বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় উত্তর কোরিয়া জড়িত, দাবি যুক্তরাষ্ট্রের

  • ২৩ মার্চ ২০১৭
বিবিসি
Image caption অর্থ চুরির কেলেঙ্কারি মাথায় নিয়ে সম্প্রতি পদত্যাগ করতে হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমানকে।

আধুনিক বিশ্বে সবচেয়ে বড় ব্যাংক চুরির ঘটনাগুলোর অন্যতম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির ঘটনায় উত্তর কোরিয়া জড়িত বলে দাবি করছে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

চীনা মধ্যসত্ত্বভোগীদের সহায়তায় উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে বিপুল অংকের অর্থ লোপাট করে বলে এফবিআইর তদন্ত কর্মকর্তারা জানতে পেরেছেন। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল বলছে, এ ঘটনায় উত্তর কোরিয়াকে দায়ি করে মামলা দায়েরেরও প্রস্তুতি নিচ্ছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের খবরের উদ্ধৃতি দিয়ে বিভিন্ন বার্তা সংস্থার খবরে বলা হয়, মার্কিন তদন্ত কর্মকর্তারা মনে করছেন, উত্তর কোরিয়ার সরকারের নির্দেশনায় নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের বাংলাদেশ অ্যাকাউন্ট থেকে আট কোটি দশ লাখ ডলার চুরি করা হয়।

এই হ্যাকাররা গতবছরের ফেব্রুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক ব্যাংক কোড ব্যবহার করে সুইফট সিস্টেমে প্রবেশ করে এবং নিউইয়র্কের ফেডারেল ব্যাাংকের বাংলাদেশ অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ ট্রান্সফার করে ফিলিপিন্সে সরিয়ে নেয়।

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার ডেপুটি ডিরেক্টর রিচার্ড লেজেট বলেছেন, উত্তর কোরিয়াই হয়তো এ ঘটনায় জড়িত। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাও এর আগে সেদিকেই ইঙ্গিত করেছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

আরও পড়ুন:হঠাৎ করে শেখ হাসিনা কেন 'র'-এর সমালোচনায় মুখর

লন্ডনে হামলা সম্ভবত ইসলামপন্থীদের কাজ: পুলিশ

তওবা টিভিতে ইসলামী অনুষ্ঠানের সময় পর্ন প্রচার

প্রাথমিকভাবে হ্যাকাররা ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি করলেও পরে দুই কোটি ডলার উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

ফিলিপিন্সের সিনেট কমিটি এই চুরির ঘটনার তদন্ত শুরুর পর একটি ক্যাসিনোর মালিকের কাছ থেকে দেড় কোটি ডলার উদ্ধার করা পর তা ফেরত পায় বাংলাদেশ।

গবেষকরা এবং নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা এর আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ চুরির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের আর্থিক খাতে একাধিক সাইবার হামলা এবং ২০১৪ সালে সনি পিকচার্সের হলিউড স্টুডিও হ্যাকের ঘটনার সাথে মিল রয়েছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন।

সম্পর্কিত বিষয়