সিগারেটের রাংতা, চিপসের প্যাকেট তৈরি হতো

পুড়ে যাওয়া কারখানাটির ভেতরে পড়ে আছে চিপসের প্যাকেট ছবির কপিরাইট BBC Bangla
Image caption পুড়ে যাওয়া কারখানাটির ভেতরে পড়ে আছে চিপসের প্যাকেট

ঢাকার কাছে টঙ্গীতে বয়লার বিস্ফোরণের ফলে অগ্নিকাণ্ডের শিকার হওয়ার পর ধসে পড়া কারখানাটিতে নানারকম অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল ও অন্যান্য প্যাকেজিং সামগ্রী তৈরি করা হতো।

কারাখানটির যে অংশের আগুন নিভিয়ে ফেলা গেছে, সেই অংশটিতে গিয়ে দেখা যায়, বহু চিপসের প্যাকেটর রোল সেখানে পড়ে আছে।

একটি চিপসের প্যাকেটের রোল ছিল একেবারে অক্ষত।

সেটার গায়ে লেখা রয়েছে, পটেটো ক্র্যাকার্স।

এই চিপস যে প্রতিষ্ঠানটি বানায় সেটি ইস্পাহানি নামে বাংলাদেশের একটি নামকরা প্রতিষ্ঠান।

জানা যাচ্ছে, প্রাণ নামক আরেকটি নামজাদা প্রতিষ্ঠানের চিপসের প্যাকেটও তৈরি হতো এই কারখানাটিতে।

আগুনে পুড়ে যাওয়া কারখানার ধ্বংসাবশেষের মধ্যে স্তূপাকারে পড়ে আছে সিগারেটের রাংতা।

এগুলোর কিছুটা পোড়া, কিছুটা ভেজা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ট্যাম্পাকোতে তৈরি হতো বহুজাতিক তামাকজাত পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ব্রিটিশ অ্যামেরিকান টোব্যাকো বা বিএটি'র সিগারেটের প্যাকেটের ভেতরে ব্যবহার করা রাংতা।

এই রাংতা হল একধরণের কাগজ, যার একপাশে রূপালি প্রলেপ দেয়া থাকে।

ট্যাম্পাকোর প্রিন্টিং বিভাগে এগারো বছরের বেশী সময় ধরে কাজ করেন রফিকুল ইসলাম।

তিনি বলছেন, এই কারখানাটিতে বিএটি'র কাজই বেশী হতো।

"তারা মাসে দু'একবার মাল নিতো," বলছিলেন মি. ইসলাম।

সম্পর্কিত বিষয়