টিকা না দিলে কঠোর ব্যবস্থা: অস্ট্রেলিয়া

ইনজেকশন ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে 'নো জ্যাব নো প্লে' (টিকা না নিলে নিষিদ্ধ) নীতি প্রচলিত রয়েছে

শিশুকে টিকা না দিলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের নীতি ঘোষণা করেছে অস্ট্রেলিয়ার সরকার।

অস্ট্রেলিয়ার সরকার বলছে, যেসব শিশু টিকা নেয়নি তাদের চাইল্ড কেয়ার সেন্টার এবং নার্সারি স্কুলে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হবে।

দেশটির কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে ইতোমধ্যেই 'নো জ্যাব নো প্লে' (টিকা না নিলে নিষিদ্ধ) নীতি প্রচলিত রয়েছে, তবে পুরো দেশজুড়ে এই আইন চালু করার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল।

স্বাস্থ্যখাত নিয়ে কর্মরতরা এই উদ্যোগকে সমর্থন করেছেন। তাদের মতে, সমাজ ও পরিবারের উচিত শিশুদের রক্ষায় যথাযথ দায়িত্ব পালন করা।

অস্ট্রেলিয়ান চাইল্ড হেলথ পোল এর করা একটি জরিপে দেখা গেছে, প্রায় দুই হাজার অভিভাবকের মধ্যে প্রায় পাঁচ শতাংশ রয়েছেন যারা তাদের শিশুকে পরিপূর্ণভাবে টিকা দেননি।

মি: টার্নবুল বলেছেন, এ বিষয়ে আরো অনেক কাজ করা বাকি।

হুপিং কফে মারা যাওয়া এক শিশুর উদাহরণ টেনে মি: টার্নবুল বলেন, "এটা কোনো তাত্ত্বিক অনুশীলন নয়, এটা জীবন ও মৃত্যুর প্রশ্ন। যদি কোনো বাবা-মা ঠিক করেন যে তাদের সন্তানকে টিকা দেবেন না তাহলে তারা শুধু নিজেদের সন্তানকেই ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন না, অন্যের সন্তানদেরও ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন"।

শিশুদের টিকা দেয়ার বিষয়টি অস্ট্রেলিয়ার আইনের মধ্যে পড়ে না, কিন্তু দেশটির অভিভাবকেরা এ নিয়ে পড়েছেন সমস্যার মধ্যে। এখন শিশুর যদি টিকা দেয়া না থাকে তাহলে অভিভাবকেরা তাদের সন্তানকে চাইল্ডকেয়ার সেন্টার বা কোন স্কুলে দিতে পারবে না।

অস্ট্রেলিয়া কুইন্সল্যান্ড, নিউ সাউথ ওয়েলস ও ভিক্টোরিয়া রাজ্য অনেক আগেই এই নীতি গ্রহণ করেছে।

অস্ট্রেলিয়ার মেডিকেল এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাইকেল গেনন বলছেন, সংক্রামণ রোগে আক্রান্ত হওয়ার সবচেয়ে বেশি সম্ভাবনা থাকে শিশুদের।

ফেয়ারফেক্স মিডিয়ার কাছে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, "যদি আপনি অভিবাবক হন তাহলে আপনাকে এই সমাজ যেমন ওয়েল ফেয়ার পেমেন্ট এবং সেবা প্রদান করে; তেমনি আপনারও অন্য শিশুদের সুরক্ষা করার মাধ্যমে সমাজে অবদান রাখা প্রয়োজন"।

আরো পড়তে পারেন:

মিশরে প্রাচীন রাজার বিশাল মূর্তি আবিষ্কার

ব্রেক্সিট বিল সংসদের উচ্চ কক্ষে পাশ

কুষ্টিয়ায় মার্কিন সাংবাদিক হয়রানি: কী হয়েছিল?

ইংরেজি-মাধ্যম শিক্ষার্থীদের চাকরিতে চায় সরকার