হাজার হাজার ইউরো ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন গ্রিসে গুলিবিদ্ধ সেই বাংলাদেশিরা

২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে
Image caption ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে গ্রিসের একটি স্ট্রবেরি খামারে গুলিবিদ্ধ হন বাংলাদেশি ২০ জনেরও বেশি শ্রমিক।

গ্রিসে একটি স্ট্রবেরি খামারে বকেয়া বেতন চাইতে গিয়ে বাংলাদেশি যে শ্রমিকেরা গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন, তারা এবার ক্ষতিপূরণ পেতে যাচ্ছেন।

ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইটসের মামলায় জয়ী হয়েছেন ওই বাংলাদেশি শ্রমিকেরা।

বাংলাদেশি ৪২ জন শ্রমিকের পক্ষে রায় দিয়ে প্রত্যেককে ১২ হাজার ইউরো থেকে ১৪ হাজার ইউরো পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য গ্রিক সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

আদালত এক রায়ে বলেছে, মানবপাচারের মতো ঘটনা মোকাবেলায় এবং ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি অধিকারও সুরক্ষায় কর্তৃপক্ষ ব্যর্থ হয়েছে।

২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে গ্রিসের পেলোপন্নেসিয়ান গ্রামের এক স্ট্রবেরি খামারের শ্রমিকেরা তাদের ছয় মাসের বকেয়া বেতনের দাবি জানাতে গেলে সেখানকার একজন সুপারভাইজার তাদের ওপর গুলি চালায়।

ওই ঘটনায় ২০ জনেরও বেশি বাংলাদেশী শ্রমিক আহত হয়।

এরপর খামার মালিক ও সংশ্লিষ্ট সুপারভাইজারকেও গ্রেপ্তার করা হয়।

কিন্তু পরবর্তীতে ওই ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় গ্রিসের আদালত খামার মালিক ও সুপারভাইজারকে নির্দোষ বলে রায় দেয়।

এছাড়া গ্রিসের ওই আদালত ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের পাওনা বেতন পরিশোধ বা কোনো ক্ষতিপূরণও দেয়নি।

সেকারণেই এরপর মানবাধিকার লঙ্ঘন ও ক্ষতিপূরণের আশায় দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইটসে মামলা করে শ্রমিকেরা।

গ্রিসের বাংলাদেশ সমিতির প্রেসিডেন্ট জয়নাল আবেদিন তখন বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছিলেন, "ইউরোপিয়ান কনভেনশন অব হিউম্যান রাইটসের একটি অনুচ্ছেদ, যেখানে দাসত্ব ও জোরপূর্বক শ্রম নিষিদ্ধ করা হয়েছে, সেই অনুচ্ছেদ লঙ্ঘনের দায়ে প্রথমবারের মতো গ্রিসের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ শ্র্রমিকেরা সবাই মিলে মামলাটি করে"।

ওই মামলায় নিজেদের পক্ষে রায় পেল ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশি শ্রমিকেরা।

আরো পড়ুন:

পাকিস্তানকে পতাকা দেখাতে গিয়ে বিপাকে ভারত

মৌলভীবাজারে আত্মঘাতী বিস্ফোরণে ৭/৮ জঙ্গি নিহত

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির জয়

তিস্তা চুক্তি নিয়ে মমতার বিরোধিতা কেন?

Image caption ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকেরা পাওনা বেতন বা কোন ক্ষতিপূরণ পায়নি বলে পরে দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করে তারা।

আদালতের এই রায়ক স্বাগত জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

ইউরোপিয়ান এই মামলার অন্যতম একজন আবেদনকারী মোর্শেদ চৌধুরী আদালতের রায়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেছেন "আজকের রায়ে আমরা খুবই খুশি। ওই খামারে বিনা বেতনে শ্রমিকদের ওপর অত্যাচারের পরও যে খামার মালিককে গ্রিক আদালত ছেড়ে দেয় , সেটা আমাদের জন্য খুবই হতাশার ছিল"।

"গ্রিসের অর্থনীতিতে যে আমাদের ভূমিকা আছে তা স্বীকার করে আমাদের গুরুত্ব দেবে গ্রিক সরকার" -এমন আশা প্রকাশ করেন মি: চৌধুরী।

স্ট্রবেরি খামারে শ্রমিকদের ওপর গুলির ঘটনা তখন ব্যাপকভাবে আলোচনায় আসে। গ্রিসে খামারের কাজে অভিবাসী শ্রমিকদের ওপর অত্যাচার নির্যাতনের ঘটনা এবং জোরপূর্বক শ্রম আদায়ের বিষয়টিও তখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল।