাকটিসের সুযোগ করে দিয়েছিল গত সপ্তাহে।