ট্রাম্পকে জেতাতে 'রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেছে' - মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption নির্বাচনী প্রচারণার সময় দুই প্রার্থীর মধ্যে অনেকবার উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নির্বাচনে বিজয়ী করার জন্য রাশিয়া প্রচ্ছন্নভাবে কাজ করেছে বলে বিশ্বাস করছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো, কয়েকটি সংবাদপত্রকে একথা জানিয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, গোয়েন্দা সংস্থাগুলো "খুবই আত্মবিশ্বাসী" যে ডেমোক্র্যাট দল এবং হিলারি ক্লিনটনের একজন গুরুত্বপূর্ণ সহযোগীর হ্যাকিংয়ের সাথে রাশিয়া যুক্ত ছিল।

ওয়াশিংটন পোস্টের একটি প্রতিবেদনেও একইরকম তথ্য উঠে এসেছে।

তবে মি. ট্রাম্পের সহযোগীরা মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা, সিআইএ-র দাবী নাকচ করে দিয়ে বলছেন, "এই লোকগুলোই বলেছিল যে সাদ্দাম হোসেনের কাছে ব্যাপক বিধ্বংসী অস্ত্র রয়েছে"।

রুশ কর্মকর্তারাও বারবার হ্যাকিংয়ের অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে।

শুক্রবার, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় একাধিক সাইবার অ্যাটাকের বিষয়ে একটি তদন্ত করার নির্দেশ দেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

রাশিয়ার কথিত সাইবার হামলা তদন্তের নির্দেশ ওবামার

ছবির কপিরাইট AP
Image caption ইলিনয় এবং লুইজিয়ানা অঙ্গরাজ্যের ভোটার নিবন্ধন তালিকাও হ্যাক হয়

গত অক্টোবরে এসব হ্যাকিংয়ের জন্য রাশিয়াকে দায়ী করে বক্তব্য দেন মার্কিন কর্মকর্তারা । তারা বলেন, রাশিয়া মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করছে।

এখন সিনিয়র কর্মকর্তারা বলছেন, তারা আত্মবিশ্বাসী যে রাশিয়ান হ্যাকাররা ডেমোক্র্যাটদের পাশাপাশি রিপাবলিকানদের কম্পিউটার সিস্টেমও হ্যাক করেছে, কিন্তু তারা রিপাবলিকান নেটওয়ার্কের তথ্য ফাঁস করেনি।

গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বলছে, রুশরা ডেমোক্র্যাটদের তথ্য উইকিলিকসের কাছে পাচার করে।

ডেমোক্র্যাটদের জাতীয় কমিটি এবং মিসেস ক্লিনটনের প্রচারণা কমিটির প্রধান, জন পোডেস্টার ইমেইল হ্যাকিং নিয়ে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল ডেমোক্র্যাটরা।

প্রচারণার একপর্যায়ে মি. ট্রাম্পও রাশিয়ার নাম উল্লেখ করে তাদেরকে মিসেস ক্লিনটনের আরো ইমেইল "খুঁজে" বের করার আহ্বান জানান। পরবর্তীতে তিনি দাবী করেন যে তার সেই বক্তব্য ছিল বিদ্রূপাত্মক।

এই খবর নিয়ে আরো তথ্য