আলেপ্পোতে যুদ্ধাপরাধ হয়েছে: জাতিসংঘ

সিরিয় সরকার এবং তাদের মিত্রদেশ রাশিয়ার চালানো বিমান হামলায় কয়েকশো লোকের প্রাণহানি ঘটেছে। ছবির কপিরাইট AFP
Image caption সিরিয় সরকার এবং তাদের মিত্রদেশ রাশিয়ার চালানো বিমান হামলায় কয়েকশো লোকের প্রাণহানি ঘটেছে।

জাতিসংঘের এক তদন্তে গত বছর সিরিয়ার আলেপ্পো দখলের লড়াই চলার সময় সেখানে জাতিসংঘের এক ত্রাণ বহরে হামলার জন্য সিরিয়ার বিমানবাহিনীকে দায়ী করা হয়েছে।

ওই হামলায় নিহত হয় প্রায় ১৪ জন।

জাতিসংঘের তদন্ত রিপোর্টে এই ঘটনাকে যুদ্ধাপরাধ বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

এই তদন্তে আরও বলা হচ্ছে, রুশ সমর্থিত সিরিয়ান বাহিনী তখন রাসায়নিক অস্ত্রও ব্যবহার করেছে এবং বার বার হাসপাতাল এবং বাজারের মতো জায়গায় হামলা করেছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার তদন্তকারীরা বলছেন গত বছর আলেপ্পোর লড়াইয়ের সময় সব পক্ষের হাতেই সিরিয়ার বেসামরিক মানুষ যুদ্ধাপরাধের শিকার হয়েছে।

সিরিয় সরকার এবং তাদের মিত্রদেশ রাশিয়ার চালানো বিমান হামলায় কয়েকশো লোকের প্রাণহানি ঘটেছে।

নতুন এই রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে সরকারি বাহিনীর ফেলা ক্লোরিন বোমায় আহত হয়েছে কয়েকশো বেসামরিক মানুষ।

বিদ্রোহী বাহিনীর বিরুদ্ধেও অভিযোগ আনা হয়েছে যে তারা সরকার নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোয় নির্বিচারে গোলাবর্ষণ করেছে এবং সেসব এলাকার মানুষকে মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করেছে।

তদন্তকারীরা আরও বলেছেন, গত ডিসেম্বরে পূর্ব আলেপ্পোয় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকা থেকে বেসামরিক মানুষদের সরিয়ে নেবার প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে বহু সাধারণ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

ওই প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়েই আলেপ্পোর লড়াইয়ের অবসান ঘটে।

তদন্তকারীরা এই প্রতিবেদন তৈরি করার জন্য কয়েকশো প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন এবং উপগ্রহের মাধ্যমে তোলা ছবি ও অবিস্ফোরিত গোলাবারুদ পর্যবেক্ষণ করেছেন।

তারা বলেছেন আলেপ্পোয় গত ছয় মাসের লড়াইয়ে যেসব বেসামরিক মানুষ আটকা পড়েছিলেন তারা চরম দু:খ-দুর্দশার মধ্যে দিন কাটিয়েছেন এবং তাদের মানবাধিকার বারবার লংঘিত হয়েছে।

আরো পড়ুন:

'মুসলিমদেরও দাহ করা'র প্রস্তাব দিলেন বিজেপি নেতা

কোকা-কোলা, পেপসি নিষিদ্ধ হলো তামিলনাডুতে

লিফট-গাড়ি নিয়ে ইন্দোনেশিয়া যাচ্ছেন সৌদি বাদশাহ

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption আলেপ্পোর পূর্বাঞ্চলের হাসপাতালগুলোও হামলায় বিধ্বস্ত হয়ে যায়।