Man forcibly dragged off US flight
আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

আমেরিকায় বিমান থেকে টেনে হিঁচড়ে নামানো হলো যাত্রীকে

আমেরিকায় একজন যাত্রীকে নিরাপত্তা কর্মীরা বিমান থেকে টেনে হিঁচড়ে নামানোর একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর বিমান সংস্থার বিরুদ্ধে সোশাল মিডিয়ায় ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে।

এতে দেখা যাচ্ছে, শিকাগো থেকে লুইভিলগামী ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটের সিট থেকে একজন যাত্রীকে নিরাপত্তা কর্মীরা টেনে নামাচ্ছে।

যাত্রীটির মুখমণ্ডল ছিল রক্তাক্ত এবং তিনি প্রাণপণে চিৎকার করছিলেন।

আশেপাশের যাত্রীরাও মাইগড, মাইগড বলে বিষ্ময়প্রকাশ করছিলেন।

জানা যাচ্ছে, রোববার ঐ ফ্লাইটে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রীর কাছে টিকেট বিক্রি করা হয়েছিল।

এরই মাঝে বিমানের চারজন কর্মচারীর জন্য সিটের প্রয়োজন দেখা দিলে, ইউনাইটেডের স্টাফ বিমান বন্দরে ঘোষণা করে যেসব যাত্রী ঐ ফ্লাইটে তাদের সিট ছেড়ে দেবেন তাদের প্রত্যেককে ৪০০ ডলার করে দেয়া হবে এবং একই সাথে পরবর্তী ফ্লাইটে উঠিয়ে দেয়া হবে।

ঐ প্রস্তাবে কোন যাত্রী সাড়া না দিলে নগদ অর্থের পরিমাণ বাড়ানো হয়।

কিন্তু তাতেও কেউ সিট ছাড়তে না চাইলে ইউনাইটেড কর্মচারীরা চারজন যাত্রীকে জোর করে নামানোর সিদ্ধান্ত নেয়।

ছবির কপিরাইট Jayse D Anspach
Image caption এই যাত্রীর নাম-ধাম জানা না গেলেও তিনি নিজেকে একজন ডাক্তার হিসেবে পরিচয় দেন।

এদের মধ্যে একজন যাত্রী জানান যে তিনি একজন ডাক্তার এবং তিনি সিট ছাড়তে পারছেন না কারণ পরের দিন হাসপাতালে তার জরুরি কাজ রয়েছে।

কিন্তু বিমানকর্মীরা তাকে জোর করে সিট থেকে সরাতে গেলে শুরু হয় ধস্তাধস্তি।

বিমানের ভেতরে অন্য ক'জন যাত্রী তাদের মোবাইল পুরো ঘটনাটির ভিডিও তুলে রাখেন।

এর পর যাত্রী-সেবার এমন নজির নিয়ে সারা বিশ্বে শুরু হয় তোলপাড়।

ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স গোড়াতে এই ঘটনার জন্য দু:খ প্রকাশ করে বিষয়টি তদন্ত করার কথা বলে।

কিন্তু এর প্রধান নির্বাহী কর্মচারীদের প্রতি যে চিঠি লিখেছেন তাতে তিনি বলেছেন নিরাপত্তা কর্মীরা নিয়ম মেনেই কাজ করেছে এবং ঐ যাত্রী গোলযোগ সৃষ্টি করছিল।

এরপর সোশাল মিডিয়ায় তার বিরুদ্ধেও নিন্দা শুরু হয়।

আরো দেখুন:

অপু-শাকিব উপাখ্যান নিয়ে বুবলির বক্তব্য

যেভাবে কেটেছিল দিল্লিতে শেখ হাসিনার সেই দিনগুলো

সম্পর্কিত বিষয়