ছেলের দেয়া আগুনে দগ্ধ সেই বাবার মৃত্যু

Image caption বাবা রফিকুল হুদার শরীরের ৯০ শতাংশই পুড়ে গিয়েছিলো।

বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলায় ছেলের দেওয়া আগুনে দগ্ধ সেই বাবা আজ সকালে মারা গেছেন।

নতুন মডেলের মোটরসাইকেল কিনে না দেয়ায় গত বৃহস্পতিবার বাড়িতে পেট্রোল দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলো তাদেরই কিশোর ছেলে।

এতে তখন বাবা মা দুজনই অগ্নিদগ্ধ হন তবে বাবা রফিকুল হুদা গুরুতর অবস্থায় ছিলেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক ডা সামন্ত লাল সেন জানিয়েছেন আজ সকালের দিকে মারা যান তিনি।

মি হুদার শরীরের ৯০ শতাংশই পুড়ে গিয়েছিলো।

তার শ্বাসনালীও পুড়ে গিয়েছিলো বলে জানিয়েছেন ডা সেন।

পঞ্চাশের কাছাকাছি বয়স রফিকুল হুদা পেশায় কনট্রাকটর এবং স্যানিটারি সামগ্রীর ব্যবসায়ী ছিলেন।

মৃত রফিকুল হুদা সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার সামসুল হুদার ছোট ভাই।

ফরিদপুরের কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাজিমুদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন গত বছর এসএসসি পাস করা কিশোর ছেলেটি বাবার কাছে নতুন মডেলের মোটরসাইকেল দাবি করেছিলো।

যদিও তার একটি মোটরসাইকেল আগেই ছিলো।

নতুন আরো একটি মোটরসাইকেল কিনে দিতে অস্বীকার করেছিলো বাবা মা।

তখন সে ক্ষুব্ধ হয়ে ঘরের মধ্যে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়।

মি হুদা ঢাকা মেডিকেলে নিবিড় পর্যবেক্ষণে ছিলেন।

নাজিমুদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন এই ঘটনায় এখনো কোন মামলা দায়ের করে নি পরিবারের সদস্যরা।

পরিবারের পক্ষ থেকে কোন মামলা না হলে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করবে বলে জানিয়েছেন তিনি।