দক্ষিণ কোরিয়ার বাজারে কুকুর জবাই নিষিদ্ধ

পোস্টার হাতে মোরান মাংস বাজারের সামনে পশু অধিকার বিষয়ে এক আন্দোলনকারীর প্রতিবাদ ছবির কপিরাইট AFP
Image caption ''কুকুরেরও মানুষের মত ব্যথা লাগে'' পোস্টার হাতে মোরান মাংস বাজারের সামনে পশু অধিকার আন্দোলনকারীর প্রতিবাদ

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা দেশটির সবচেয়ে বড় কুকুরের মাংসের বাজারে কুকুর জবাই নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে।

সিওংনাম শহর কর্তৃপক্ষ এবং মোরান মাংসের বাজারের বিক্রেতাদের মধ্যে যে চুক্তি হয়েছে তাতে ওই বাজারে কুকুর কাটার সবরকম ব্যবস্থা আগামী সপ্তাহেই বন্ধ করে দেওয়া হবে।

কোরিয়া হেরাল্ড সংবাদপত্রকে উদ্ধৃত করে বিবিসির মনিটরিং এই খবর জানিয়েছে।

শহরের ওই বাজারে রয়েছে ২২জন কুকুরের মাংস বিক্রেতার দোকান। তারা শহরের কয়েক লক্ষ বাসিন্দার কাছে পুরনো কালের নানা জিনিসপত্র থেকে শুরু করে জীবন্ত পশুপাখি বিক্রি করে।

সিওংনাম শহরের মেয়র লি জে-মিউং বলেছেন জীবজন্তুর কল্যাণের কথা চিন্তা করে এবং শহর ও সার্বিকভাবে দক্ষিণ কোরিয়ার ভাবমূর্তি উন্নত করার লক্ষ্যে তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছেন।

''একটা দেশের মহত্ব বিচার করতে গেলে সেই দেশ জীবজন্তুর প্রতি কীধরনের আচরণ করছে সেটা দেখা হয়," এই মন্তব্য করে মিঃ লি বলেছেন তাই দক্ষিণ কোরিয়ার ভাবমূর্তি বদলাতে উদ্যোগী হয়েছে তার শহর।

কোরিয়ার পশুকল্যাণ সমিতি এই উদ্যোগকে স্বাগত জানালেও বলেছে এটা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করা হবে বলে তাদের সন্দেহ রয়েছে।

''যারা কুকুরের মাংস বিক্রি করে তারা প্রকাশ্যে কুকুর জবাই করছে কীনা সেটা আমরা সবসময় নজরে রাখব এবং সরকার যাতে কুকুরের মাংস বিক্রি শেষ পর্যন্ত পুরোপুরি নিষিদ্ধ করে দেয় সে ব্যাপারে আমরা চাপ অব্যাহত রাখব,'' বলেন সমিতির কর্মকর্তা জ্যাং ইন-ইয়ং।

দক্ষিণ কোরিয়ায় কুকুরের মাংসের এক তৃতীয়াংশ সরবরাহ করা হয় সিওংনাম শহরের এই মাংসের বাজার থেকে এবং স্থানীয় মানুষ ও পশু অধিকার বিষয়ে আন্দোলনকারীরা বেশ অনেক দিন ধরেই প্রকাশ্যে কুকুর জবাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আসছে। শুধু প্রকাশ্যেই নয়, সেখানে কুকুর জবাই করা হয় নির্মম পদ্ধতিতে।

কুকুরের মাংস কোরিয়ার ভোজন রসিকদের জন্যএকটা ঐতিহ্যবাহী খাবার হলেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কোরিয়ায় কুকুরের মাংসের জনপ্রিয়তা খুবই কমে গেছে।