মসুল বিশ্ববিদ্যালয় ইরাকের সরকারি বাহিনীর দখলে

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption মসুল বিশ্ববিদ্যালয় দখলের লড়াই চলছে

ইরাকের সেনাবাহিনী বলছে,তারা উত্তরাঞ্চলীয় মসুল শহরটিকে ইসলামিক স্টেটের হাত থেকে পুনর্দখল করার লড়াইয়ে শহরটির বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের নিয়ন্ত্রণ দখল করেছে।

এই ক্যাম্পাসটি আইএস তাদের একটি প্রধান ঘাটি হিসেবে ব্যবহার করতো এবং এটিকে কৌশলগত-ভাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

একদিন আগে এটি মুক্ত করার লড়াই শুরু করে সরকারি বাহিনী।

ইসলামিক স্টেট মসুল শহরটি দখল করে নেয় ২০১৪ সালে।

মসুল শহরের কর দিতে সক্ষম জনগোষ্ঠী এবং নিকটবর্তী তেলক্ষেত্রগুলোর কারণে কিছুকালের মধ্যেই আইএস সবচেয়ে ধনী জঙ্গি গোষ্ঠীতে পরিণত হয়।

তবে এখন ইরাকের সরকারি বাহিনী মসুল পুনর্দখলের অভিযানে গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য পেয়েছে।

একজন জেনারেলকে উদ্ধৃত করে ইরাকের সরকারি টিভি বলছে, নিরাপত্তা বাহিনী মসুল বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাটি পুরোপুরি মুক্ত করেছে।

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক ভবন ধ্বংস হয়ে গেছে

এখানে সরকারি বাহিনী অস্ত্র বানানোর রাসায়নিক পদার্থ পেয়েছে বলে বলা হচ্ছে।

মসুল শহরের পূর্ব অংশ এর আগেই সরকারি বাহিনী নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। তবে পশ্চিমাংশ এখনো আইএসের নিয়ন্ত্রণে।

সম্প্রতি ইসলামিক স্টেটের দেয়া খবরেই বলা হচ্ছিল যে কোয়ালিশন বাহিনীর বিমান হামলায় টাইগ্রিসের ওপরকার সবগুলো সেতুই ধবংস হয়ে গেছে।

তাতে যে মসুলের বাসিন্দারা ব্যাপক দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে তা জানানোই ছিল এর উদ্দেশ্য।

তবে উপগ্রহ থেকে পাওয়া চিত্রে মনে হচ্ছিলো যে ক্ষতি আসলে ততটা ব্যাপক নয়।

ইরাকি বাহিনী আশা করছে যে এই সেতুগুলো মেরামত করে মসুল শহরের পশ্চিম অংশে তাদের অভিযানের সময় এগুলো কাজে লাগানো যাবে।

সম্পর্কিত বিষয়