জঙ্গিবাদের পথ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার উপযুক্ত ব্যবস্থা কি বাংলাদেশে আছে?

হিযবুত তাহরীরের মিছিল ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption নিষিদ্ধ হওয়ার আগে ঢাকায় হিজবুত তাহরীরের মিছিল

বাংলাদেশের যশোরে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীরের সদস্য তিন ভাই বোন পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে বলেছেন তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চান।

এর আগে আরও চারজন সদস্যের আত্মসমর্পণের পর এই তিন ভাইবোন সোমবার যশোর পুলিশের কাছে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আগ্রহের কথা জানায়।

জঙ্গিদের পুনর্বাসনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাদেরকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার জন্যে পুলিশের পক্ষ থেকে আহবান জানানোর কয়েক মাস পরেই হিযবুত তাহরীরের এই তিন সদস্য আত্মসমর্পন করলো।

কিন্তু জঙ্গিবাদের পথ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা একটি জটিল প্রক্রিয়া, এই পুনর্বাসনের উপযুক্ত অবকাঠামো কি বাংলাদেশে আছে?

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আবদুর রব খান বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন-জঙ্গিবাদ থেকে ফিরে আসার কথা বলাটা যতটা সহজ, পুরোপুরি ফিরে আসার প্রক্রিয়াটা অনেক জটিল ও দীর্ঘ।

"তারা যে একটা এক্সট্রিম পথে গিয়েছিল সেই পথ থেকে নিয়ে আসার প্রক্রিয়াটা জটিল হবে। তাদের যে সাইকোলজিক্যাল পরিবর্তন হয়েছে , পরিবারের সাথে সম্পর্কের যে পরিবর্তন হয়েছে-পুরো পুনর্বাসনে মনোস্তাত্বিক অনুভূতির ব্যাপার আছে। আর এটার জন্য আদর্শগত কাউন্সিলিং দরকার"-বলছিলেন আবদুর রব খান।

মি: খান বলছিলেন এটার জন্য যে ব্যবস্থা দরকার সেই ধরনের ভালো ব্যবস্থা বাংলাদেশে আছে বলে তার জানা নেই।

তবে উপযুক্ত ব্যবস্থা গড়ে তোলা সম্ভব বলে মনে করেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক আবদুর রব খান।

আরও পড়ুন:

বাংলাদেশে তিন ভাই-বোনের আত্মসমর্পণ

মি: খান মনে করেন-বাংলাদেশে উপযুক্ত ব্যবস্থা তৈরি করে ভালোভাবে প্রচার করা গেলে এই পথে অনেকে আসবে।

"কাউন্সিলিং ট্রিটমেন্ট কিন্তু আমাদের দেশে আছে। তাদের যদি মোবিলাইজ করে সিকিউরিটি ব্রিফিং দিয়ে ফিরিয়ে আনা সম্ভব। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞসহ আলেমদের নিয়ে একটা টিম তৈরি করতে হবে। ধর্মীয় ব্যক্তিদের সাহায্য এক্ষেত্রে অনেক জরুরী। যখন তারা সারেন্ডার করবে তখন তাদের ব্রিফ করাটা হবে গুরুত্বপূর্ণ একটা কাজ"।

"যখন কেউ সারেন্ডার করবে তখন তারা যে অভিজ্ঞতার মধ্যে পড়বে সেটাও কিন্তু দেখার বিষয়। কারণ তারা যে ব্যবহারের সম্মুখীন হবে সেটা দেখে অন্যরা আসার কথা ভাববে"-বলেন আবদুর রব খান।

জঙ্গিবাদ থেকে স্বাভাবিক জীবনে পুনর্বাসন করার ব্যবস্থাটা যেন স্বস্তিদায়ক ও আনন্দদায়ক হয় সেটা মনে রাখা প্রয়োজন বলে উল্লেখ করেছেন মি: খান।

সম্পর্কিত বিষয়