লিবিয়ায় শরণার্থী শহর গড়ে তুলতে ইইউকে পরামর্শ দিলেন হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী

ছবির কপিরাইট AP
Image caption অভিবাসী ও শরনার্থীদের প্রবেশের বিরূদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী

শরণার্থীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয়া হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর ওরবান বলেছেন, আফ্রিকা থেকে আসা শরণার্থীরা ইউরোপে পৌঁছার আগেই তাদের আশ্রয় প্রক্রিয়ার জন্য লিবিয়া উপকূলে 'শরণার্থী শহর' তৈরি করতে উদ্যোগী হতে পারে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। আর তা পরিচালনা করতে হবে লিবিয়ার নতুন সরকারকে।

এভাবেই নিজের মতামত তুলে ধরেন মি ওরবান।

শরণার্থী সংকট থামানোর উপায় বের করতে অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় সেন্ট্রাল ইউরোপ এবং বলকান অঞ্চলের দেশগুলোর নেতাদের এক বৈঠকে এমন বক্তব্য এসেছে। জার্মান চ্যান্সেলর এঙ্গেলা মের্কেল বলছেন, যেসব শরণার্থী ইউরোপে থাকতে অনুমতি পাবে না তাদেরকে নিরাপদে নিজের দেশে ফিরিয়ে দিতে তৃতীয় কোনও দেশের সহায়তা প্রয়োজন। এজন্য তিনি আফ্রিকার দেশগুলোসহ এবং পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের সাথে চুক্তি করা হবে অচিরেই।

আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য ও আফগানিস্তানের যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের মানুষেরা নিরাপদ ও উন্নত জীবনের খোঁজে ধেয়ে আসছে ইউরোপে। পরিসংখ্যান বলছে, এ বছরই তিন লাখেরও বেশির ভাগ মানুষ ভূমধ্যসাগর পাড় হয়ে ইউরোপে প্রবেশ করেছে।

বৈঠকে ইউরোপে আসার যত সীমান্তপথ রয়েছে সেগুলোর উপরে নিয়ন্ত্রণ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বিপদসংকুল পথে ইউরোপে আসতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছে অন্তত সাড়ে তিন হাজার মানুষ।