ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় আশা জাগিয়েও হেরে গেলো বাংলাদেশ

ছবির কপিরাইট টাইগারক্রিকেট.কম
Image caption বোলারদের পারফরমেন্স বিফলে গেলো ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায়

জয়ের আশা জাগিয়েও হেরে গেলো বাংলাদেশ।

নিউজিল্যান্ড সফরে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ জিততে হলে বাংলাদেশকে ২৫২ রান করতো হতো।

কিন্তু বাংলাদেশ ১৮৪ রানে অলআউট হয়ে শেষ পর্যন্ত হেরে যায় ৬৭ রানে।

ফলে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে জয় নিশ্চিত হলো নিউজিল্যান্ডের।

অথচ ২২ ওভার শেষে বাংলাদেশের দলীয় রান ছিলো ২ উইকেটে ১০৫।

এর পর বাকী সব ব্যাটসম্যান মিলে যোগ করে ৭৯ রান।

ওপেনার ইমরুল কায়েস সর্বোচ্চ ৫৯ রান করেছেন।

নিউজিল্যান্ডের উইলিয়ামসন সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট পেয়েছেন।

ছবির কপিরাইট টাইগারক্রিকেট.কম
Image caption সিরিজের ফিরে আসার সুযোগ তৈরি হয়েছে বাংলাদেশের জন্য

মূলত ১০৫ রানে সাব্বির রহমানের বিদায়ের পর ধ্বস নামে বাংলাদেশের ইনিংসে।

দুর্ভাগ্যবশত রান আউটে তার বিদায়ের পর খুব বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে পারেননি সাকিব আল হাসান ও মোসাদ্দেক হোসেন।

পরে তাদের পথ ধরেন অন্যরাও।

এর আগে নেলসনের স্যাক্সটন ওভাল স্টেডিয়ামে টস জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

দলীয় শূন্য রানে প্রথম উইকেট হারালেও শেষ পর্যন্ত নীল ব্রুমের অপরাজিত শতরানের সুবাদে ৫০ ওভার ব্যাটিং করে ২৫১ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয় স্বাগতিকরা।

মাশরাফি পেয়েছেন তিন উইকেট। আর তাসকিন আহমেদ ও সাকিব আল হাসান পেয়েছেন দুটি করে উইকেট।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩০ রানের মাথায় তামিম ইকবালের উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ দলে এ ম্যাচের মধ্য দিয়ে তিনজন খেলোয়াড়ের অভিষেক হয়েছে। এরা হলেন মুশফিকুর রহিমের ইনজুরির কারণে দলে জায়গা পাওয়া নূরুল হাসান।

বাকী দুজন হলেন তানভীর হায়দার ও শুভাশীষ রায়।

এর আগে সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ হেরেছিলো ৭৭ রানে।

৩১শে ডিসেম্বর শেষ ওয়ানডে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।