কলকাতায় নারী কবিকে গণধর্ষণের হুমকি

মন্দাক্রান্তা সেন ছবির কপিরাইট Mandakranta sen facebook page
Image caption কবি মন্দ্রাক্রান্তা সেন বলছেন, তাঁর ফেসবুক পেজে এক ব্যক্তি তাঁকে অশ্লীলভাবে সম্বোধন করে গণধর্ষণের হুমকি দেন।

কলকাতায় নারী কবি মন্দাক্রান্তা সেন অভিযোগ করেছেন ফেসবুকে তাকে গণধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

এর আগে, আরেক কবি শ্রীজাত বন্দ্যোপাধ্যায়কেও একটি কবিতা লেখার কারণে হুমকি দেওয়া হয়েছে এবং হিন্দুদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার জন্য পুলিশের কাছে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে।

এই দুটি ঘটনাকে একদিকে যেমন সৃজনশীলতার স্বাধীনতা খর্ব করার চেষ্টা বলে মনে করা হচ্ছে, অন্যদিকে শরীরী আক্রমণের ভয় দেখিয়ে এক নারীর প্রতিবাদ বন্ধ করার প্রচেষ্টা বলেও মনে করছেন কেউ কেউ।

কবি মন্দ্রাক্রান্তা সেন বলছেন, তাঁর ফেসবুক পেজে এক ব্যক্তি তাঁকে অশ্লীলভাবে সম্বোধন করে গণধর্ষণের হুমকি দেন।

ওই ব্যক্তি মন্দাক্রান্তাকে নিয়ে যা লিখেছেন, তা প্রকাশের অযোগ্য। কিন্তু ফেসবুক পেজে তার মূল অভিযোগ, মন্দাক্রান্তা বা তার মতো নারীরাই নাকি দেশটাকে শেষ করছে।

পোস্টটি দেওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই তা নজরে আসে কবি মন্দাক্রান্তা সেনের।

রাতেই তিনি কলকাতা পুলিশের সাইবার ক্রাইম সেলে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মন্দাক্রান্তা সেন বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন, "আমরা ওসি সাইবার ক্রাইম এবং যুগ্ম পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে দেখা করে এফ আই আর দায়ের করেছি। তাঁরা আশ্বস্ত করেছেন যে সঠিক পথে দ্রুত তদন্ত করবেন। কিন্তু আমি পুলিশ প্রহরা চেয়েছিলাম। কারণ একাই ঘোরাঘুরি করি শহরে। প্রহরা দেওয়া হয়নি, পরে ভেবে দেখবেন বলে পুলিশ আধিকারিকরা জানিয়েছেন।"

তিনি আরও জানাচ্ছিলেন যে শুধু গণধর্ষণের হুমকিতেই শেষ হয়নি, "আমাকে এবং শ্রীজাতকে অকথ্য, অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ দেওয়া চলছেই।"

গত সপ্তাহে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে যোগী আদিত্যনাথ শপথ নেওয়ার পরে কলকাতার আরেক কবি - শ্রীজাত বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা একটি কবিতার কারণে তাঁর নামে পুলিশে অভিযোগ জানায় কট্টর হিন্দু গোষ্ঠীর সমর্থক এক ছাত্র।

হিন্দুদের ধর্মবিশ্বাসে আঘাত করার সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু করেছে শ্রীজাত'র বিরুদ্ধে।

যদিও মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী জানিয়েছেন, শ্রীজাত'র পাশেই তিনি আছেন, তাঁর কিছুই হবে না।

আরো পড়তে পারেন:

ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন গ্রিসে গুলিবিদ্ধ সেই বাংলাদেশিরা

পাকিস্তানকে পতাকা দেখাতে গিয়ে বিপাকে ভারত

মৌলভীবাজারে আত্মঘাতী বিস্ফোরণে ৭/৮ জঙ্গি নিহত

তিস্তা চুক্তি নিয়ে মমতার বিরোধিতা কেন?

ছবির কপিরাইট Mandakranta sen facebook page
Image caption মন্দাক্রান্তা সেনের ফেসবুক পাতা থেকে নেয়া

মন্দাক্রান্তা সেন বলছিলেন "প্রথমে শ্রীজাত, তারপরে তিনি আক্রমণের শিকার হয়েছেন ধর্মীয় কট্টরপন্থীদের কাছে"।

"আমাদের রাজ্যে ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার কোনও জায়গা ছিল না। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এটা তৈরি করা হচ্ছে। আমরা যারা শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ, যারা বাকস্বাধীনতার পক্ষে এবং ধর্মীয় মৌলবাদ, ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে কথা বলছি, তারাই আক্রান্ত হচ্ছি" বলছিলেন মন্দাক্রান্তা সেন।

পশ্চিমবঙ্গের নারী আন্দোলনের কর্মী শাশ্বতী ঘোষের মতে, কবিদের ওপরে এই হুমকি বা পুলিশ-অভিযোগ একদিকে যেমন সৃজনশীলতার স্বাধীনতা খর্ব করার চেষ্টা, অন্যদিকে একজন নারীর প্রতিবাদকেও বন্ধ করার প্রয়াস।

"একটি মেয়ে যখন প্রতিবাদ করছে, তখন তার সমস্ত সৃজনশীলতাকে পুরোপুরি একটা শরীরী জায়গায় নামিয়ে আনা হচ্ছে। তার শরীরকে ইঙ্গিত করে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো, গণধর্ষণের হুমকি, সেটা না হলে যেন মেয়েটিকে পুরোপুরি শাস্তিটা দেওয়া হলো না" -বলছিলেন মিস ঘোষ।

তিনি এটাও বলছিলেন যে "কবি-সাহিত্যিকদের ওপরে ধর্মীয় কট্টরপন্থীদের হুমকি এর আগেও দেখেছে কলকাতা, যখন তসলিমা নাসরিনকে শহর ছেড়ে চলে যেতে হয়েছিল মুসলিম কট্টরপন্থীদের হুমকির মুখে।"

কবি শ্রীজাত'র বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করার বিরুদ্ধে দিনকয়েক আগে পথে নেমে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন কলকাতার কবি-সাহিত্যিক-বুদ্ধিজীবীরা। সেই প্রতিবাদে ছিলেন ভাষা ও চেতনা সমিতির প্রধান ইমানুল হক।

মন্দাক্রান্তাকে গণধর্ষণের হুমকির প্রসঙ্গে তিনি বলছিলেন, "আমরা একটা মাধ্যম পেয়েছি, কিন্তু সেটাকে কীভাবে ব্যবহার করবো সেটা শিখিনি। এটা কখনো সংগঠিতভাবে হচ্ছে, কখনো এককভাবে করা হচ্ছে। যার যখন মনে হচ্ছে গালিগালাজ করে দিচ্ছে।

একদিকে শ্রীজাতর বিরুদ্ধে এফ আই আর হচ্ছে, মন্দাক্রান্তাকে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে, নবীকে নিয়ে লেখা হচ্ছে আবার মুখ্যমন্ত্রীকেও অকথ্য গালি দেওয়া হচ্ছে।"-এটা একটা চরম অসহিষ্ণুতার প্রকাশ বলে মন্তব্য করেন ইমানুল হক।

মন্দাক্রান্তা সেনকে গণধর্ষণের হুমকি দেওয়া বা তার পরে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করার পরেও তাঁকে ফেসবুকে আক্রমণ চলছেই।

এই প্রতিবেদন পাঠানো পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে যে মিস সেন এবং কবি শ্রীজাত - দুজনের নাম করেই অশ্লীল গালাগালি দেওয়া হচ্ছে ফেসবুক পেজে।

আর সন্ধ্যায় ফেসবুকেই আরও একটি কবিতা লিখেছেন মন্দাক্রান্তা: 'আমাকে ধর্ষণ করবে? ভয় পাই না এই হুমকিকে/ ভয় পাই এ সমাজ এগিয়ে চলেছে কোন দিকে'

শেষে তিনি লিখেছেন, 'মৌলবাদ দূর করো আমাদের সভ্যতা থেকে/ মানুষের স্বর হয়ে কবি যেন প্রতিবাদ লেখে।'

সম্পর্কিত বিষয়