ভারতের যে গ্রামে ‘রাষ্ট্রপতি’ আর ‘প্রধানমন্ত্রী’দের বাস

  • ১৮ এপ্রিল ২০১৭
ছবির কপিরাইট CHANDAN KHANNA
Image caption রাজস্থানের একটি গ্রাম (ফাইল ফটো)

রাজস্থানের বুঁদির কেল্লার নাম শুনেছেন হয়ত অনেকেই।

ওই বুঁদি শহর থেকে ৮-১০ কিলোমিটার দূরের গ্রাম রামনগর। সেখানে 'রাষ্ট্রপতি', 'প্রধানমন্ত্রী' সহ একগুচ্ছ ভি ভি আই পির বাস! বাদ নেই 'কালেক্টর', 'আই জি' প্রভৃতিরাও।

ওই 'রাষ্ট্রপতি' বা 'প্রধানমন্ত্রী'দের পরিবারে অনেকেরই পেশা আবার চুরি ডাকাতি !

তাই গ্রামেই রয়েছে 'হাইকোর্ট'।

বুঁদির তহশীলদার চতরলাল মীনা বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন ওই গ্রামে এত ভি ভি আই পি-র বসবাসের রহস্য।

"রামনগরে কঞ্জর জনজাতির বসবাস। বেশীরভাগই অশিক্ষিত। আবার দুষ্কর্মও করে অনেকে। কিন্তু এদিকে ছেলে মেয়ের নাম রাখতে সব ওস্তাদ! কেউ রাষ্ট্রপতি, কেউ প্রধানমন্ত্রী, কেউ আবার 'এস পি', 'আই জি' নাম রেখেছে সন্তানদের।"

যখনই কোনও উচ্চপদাধিকারী ব্যক্তি আলোচনায় আসেন, তাদের পদের নামেই নাম রেখে দেন রামনগরের বাসিন্দারা।

কোনও দিন হয়তো জেলার পুলিশ সুপারিন্টেডেন্ট এলাকায় গেছেন, এই খবর পেয়ে পরবর্তী যে সন্তান হল, তার নাম হয়ে গেল এসপি।

একজন চুরির দায়ে ধরা পড়ে হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছিল, সে তার নাতির নাম রেখেছে 'হাইকোর্ট'।

আরও পড়ুন :ঢাকায় সাপের বিষের চালান কাদের জন্য আসে?

সাইবার হয়রানি ঠেকাতে স্কুলছাত্রীদের প্রশিক্ষণ

সংবাদ সংস্থা পি টি আই তার এক প্রতিবেদনে জানাচ্ছে, ওই গ্রামে গেলে দেখা যেতেই পারে যে 'রাষ্ট্রপতি' ছাগল চরাচ্ছে বা 'প্রধানমন্ত্রী' সওদা করতে শহরে গেছে!

পাশের নৈনওয়া এলাকাতেও এরকমই সব উচ্চপদে আসীন ব্যক্তিদের নাম রাখার চল আছে, তবে তারা 'রাষ্ট্রপতি' বা 'প্রধানমন্ত্রী' অবধি পৌঁছতে পারে নি এখনও। সেখানে গ্রামের 'পাটোয়ারী' বা 'মুখিয়া' এধরণের গ্রাম্য এলাকার উচ্চপদে আসীন ব্যক্তিদের নাম রাখা হয়।

তবে পি টি আই বলছে সম্প্রতি 'সিম কার্ড' বা 'স্যামসাং' এসব নামও রাখা হচ্ছে নৈনওয়ার বাচ্চাদের।

এলাকার তহশীলদার গজেন্দ্র সিং সোলাঙ্কির কাছে অবশ্য 'সিম কার্ড' বা 'স্যামসাং' নামের খবর এখনও পৌঁছয় নি।

ছবির কপিরাইট Kevin Frayer
Image caption রাজস্থানের একটি গ্রাম (ফাইল ফটো)

তবে গ্রামে গঞ্জে স্থানীয় ক্ষমতাবান সরকারি কর্মকর্তা বা পদাধিকারী বা সেনাবাহিনীর জেনারেল, পুলিশের হাবিলদার, এমন কি চিঠি বিলি করতে আসে যে ডাক পিওন, এদের পদের নামে বাচ্চাদের নাম রাখার চল বহুদিন ধরেই আছে, বলছিলেন মি. সোলাঙ্কি।

বুঁদির তহশীলদার মি. মীনার মতে, "হয়তো বাবা-মায়েরা চান যে তাঁর সন্তানরা ওইসব পদাধিকারীদের মতোই হয়ে উঠুক বড় হয়ে। সেজন্যই ওরকম নাম রাখেন। আর এইসব নাম রাখতে বেশী চিন্তাভাবনা করতে হয় না তো, সেটা একটা সুবিধা এদের!"

সম্প্রতি ঝাড়খন্ড রাজ্যে পাকিস্তান কুমার রকেট, কাশ্মীর কুমার রকেট আর জাপান কুমার রকেট নামের তিন ভাইকে পুলিশ খুঁজছিল এক পুলিশ কর্মীকে আক্রমণ করার ঘটনায়। ওই তিনভাইয়ের নাম শুনে অনেকেই সামাজিক মাধ্যমে সহাস্য মন্তব্য করেছিলেন।

তবে ভারতের শহরগুলোতে বাচ্চাদের অপ্রচলিত নাম দেওয়ার রেওয়াজ হয়েছে । অনেকেই সাহিত্যিকদের কাছ থেকে ছেলে মেয়ের নাম ঠিক করিয়ে নেন।

সম্পর্কিত বিষয়