ফুটবলের হাত ধরে পরিবর্তন

ছবির কপিরাইট Charlie Clift

ফুটবল কীভাবে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে যোগাযোগ গড়ে তুলছে তা নিয়ে আলোকচিত্রী চার্লি ক্লিফ্টের ছবির প্রদর্শনী চলছে ব্রিটেশ কাউন্সিলে। পৃথিবীর বিভিন্ন দরিদ্র দেশে সমাজে পরিবর্তন উৎসাহিত করতে ফুটবল খেলাকে কাজে লাগানো হচ্ছে প্রিমিয়ার স্কিলস কর্মসূচি নামে এক প্রকল্পে। এই কর্মসূচির দশ বছর পূর্তি উপলক্ষে এই ছবিগুলো তোলা হয়েছে।

ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption ভারতের কলকাতায় এক প্রশিক্ষণ সেশনে দৃষ্টিহীন মেয়েরা দৃষ্টিসম্পন্ন মেয়েদের সঙ্গে জুটি বেঁধে খেলছে। কোচ সবাইকে প্রশিক্ষণ দিতে আগ্রহী, এমনকী যারা প্রতিবন্ধী যারা বেশিরভাগ সময়ই সুযোগবঞ্চিত থেকে যায়।
ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption প্রিটোরিয়া শহর এলাকায় শিশুদের প্রশিক্ষণ দেন জুলিয়াস। তাদের অবশ্য ফুটবলের বদলে ব্যবহার করতে হয় বাস্কেটবল এবং খেলতে হয় ধূলোভরা খোলা জায়গায়। তবে তাদের আগ্রহ এবং দক্ষতা অবাক হবার মত

এই কর্মসূচির আওতায় প্রিমিয়ার লিগের কোচরা বিভিন্ন দেশে যান এবং নতুন কোচ ও প্রশিক্ষকদের সামনাসামনি প্রশিক্ষণ দেন, যাতে তারা তাদের সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে সেই শিক্ষা ও দক্ষতা পৌঁছে দিতে পারেন। এভাবে ভবিষ্যতের জন্য তারা একটা টেঁকসই প্রশিক্ষণ ব্যবস্থার কাঠামো তৈরি করতে সক্ষম হচ্ছেন। প্রিমিয়ার স্কিলস কর্মসূচি এ যাবৎ ২৯টি দেশে গেছে যার মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান, মালয়েশিয়া, মেক্সিকো, সুদান, ভিয়েতনাম।

ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption জোহানেসবার্গে চেলসি ফুটবল টিমের সমর্থকরা মনে করছেন তারা সবাই একই পরিবারের সদস্য। বাচ্চাদের দেখাশোনা এবং পুরনো ম্যাচের স্মৃতি নিয়ে হাসিগল্পের এক মুহূর্ত।
ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption কলকাতায় ওরিয়েন্ট গালর্স স্কুলের ছাত্রীরা প্রশিক্ষণ নিচ্ছে খোলা মাঠে। ঐ একই মাঠে চরে বেড়ায় গরুও। তাদের আলাদা খেলার মাঠ নেই।
ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption কলকাতার এক সরু গলির দোকানী - গায়ে ধুতির উপর পরা আর্সেনালের জার্সি

ফুটবলের প্রশিক্ষণ ও খেলায় অংশগ্রহণকারীদের ছবি তোলার পাশাপাশি চার্লি ক্লিফ্ট তুলেছেন তার নজরে আসা ফুটবল সমর্থকদের ছবিও। এদের অনেকেই দৈনদিন জীবনের চলাফেরার সময়ও তাদের প্রিয় দলের জার্সি পরে ঘুরে বেড়ান।

ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption ব্যারি জোহানেসবার্গে গ্যাসট্রোএন্টেরোলজিস্ট- অর্থাৎ পেটের অসুখবিসুখের ডাক্তার। তার ডাক্তারখানার প্রতিটি ঘরের প্রতিটি দেওয়াল ও আসবাবে লাগানো রয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিভিন্ন ম্যাচের নানাধরনের ছবি ও স্মারক সামগ্রী।
ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption লেস্টার সিটির বিপক্ষে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিজয়ে মুম্বাইয়ের রাস্তায় উল্লাস প্রকাশ করছে ম্যানইউ-র ভক্তবৃন্দ।
ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption গোল হওয়ার মুহূর্তে উচ্ছ্বসিত ভক্তরা সোয়েটোর গলিতে এক পানশালায় ।
ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption কলকাতায় প্রিমিয়ার স্কিলস কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া ছেলেরা সারা দিনের ট্রেনিং শেষে সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরছে।

ক্লিফ্ট বলছেন : "এই সফর শুরুর আগে আমি আশা করেছিলাম অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে আগ্রহ, আনন্দ এবং সম্প্রদায়ের মধ্যে সেতুবন্ধনের একটা মানসিকতা দেখব। কিন্তু আমার এটা ধারণাতেও ছিল না যে এদের অনেকের জন্য ফুটবল শুধু একটা বিকেলে দেখাসাক্ষাতের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। ফুটবল তাদের দ্বিতীয় পরিবার, এটা তাদের পরস্পরকে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর একটা মাধ্যম এবং সমাজ পরিবর্তনের জন্য একটা চালিকাশক্তি।''

এই কর্মসূচি থেকে এ পর্যন্ত উপকৃত হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার সোয়েটো এবং ভারতে কলকাতার বস্তি এলাকার বারো লক্ষের বেশি তরুণতরুণী।

ছবির কপিরাইট Charlie Clift
Image caption এই কিশোর সোয়েটোতে স্থানীয় প্রিমিয়িার স্কিলস সেশনে অংশ নিচ্ছে। ছেলেটির বাবা মা দুজনেই মারা গেছেন। ছেলেটি থাকে তার দাদীর সঙ্গে, যিনি ফুটবলে ছেলেটির অর্জন নিয়ে গর্বিত এবং তার ভবিষ্যত সম্ভাবনা নিয়ে উৎসাহিত বোধ করেন।

সম্পর্কিত বিষয়