হারিকেন ম্যাথুর আঘাতে হাইতিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্সের অনেক এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে

হাইতির ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া হারিকেন ম্যাথুর আঘাতে দেশটিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, ঝড়ে একটি সেতু ভেঙ্গে গিয়ে দেশটির দক্ষিণ উপকূলের সাথে দেশের বাকি অংশের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।

হারিকেনে অন্তত একজন হাইতিয়ান এবং পার্শ্ববর্তী ডোমিনিকান রিপাবলিকের চারজন মারা গেছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

ক্যারিবিয় অঞ্চলে গত এক দশকের মধ্যে এটিই সবচেয়ে শক্তিশালী হারিকেন। ঘণ্টায় ২৩০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া এবং প্রবল বৃষ্টিপাত নিয়ে হারিকেনটি হাইতিতে আঘাত হানে। চার মাত্রার ঐ হারিকেনটি হাইতির পশ্চিমাঞ্চল অতিক্রম করে কিউবার পূর্বাঞ্চলে গিয়ে পৌছায়।

হারিকেনে ঠিক কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা এখনো নিশ্চিত নয়। তবে অনেক বাড়িঘর ধ্বংস হয়েছে, ঝড়ে উপড়ে পড়া গাছের কারণে অনেক রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে এবং অনেক জায়গায় ভূমিধ্বসের খবর পাওয়া যাচ্ছে।

রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্স থেকে মায়ামি হেরাল্ড পত্রিকার সাংবাদিক জ্যাকুলিন চার্লস জানাচ্ছেন, এসব ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে মূলত: হাইতির পশ্চিমাঞ্চলে।

দক্ষিণাঞ্চলের লে কায়েস শহরের ডেপুটি মেয়র জানিয়েছেন সেখানকার ৭০,০০০ মানুষ বন্যার কবলে পড়েছে এবং ঝড়ে অনেক বাড়ির ছাদ উড়ে গেছে। সেখান থেকে পাওয়া কিছু ছবিতে দেখা যাচ্ছে লোকজন কাঁধ সমান উঁচু পানির মধ্যে চলাফেরা করছে এবং ত্রাণকর্মীদের ভাষ্যমতে, উপকূলীয় অন্যান্য শহরও পানিতে তলিয়ে গেছে।

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption হারিকেনের প্রভাব পড়েছে জ্যামাইকাতেও

রাজধানীর সরকারী আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে প্রায় পূর্ণ হয়ে গেছে এবং কর্তৃপক্ষ থেকে খাদ্য এবং পানির জন্য সাহায্য চাওয়া হয়েছে।

হাইতি বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্র দেশগুলোর মধ্যে একটি এবং দেশটির এক কোটি ১০ লাখ মানুষের একটি বড় অংশ বন্যা প্রবণ এলাকায় বাস করে।

হারিকেন ম্যাথুর কারণে দেশটিতে ১০২ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।