পশুদের সুরক্ষায় ঢাকার স্বেচ্ছাসেবীরা

কেয়ার ফর পজ
Image caption কেয়ার ফর পজ

বাংলাদেশের ঢাকায় পশুদের সুরক্ষার জন্য বেশ কয়েকটি সংগঠন তৈরি হয়েছে। যাদের মূল লক্ষ্য হল রাস্তার আহত এবং অবহেলিত কুকুর-বিড়ালদের উদ্ধার করে তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও ভালোবাসা দিয়ে সুস্থ করে আবার তাদের নিজস্ব জায়গায় পৌঁছে দেওয়া। সম্পূর্ণ নিজেদের উদ্যোগে গড়ে তোলা এই সংগঠন গুলো পশুদের প্রতি সংবেদনশীল হওয়ার জন্য মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির কাজ করছে।

ঢাকার বসিলায় নিশাত নাওয়াল এসেছেন পোষার জন্য একটি কুকুর নিতে। তিনি বলছিলেন একটি কুকুর পোষার শখ অনেক দিনের, তাই ফেসবুকে সংগঠনটি সম্পর্কে জেনে এখানে এসেছেন।

বসিলার এই সংগঠনটির নাম কেয়ার ফর পজ। ব্যক্তি উদ্যোগে ও স্বেচ্ছাসেবীদের সহায়তায় ২০১৫ সালে সংগঠনটির কাজ শুরু হয়। রাস্তার আহত এবং অবহেলিত কুকুর-বিড়ালদের উদ্ধার করে তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া এবং সুস্থ হলে সেই এলাকায় আবার ছেড়ে দিয়ে আসে সংগঠনটি। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সৌরভ শামীম বলছিলেন শুরুতে অনেকে ব্যঙ্গ বিদ্রূপ করলেও এখন অনেকেই স্বাগত জানাচ্ছেন।

পেশায় ব্যবসায়ী মি. শামীম বলছিলেন ব্যক্তিগত আগ্রহ থেকেই ব্যয়বহুল হওয়া সত্ত্বেও তিনি এটি চালিয়ে যাচ্ছেন। ঢাকার আরেকটি পশু কল্যাণ সংগঠন অভয়ারণ্য। তারা অবশ্য শুরুতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে করলেও পরে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাথে ঢাকার ৩৬টি ওয়ার্ডে ১০ হাজারেরও বেশি কুকুরকে বন্ধ্যাকরণ ও টিকা দেয়ার কাজ করেছে।

Image caption পেশায় মেরিন ইঞ্জিনিয়ার জাহিদ হোসেন ছুটির দিন গুলোতে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করেন

এসব সংগঠন পশুদের প্রতি সংবেদনশীল আচরণ করার জন্য বিভিন্ন এলাকায় চেয়ে এলাকাবাসীর সাথে স্কুল, কলেজে যেয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলছেন সচেতনতা তৈরি করার জন্য। আর এসব কাছে সাহায্য করছেন একদল স্বেচ্ছাসেবক। পেশায় মেরিন ইঞ্জিনিয়ার জাহিদ হোসেন ছুটির দিন গুলোতে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করেন কেয়ার ফর পজ সংগঠনে।

এসব প্রাণীদের সম্পর্কে নানা ধরণের তথ্য দিচ্ছে ফেসবুকের বেশ কয়েকটি পেজ। ঢাকার মধ্যে কোথাও কোন কুকুর বা বিড়াল আহত হলে সেখানে দেয়া নম্বরে জানালে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তারা চিকিৎসা দেয়ার ব্যবস্থা করছে। রাস্তার কুকুর বেড়ালদের উপর অবহেলা করা নতুন কিছু নয় তবে তাদের জন্য ব্যক্তি বা স্বেচ্ছাসেবীদের এই উদ্যোগ নজর কেড়েছে অনেকের।