বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনই নতুন সার্চ কমিটির প্রধান

Image caption ফেব্রুয়ারীতে শেষ হবে বর্তমান কমিশনের মেয়াদ

বাংলাদেশে নতুন একটি নির্বাচন কমিশনের সদস্য কারা হবেন তা খুঁজে বের করার জন্য একটি সার্চ কমিটি গঠন করেছেন দেশটির রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ।

মন্ত্রী পরিষদ সচিব শফিউল আলম বিবিসিকে বলেছেন, বুধবার সন্ধ্যায় সার্চ কমিটির ছয় সদস্যের নাম সম্বলিত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

সার্চ কমিটির প্রধান করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে।

এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন - হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, মহা হিসাব নিরীক্ষক মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম ও একমাত্র মহিলা সদস্য চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য শিরিন আখতার।

এ কমিটিকে দশ কার্যদিবসের মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার সহ অন্য কমিশনারদের নাম সুপারিশ করতে হবে।

বাংলাদেশের অন্যতম বিরোধী দল বিএনপি এ সার্চ কমিটি নিয়ে হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছে এটি নিরপেক্ষ হয়নি।

দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগির বিবিসিকে বলেছেন, ''শুরুতেই এ সার্চ কমিটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে কারণ দুজন সরকারি কর্মকর্তা এবং একজন সদস্য ইতোমধ্যেই প্রতিক্রিয়ায় সরকার প্রধানের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেছেন তার নিয়োগের জন্য।''

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, ''এ সার্চ কমিটি নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে কোন প্রশ্ন নেই।''

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বের নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হবে আগামী ৮ই ফেব্রুয়ারি।

এই কমিশনকেও ২০১২ সালে একটি 'সার্চ কমিটির' মাধ্যমে খুঁজে বের করেছিলেন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান।

সেই কমিটিরও প্রধান ছিলেন আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ।

তাঁর কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে বিদায়ী প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিনের নেতৃত্বাধীন কমিশন গঠন করা হয়েছিলো।

এবারের যে নির্বাচন কমিশনটি হবে, সেটি কিভাবে করা হবে, কোন প্রক্রিয়ায় খুঁজে বের করা হবে ইত্যাদি চূড়ান্ত করার জন্য প্রায় এক মাস ধরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করেছেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ।

ওই সংলাপে বিএনপিও যোগ দিয়েছিল।