বাংলাদেশে নিষিদ্ধ সংগঠন হিযবুত তাহরীর নেতা মহিউদ্দিন আহমেদসহ ৬জনের বিচার শুরু

ছবির কপিরাইট বিবিসি বাংলা
Image caption ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে হিযবুত তাহরীরের ছয় সদস্যের বিচার শুরু হয়

প্রায় ছয় বছর পর বাংলাদেশে নিষিদ্ধ সংগঠন হিযবুত তাহরীরের প্রধান সমন্বয়ক মহিউদ্দিন আহমেদসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছে ঢাকার একটি আদালত।

মঙ্গলবার এই ছয়জনের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় অভিযোগ গঠন করা হয়।

এই প্রথম নিষিদ্ধ এই সংগঠনটির কোন নেতার বিরুদ্ধে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হলো।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবদুল্লাহ আবু বিবিসিকে জানান, আদালতে নিজেদের নির্দোষ দাবি করলেও, আদালত সেটি নাকচ করে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশ দেন। এরপর সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ২৪শে অক্টোবর তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এ মামলার অন্য অভিযুক্তরা হলেন - সাইদুর রহমান ওরফে রাজীব, কাজী মোরশেদুল হক ওরফে প্লাবন, এম এ ইউসুফ, তানভীর আহমেদ ও তৌহিদুল আলম চঞ্চল।

তবে জামিনে থাকা তৌহিদুল আলম পলাতক রয়েছেন বলে আইনজীবীরা জানিয়েছেন।

হিযবুতের প্রধান সমন্বয়ক মহিউদ্দিন আহমেদ উত্তরা থানার একটি মামলায় ২০১০ সালের ২০শে এপ্রিল ফার্মগেটে তার বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরের বছর ৩রা মে তিনি উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান।

এর আগের বছর, ২০০৯ সালের ২২শে অক্টোবর হিযবুত তাহরীরকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার।

Image caption হিযবুত তাহরীরের পতাকা

২০১৩ সালের ৯ই ফেব্রুয়ারি মামলায় ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। তবে আদালতে দাখিল করা হলেও, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর মামলার কার্যক্রম শুরু হয়।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপসের ওপর হামলার ঘটনার পরপরই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হিযবুত তাহরীরকে নিষিদ্ধ করে।

তবে সে সময় সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল যে রাষ্ট্রকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টার কারনে হিযবুত তাহরীরকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সংগঠনটি নিষিদ্ধ ঘোষিত হওয়ার পর থেকে এর প্রধান সমন্বয়ক মহিউদ্দীন আহমেদ ঢাকায় গ্রীন রোডের বাসায় আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারীতে বন্দী জীবন কাটাচ্ছিলেন। সেখান থেকেই পরে তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল।