নিরাপত্তার শঙ্কায় বাংলাদেশে আসছে না 'বার্মি আর্মি'

বার্মি আর্মি, ছবির কপিরাইট barmyarmy.com
Image caption এর আগে কয়েকবারই বাংলাদেশে এলেও, এবার নিরাপত্তা নিয়ে আশংকার কথা জানিয়ে আসছে না বার্মি আর্মি

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ওয়ানডে এবং টেস্ট সিরিজে অংশ নিতে ইংল্যান্ড দল এ মাসের ত্রিশ তারিখে ঢাকায় আসছে, কিন্তু নিরাপত্তার আশংকার কথা জানিয়ে ইংলিশ ক্রিকেট দলের সমর্থকদের গোষ্ঠী, বার্মি আর্মিও জানিয়েছে, তারা ইংল্যান্ডের খেলা দেখতে বাংলাদেশে যাবে না।

যদিও এর আগে ইংল্যান্ড দলের সফরের সময় তারা বাংলাদেশে এসেছে। এর আগে একই ধরণের ঘোষণা দিয়েছেন ইওন মর্গান আর অ্যালেক্স হেলস।

বার্মি আর্মির প্রতিষ্ঠাতা এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর পল বার্নহ্যাম বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, আমাদের যেসব ক্রিকেট ভক্তরা সেখানে খেলা দেখতে যাবে, তাদের জন্যও হোটেল এবং মাঠে সব নিরাপত্তার ব্যবস্থাই থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

"কিন্তু বার্মি আর্মি যেখানে যায়, তারা শুধু খেলা দেখে না, তারা সেখানকার স্থানীয় মানুষজনের সাথে মেশে, ঘুরেফিরে দেখে। কিন্তু যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তরের পরামর্শ অনুযায়ী, এখন বাংলাদেশ ভ্রমণের জন্য নিরাপদ নয়। তাই আমরা আমাদের সমর্থকদের বাংলাদেশে না যাবার পরামর্শ দিয়েছি।"

Image caption এর আগে ইওন মর্গান আর অ্যালেক্স হেলস জানিয়েছেন তারা বাংলাদেশে আসছেন না

"তারা (কর্তৃপক্ষ) আমাদের বেশ কয়েকটি নিরাপদ হোটেলের নাম জানিয়েছে এবং মাঠেও নিরাপত্তার সব ব্যবস্থা থাকবে বলে বলেছে। কিন্তু মাঠে এবং হোটেলের যাতায়াতে নিরাপত্তার ব্যবস্থা সমর্থকদের নিজেদেরই করতে হবে। ফলে একটি টেস্ট ম্যাচে নিয়মিত যাতায়াত বা ঘোরাফেরায় অনেক উদ্বেগ থেকে যায়। তারা আমাদের প্রাইভেট সিকিউরিটি কোম্পানির সহায়তা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে। কিন্তু সেখানেও অনেক খরচের বিষয় আছে। আর সফরটি শুরু হতেও বেশি দেরি নেই। তাই যথেষ্ট নিরাপদ মনে না করায় আমরা সমর্থকদের না যাবার পরামর্শ দিয়েছি।"

এর আগেও বার্মি আর্মি বাংলাদেশে গিয়েছে। ২০০৩ সালে গিয়েছিল, ২০০৯ ও ২০১০ সালের দিকেও অনেক সমর্থক বাংলাদেশে গিয়েছে, তারা সেখানে ভালো সময় কাটিয়েছে।

কিন্তু গত জুলাই মাসে বাংলাদেশে যা ঘটেছে, এরপর বাংলাদেশে না যেতে পররাষ্ট্র দপ্তর সতর্কবার্তা দিয়েছে।

মি. বার্নহ্যাম বলছেন, ভবিষ্যতে আমরা আবার বাংলাদেশে যাবার আশা রাখি।

ইংল্যান্ড টিম সেখানে যাচ্ছে, তাতে আমরা খুশি, কারণ পাকিস্তানের মতো বাংলাদেশকে অন্য দেশে খেলার আয়োজন করতে হয়নি, তারা নিজেদের মাঠেই খেলার আয়োজন করতে পারছে।

এবার আমাদের এই সতর্কতা গ্রহণ করতে হচ্ছে, কিন্তু আশা রাখি ভবিষ্যতে আমরা আবার সেখানে যেতে পারবো।