বিদেশি চ্যানেলে সব বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ: তথ্যমন্ত্রী

হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী ছবির কপিরাইট বিবিসি
Image caption হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী বলছেন, বিদেশি কেবল টেলিভিশনে সব ধরনের বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে কারণ চ্যানেলগুলো আইন ভঙ্গ করে এই কাজ করে আসছিল।

বিবিসির সাথে এক সাক্ষাৎকারে হাসানুল হক ইনু বলছেন, বাংলাদেশে সম্প্রচার করা হয় এমন শতাধিক বিদেশি কেবল চ্যানেল যদি বিজ্ঞাপন প্রচার করতে চায়, তাহলে এ নিয়ে সরকারের সাথে আলোচনা করতে হবে।

বাংলাদেশের সরকার সোমবার এক নির্দেশনার মাধ্যমে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।

বাংলাদেশে যে সব বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেল দেখানো হয় সেগুলোতে দেশি পণ্যের বিজ্ঞাপন বন্ধের দাবি জানিয়ে অনুষ্ঠান নির্মাতা, শিল্পী, বিজ্ঞাপন নির্মাতারা বেশ কিছুদিন ধরে আন্দোলন করে আসছিলেন।

এ নিয়ে গত ৩০শে নভেম্বর ঢাকায় এক বড় ধরনের বিক্ষোভ সমাবেশও হয়েছে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিবরণীতে বলা হয়, সরকারের এই নির্দেশনা ভঙ্গকারী বিদেশি টিভি চ্যানেল সম্প্রচারের অনাপত্তি ও অনুমতি এবং লাইসেন্স বাতিলসহ আইনানুযায়ী শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিশ এবং কেবল নেটওয়ার্ক সংক্রান্ত আইন ও বিধিগুলো ব্যাখ্যা করে হাসানুল হক ইনু বলেন, সরকারের সাথে কেবল টিভি চ্যানেলগুলোর যে চুক্তি রয়েছে তাতে অনুষ্ঠান প্রচার করা যাবে।

কিন্তু বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচারের কোন অনুমতি নেই বলে তিনি জানান।

Image caption বিদেশি টিভিতে বিজ্ঞাপনের বিরুদ্ধে ঢাকায় বিক্ষোভ

তিনি বলেন, এত দিন এই আইনটির যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছিল না। এখন এ নিয়ে যে বিক্ষোভ চলছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার এই আইনটির প্রয়োগের ওপর গুরুত্ব দিতে চাইছে।

মি. হক বলেন, দেশীয় বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষেত্রে সরকারকে কর দিতে হয়।

এখন বিদেশি চ্যানেলগুলো যদি বাংলাদেশে বিজ্ঞাপন প্রচার করতে চায়, তাহলে তারা কিভাবে কর শোধ করে সেটা করতে পারে তা নিয়ে সরকারের সাথে চ্যানেলগুলোর আলোচনা হতে পারে।

ইদানিংকালে বাংলাদেশের বেশ কিছু কোম্পানি ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে তাদের পণ্যের বিজ্ঞাপন দিচ্ছে।

কোম্পানিগুলোর যুক্তি: ভারতীয় চ্যানেল যেভাবে বাংলাদেশে জনপ্রিয় হয়েছে সেজন্য এসব চ্যানেলে তাদের পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার করা হলে আরও বেশি সংখ্যায় ভোক্তাদের কাছে পৌঁছানো সম্ভব হবে।

কিন্তু অভিনয় শিল্পী এবং টেলিভিশনের সাথে সংশ্লিষ্টদের অনেকেই বলছেন, এতে দেশীয় টিভি চ্যানেলগুলোর আয় কমে যাচ্ছে।