শাকিলের মৃত্যুর কারণ জানতে ভিসেরা পরীক্ষা হবে

ছবির কপিরাইট Mahbubul haque shakil faceook page
Image caption প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারি মাহবুবুল হক শাকিলের মরদেহ মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকার একটি রেস্তোরাঁ থেকে উদ্ধার করা হয়।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিলের মরদেহের ময়নাাতদন্ত ও জানাজা শেষে ময়মনসিংহের পথে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

বুধবার সকাল এগারোটার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে তার জানাজা সম্পন্ন হয়। এরপর সেখান থেকেই তার মরদেহ বহনকারী গাড়ি ময়মনসিংহের বাগমারার উদ্দেশ্যে রওনা হয় বলে জানান প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং এর একজন কর্মকর্তা আসিফ কবীর।

এর আগে বারডেম হাসপাতাল থেকে তার মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে নেওয়া হয় ময়নাতদন্তের জন্য।

ময়নাতদন্ত শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ এক প্রশ্নের জবাবে বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, বিষক্রিয়া-জনিত কারণে মৃত্যু নাকি স্বাভাবিক মৃত্যু তা জানতে ভিসেরা পরীক্ষা করা হবে। এজন্য রক্ত ও ভিসেরা নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

কতক্ষণ আগে তার মৃত্যু হয়েছে তেমন কি ধারণা পাওযা যাচ্ছে জানতে চাইলে ডা. মাহুমদ বলেন, "ময়নাতদন্ত কার্যক্রমের সময় থেকে ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে তার মৃত্যু হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। তবে তার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি"।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁ থেকে মি. শাকিলের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মি. শাকিল হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে ধারণা করা হলেও, তার মৃত্যুর বিষয়টি জানতে রেস্তোরাঁর কয়েকজন কর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। রেস্তোরাঁটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

ওই রেস্তোরাঁতেই একজন চিকিৎসক তাকে পরীক্ষা করে মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:

শাকিলের মৃত্যু: ৬ জনকে জেরা, ময়না তদন্তও হবে

জয়াললিতার বিপুল সম্পত্তি কে পাবে?

ইন্টারনেটে অপমানিত বাংলাদেশির জন্য ভালোবাসা

ময়মনসিংহের বাগমারায় পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে। তাঁর বাবা আইনজীবী জহিরুল হক খোকা ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

২০১২ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার আগে তিনি আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর প্রেস সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এক সময় তিনি আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন ছাত্র লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতা ছিলেন।

এর পাশাপাশি মি: শাকিলকে অনেকেই কবি হিসেবে জানতেন। তাঁর রচিত দুটো গ্রন্থ রয়েছে।

১৯৬৮ সালে জন্মগ্রহণকারী মাহবুবুল হক শাকিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন।