মাঠে ময়দানে
আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

আগামী বিশ্বকাপে কি আর্জেন্টিনা আর মেসি-কে দেখা যাবে না?

রাশিয়ায় আগামি বিশ্বকাপ ফুটবলে কি আর্জেন্টিনা এবং লিওনেল মেসি-কে দেখা যাবে না?

গত কয়েকদিনে যা ঘটেছে তাতে এটা এখন রীতিমত সম্ভব বলেই মনে হচ্ছে।

কারণ দক্ষিণ আমেরিকার কোয়ালিফাইং গ্রুপ-এ আর্জেন্টিনার অবস্থান এখন পাঁচ নম্বরে। বিশ্বকাপে সরাসরি যাবে প্রথম চারটি - পঞ্চম দলটিকে প্লেঅফ খেলে মস্কোর টিকিট পেতে হবে।

আর্জেন্টিনার সবশেষ ম্যাচটি ছিল বলিভিয়ার বিরুদ্ধে, তাতে ২-০ গোলে হেরে গেছে তারা।

খেলতে পারেন নি লিওনেল মেসি - কারণ এর আগে চিলির বিরুদ্ধে ম্যাচটিতে একজন রেফারির প্রতি অবমাননাকর আচেরণের জন্য তার ওপর চার ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

প্রশ্ন হলো, বাকি চারটি খেলা রয়েছে আর্জেন্টিনার - সেগুলোতে মেসিকে ছাড়া তারা কি জিততে পারবে?

এরই বিশ্লেষণ করেছেন বিবিসির দক্ষিণ আমেরিকা ফুটবল বিশেষজ্ঞ টম ভিকারি

তিনি বলছেন, "আর্জেন্টিনার এই দলটি মোটেও সুবিধের নয়, এবং তারা এখন সত্যি গুরুতর সমস্যায় আছে । গ্রুপে তারা পঞ্চম স্থানে নেমে গেছে। তাদের এখন ওসেনিয়া গ্রুপের কোন একটি দলের সাথে প্লে-অফ খেলতে হবে। লিওনেল মেসি এবার চোটের কারণে অর্ধেকের বেশি ম্যাচ খেলতেই পারেন নি।"

"আমি একটা হিসেব দিচ্ছি - তা থেকেই বেরিয়ে আসবে, আর্জেন্টিনা মেসির ওপর কতটা নির্ভরশীল। আর্জেন্টিনার ছ'টি ম্যাচে মেসি খেলেছেন। তার মধ্যে তারা পাঁচটি জিতেছে, একটি হেরেছে। আর মেসিকে ছাড়া আর্জেন্টিনা খেলেছে সাতটি ম্যাচ। তার মধ্যে একটি মাত্র জয়, চারটি ড্র, আর দুটি পরাজয়। আমার মনে হয়, এর পর আর বুঝিয়ে বলার কিছু নেই"।

ছবির কপিরাইট Elsa
Image caption মেসির ওপর আর্জেন্টিনার সাফল্য অনেকটা নির্ভর করে

"বলিভিয়ার ম্যাচটির এর পর আর্জেন্টিনার খেলা আছে আরো চারটি । অগাস্ট আর সেপ্টেম্বরের মধ্যে উরুগুয়ে, ভেনেজুয়েলা আর পেরুর বিরুদ্ধে খেলা আছে । আর্জেন্টিনার কর্তৃপক্ষ চেষ্টা করছে আপিল করে মেসির নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ দুই ম্যাচে নামিয়ে আনতে । তাহলে ভেনেজুয়েলা আর পেরুর বিরুদ্ধে ম্যাচগুলোতে হয়তো মেসি খেলতে পারবেন। কিন্তু এ দুটো ম্যাচ হয়তো মেসিকে ছাড়াও জিততে পারবে আর্জেন্টিনা । কিন্তু উরুগুয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচটি যদি তারা হেরে যায় - তাহলে আর্জেন্টিনার চরম বিপদ ঘটে যেতে পারে ।"

"তার পর শেষ ম্যাচ রয়েছে ইকুয়েডরের বিরুদ্ধে। ম্যাচটি হবে ইকুয়েডরের রাজধানী কিটোতে - কিন্তু সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৯ হাজার ফিটেরও বেশি উচ্চতায় ফুটবল খেলতে আর্জেন্টিনা একেবারেই পছন্দ করে না। তা ছাড়া মনে রাখতে হবে, ইকুয়েডর কিন্তু আগের ম্যাচটিতেই আজেন্টিনাকে হারিয়েছে। তাই এই ম্যাচগুলোর ফলাফল কি হয় - তার ওপরই নির্ভর করে আর্জেন্টিনাকে আগামি বিশ্বকাপে দেখা যাবে কিনা।"

"কিছুকা্ল আগেই মেসি আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তখন তাকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে রাজি করানো হয়েছিল - অন্তত আরেকটি বিশ্বকাপ পর্যন্ত খেলার জন্য। এখন চার ম্যাচের নিষেধাজ্ঞার ফলে সেটা আর হবে কিনা বলা কঠিন, কারণ আর্জেন্টিনা তাকে ছাড়া কোয়ালিফাই করতে পারবে কিনা তারই তো কোন গ্যারান্টি নেই।"

"মেসি কখনোই বেশি কথা বলার লোক নন। কিন্তু কম কথাতেই লাইন্সম্যানকে এমন এক গালি তিনি দিয়েছেন - যাতে তাকে চার ম্যাচের জন্য নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে । হয়তো এই দুর্বল আর্জেন্টিনা দলে খেলার হতাশা থেকেই তার এই আচরণ। তবে তিনি কারো গায়ে হাত তোলেন নি।"

"অনেকে মনে করেন শাস্তির মাত্রা একটু বেশিই হয়ে গেছে। নানা রকম ষড়যন্ত্র তত্ব বাতাসে ঘুরছে এ নিয়ে। যেমন বলা হচ্ছে, পিএফএর এক অনুষ্ঠানে মেসি যাননি বলেই ফিফা তাকে এভাবে শাস্তি দিলো। আরেক তত্বে বলা হচ্ছে, আর্জেন্টিনার ফুটবল ফেডারেশনের প্রধান পদে যদি আজ হুলিও গ্রনডোনার মতো প্রভাবশালী লোক থাকতেন - তাহলে চার ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা দিতে ফিফা সাহস পেতো না।"

যাই হোক লিওনেল মেসি এর আগে তিনটি বিশ্বকাপ খেলেছেন - কিন্তু আর্জেন্টিনাকে একবারও কাপ জেতে নি।

তাই ৩০ বছর বয়েসে আরেকটি বিশ্বকাপ খেললেই যে তিনি তার পারবেন এমন মনে করার কোন কারণ নেই। বিশেষ করে আর্জেন্টিনা এখন যে অবস্থায় আছে।

কিন্তু বিশ্বকাপ ফুটবল হবে অথচ তাতে আর্জেন্টিনা থাকবে না, পৃথিবীর সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি থাকবেন না- এটা ফুটবল ভক্তদের মেনে নেয়া কষ্টকর।

ছবির কপিরাইট Tom Shaw
Image caption আইপিএল

আইপিএল বিগ ব্যাশের মতো টি২০ টুর্নামেন্ট করছে ইংল্যান্ডও

আইপিএল বা বিগব্যাশের আদলে একটি শহরভিত্তিক টি২০ টুর্নামেন্ট শুরু করবে ইংল্যান্ড। ২০২০ থেকে শুরু হবে এটি।

ইংলিশ ক্রিকেটকে বাঁচিয়ে রাখতে কিছু একটা করতে হবে তা অনেকদিন ধরেই অনুভব করছিলেন ইংলিশ ক্রিকেট কর্তারা। শেষ পর্যন্ত তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং তা হল আইপিএল আর বিগ ব্যাশের মতো একটি টি২০ টুনামেন্টই পারবে ক্রিকেটে নতুন করে দর্শক এবং টাকার প্রবাহকে ফিরিয়ে আনতে।

ফলে ঠিক হয়েছে যে ২০২০ সাল থেকে একটি শহর ভিত্তিক টুর্নামেন্ট চালু হবে। দল থাকবে আটটি, যাদের নাম হবে ইংল্যান্ডের বিভিন্ন শহরের নামে। টুর্নামেন্ট হবে ৩৮ দিনের, খেলা থাকবে ৩৬টি। ইসিবিতে সর্বসম্মতভাবে পাস হয়েছে এ্ প্রস্তাব।

তাহলে কি ক্রিকেটের ঐতিহ্যগত কেন্দ্র ইংল্যান্ডও মেনে নিচ্ছে যে এ যুগে ক্রিকেটকে টিকিয়ে রাখতে হলে টি২০র পথে হাঁটা ছাড়া উপায় নেই ?

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক ব্যাটসম্যান ও অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুল এখন আইসিসির একজন কর্মকর্তা্।

ছবির কপিরাইট Paul Kane
Image caption গত বিগ ব্যাশ জিতেছে পার্থ স্কর্চার্স

তিনি অস্ট্রেলিয়ায় দীর্ঘদিন থাকার কারণে সেখানকার ক্রিকেট জগৎকেও খুব কাছে থেকে দেখেছেন। দেখেছেন টি২০ টুর্নামেন্ট হিসেবে বিগ ব্যাশের বিপুল জনপ্রিয়তা।

এবারের মাঠে ময়দানে অনুষ্ঠানে রয়েছে ইংল্যান্ডে প্রস্তাবিত এই নতুন টি২০ টুর্নামেন্ট নিয়ে তার বিশ্লেষণ। তিনি বলছেন , ইংল্যান্ডের ক্রিকেট কর্তারা সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছেন - যা ইংলিশ ক্রিকেটে নতুন প্রাণসঞ্চার করবে।

এবারোর মাঠে ময়দানে পরিবেশন করেছেন পুলক গুপ্ত।

সম্পর্কিত বিষয়