মীর কাসেম আলীর সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের শেষ সাক্ষাত

বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড আজকেই কার্যকর করা হতে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

ছবির কপিরাইট BBC Bangla
Image caption কাশিমপুর কারাগারের বাইরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে

মিঃ আলীর পরিবারের সদস্যরা কারাগারে গিয়ে তাঁর সঙ্গে শেষবারের মতো সাক্ষাৎ করে এসেছেন।

কাশিমপুর কারাগারের বাইরে থেকে বিবিসি বাংলার সংবাদদাতা কাদির কল্লোল জানাচ্ছেন মীর কাসেম আলীর পরিবারের বিশ জন সদস্য কারাগারের ভেতর তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন।

মীর কাসেম আলীর স্ত্রী খন্দকার আয়েশা খাতুন তাঁর স্বামীর সঙ্গে দেখা করার পর কাদির কল্লোলকে জানিয়েছেন মিঃ আলী তাঁর নিখোঁজ ছেলেকে দেখে যেতে পারলেন না বলে দুঃখপ্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেছেন তাঁর স্বামী দাবি রেখে গেছেন "যেন তাদের নিখোঁজ ছেলেকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।"

মিসেস খাতুন আরও বলেছেন তাঁর স্বামীর মনোবল শক্ত আছে।

আজ শনিবার বিকেলের দিকে মীর কাসেম আলীর পরিবারের সদস্যরা কাশিমপুর কারাগারের ভেতর তার সঙ্গে দেখা করার জন্য ঢোকেন।

মিসেস খাতুনকে উদ্ধৃত করে কাদির কল্লোল জানাচ্ছেন কারাগারের ভেতরে পরিবারের সদস্যরা মীর কাসেম আলীর সঙ্গে সরাসরি প্রায় পৌনে এক ঘন্টা সময় কাটিয়েছেন।

ছবির কপিরাইট BBC Bangla
Image caption কারা মহাপরিদর্শক কাশিমপুর কারাগারের ভেতর ঢুকছেন

কারাগারের বাইরে আজ সকাল থেকেই নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

এই প্রতিবেদন লেখার অল্প কিছুক্ষণ আগে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইফতেখার উদ্দীন কারাগারের ভেতরে গেছেন বলে কাদির কল্লোল জানাচ্ছেন।

মৃত্যুদণ্ডের রায় পুর্নবিবেচনার আবেদন বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত খারিজ করে দেয়ার পর মীর কাসেম আলীর সামনে কেবল প্রেসিডেন্টের কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়ার পথই খোলা ছিল।

কিন্তু তিনি প্রাণভিক্ষার আবেদন করবেন না বলে জানানোর পর তার সাজা কার্যকর করার প্রক্রিয়া শুরু হয়।