'মুসলিমরা গোমাংস বর্জন করুন': আজমেরের দেওয়ান

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ভারতের একটি কসাইখানা

ভারতীয় মুসলিমদের গরুর মাংস না খাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আজমের শরীফ দরগার প্রধান।

এক বিবৃতিতে দেওয়ান জয়নুল আবেদিন খান - যিনি মুঘল যুগের আধ্মাতিক নেতা খাজা মইনুদ্দিন চিশতির ২২তম বংশধর - ভারতীয় মুসলিমদের প্রতি এক আহ্বানে বলেছেন, ভারতে 'হিন্দু ও মুসলিমদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের স্বার্থে' এবং 'হিন্দুদের ধর্মীয় অনুভূতিকে সম্মান জানিয়ে' মুসলিমদের গোমাংস বর্জন করা উচিৎ।

তিনি ঘোষণা দেন , তিনি এবং তার পরিবারও গরুর মাংস খাওয়া ছেড়ে দিচ্ছেন।

আরো পড়ুন : শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় প্রতিরক্ষা চুক্তি হবে কি?

যে কারণে সরকার ফেসবুক বন্ধ করতে চায় না

আরো পড়ুন: যে কারণে বাংলাদেশ সরকার ফেসবুক বন্ধ করতে চায় না

ভারতীয় সাংবাদিকের চোখে বাংলাদেশের জঙ্গীবিরোধী অভিযান

আজমের শরীফেরএই আধ্যাত্মিক নেতা আরো বলেছেন, তিনবার তালাক বলে স্ত্রীর সাথে বিচ্ছেদ ঘটনোর যে প্রথা আছে - তা কোরান ও শরিয়ার বিরোধী।

"এই তিন তালাক অমানবিক, অনৈসলামিক, এবং নারীপুরুষের সাম্যের বিরোধী" - বলেন মি. খান।

ছবির কপিরাইট PRAKASH SINGH
Image caption আজমের শরীফ

এ বছর আজমেরের খাজা মঈনুদ্দিন চিশতীর ৮০৫তম উরস বা মৃত্যুবার্ষিকী অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

দেওয়ান জয়নুল আবেদিন খানএক বিবৃতিতে বলেন, "এই দিন উপলক্ষে আমি এবংআমার পরিবার অঙ্গীকার করছি যে বাকি জীবনেআমরাআর কখনই গরুর মাংস খাবো না।"

তার এই আবেদন এমন এক সময় এলো যখন ভারতে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপির শাসনাধীন রাজ্যগুলোতে 'গোহত্যা' এবং গোমাংস খাওয়া নিষিদ্ধ করা হচ্ছে, এবং এ নিয়ে ভারতে ব্যাপক বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।

ছবির কপিরাইট TENGKU BAHAR
Image caption আজমের শরীফ

ভারতে হিন্দুরা গরুকে পবিত্র বলে মনে করে।

ভারতে গুজরাট সরকার গোহত্যার শাতি হিসেবে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের বিধান করাকেও সমর্থন করেন দেওয়ান জয়নুল আবেদিন খান।

তিনি গরুকে জাতীয় প্রাণী হিসেবে ঘোষণার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রতি আহ্বানও জানান।

সম্পর্কিত বিষয়