মার্কিন সামরিক বাজেটে 'ঐতিহাসিক বৃদ্ধি'-র প্রস্তাব দিলেন ট্রাম্প

  • ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption সামরিক ব্যয় বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাজেটে ঐতিহাসিক বৃদ্ধির প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হোয়াইট হাউজের কর্মকর্তারা বলছেন, মি. ট্রাম্প মার্কিন সামরিক সংস্থা, পেন্টাগনের বাজেট ৫ হাজার চার'শ কোটি ডলার বাড়াতে চাইছেন, যা পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় ১০ শতাংশ বেশি।

অন্যান্য বেশ কিছু খাত থেকে অর্থ ছাটাই করে সামরিক খাতে এই অর্থ ব্যয় করা হবে। যেসব খাত থেকে বাজেট ছাটাই করে সামরিক খাতে দেয়া হবে তার মধ্যে বৈদেশিক সাহায্য এবং পরিবেশ রক্ষাও রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার এই পরিকল্পনা নিয়ে সরকারের বিভিন্ন সংস্থার সাথে কথা বলেছেন এবং আগামী মে মাসে তার পূর্ণ পরিকল্পনা কংগ্রেসের সামনে তুলে ধরবেন।

হোয়াইট হাউজে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের গভর্নরদের সাথে এক বৈঠকে দেয়া বক্তব্যে মি. ট্রাম্প বলেন, সামরিক খাতে এই বর্ধিত বাজেটটির মাধ্যমে তিনি পুরো বিশ্বকে একটি বার্তা দিতে চান।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption বিশ্বের অন্য যেকোন দেশের চাইতে সামরিক খাতে অনেক বেশি ব্যয় করে যুক্তরাষ্ট্র। বছরে প্রায় ৬০ হাজার কোটি ডলার।

"এই বাজেটটি হবে জননিরাপত্তা এবং জাতীয় নিরাপত্তার বাজেট। এই দুটো বিষয়ের ওপর গুরুত্ব থাকবে, তবে আরো অনেক বিষয়ও থাকবে। সামরিক বাজেটে ঐতিহাসিক বৃদ্ধি ঘটবে যার মাধ্যমে আমাদের নিশে:ষিত হতে থাকে সামরিক বাহিনীকে পুনর্গঠন করা হবে। এটি একটি মাইলফলক এবং বিপদজনক এই সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের শক্তি, নিরাপত্তা এবং সংকল্প সম্পর্কে পৃথিবীর কাছে একটি বার্তা"। বলেন মি. ট্রাম্প।

ডোনাল্ড ট্রাম্প তার নির্বাচনী প্রচারণার সময় সামাজিক কল্যাণমূলক কর্মসূচি অব্যাহত রেখে সামরিক ব্যয় বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কংগ্রেসে কোন্দলের কারণে সামরিক ব্যয় কমেছে।

তবে হঠাৎ করেই সেনাদের ট্যাংক বা এয়ারক্রাফটের জন্য বাজেট বরাদ্দ কংগ্রেস অনুমোদন করাটাও অস্বাভাবিক নয়। যদিও পেন্টাগন এর আগেও বলেছে যে, তাদের এসবের প্রয়োজনই নেই।