যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ইরানের করা পরমাণু চুক্তিটি পর্যালোচনা নির্দেশ দিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প

  • ১৯ এপ্রিল ২০১৭
ডোনাল্ড ট্রাম্প, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ছবির কপিরাইট গেটি ইমজেসে
Image caption ডোনাল্ড ট্রাম্প, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের সাথে ওবামা প্রশাসনের করা পরমাণু চুক্তি পর্যালোচনার নির্দেশ দিয়েছেন।

ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তোলাটা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থ বিরোধী হয়েছে কিনা, তা খুঁটিয়ে দেখতে বলেছেন।

যদিও মি. ট্রাম্পের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন মার্কিন সংসদে লেখা এক চিঠিতে স্বীকার করেছেন যে ইরান চুক্তির সব শর্ত মনে চলছে, তবে একইসাথে তিনি বলেছেন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ইরানের ভূমিকা আমেরিকার কাছে উদ্বেগের বিষয়।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর নির্বাচনী প্রচারাভিযানের সময় বার বার ইরানের সঙ্গে করা পরমাণু চুক্তিকে খুবই খারাপ চুক্তি বলে বর্ণনা করেছিলেন।

ক্ষমতায় গেলে তিনি ইরানের সঙ্গে এই চুক্তি রাখবেন কিনা, তা নিয়ে তখনই প্রশ্ন উঠেছিল।

কিন্তু এখন তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন হাউস স্পীকার পল রায়ানের কাছে যে চিঠি পাঠিয়েছেন, তাতে আবারও এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

চিঠিতে মি. টিলারসন স্বীকার করছেন যে ২০১৫ সালের ঐ চুক্তি ইরান পুরোপুরি মেনে চলেছে।

কিন্তু তারপরও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নির্দেশ জারি করেছেন ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়াটা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য কোন হুমকি তৈরি করছে কিনা, তা যাচাই করে দেখতে।

আরো দেখুন:

বাকশক্তি হারিয়ে ফেলেছেন মূসা বিন শমশের

মুসলিম নেতার ফতোয়ার প্রতিবাদে ন্যাড়া হলেন সোনু নিগম

দুই নেত্রীর মামলার কাগজপত্র আগেই হয়েছিল: মইনুল

ছবির কপিরাইট ইপিএ
Image caption ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লাহ্‌ খামেনির প্রতিকৃতির সামনে ইরানের মধ্যপাল্লার ক্ষেপাণাস্ত্র।

২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে ছয়টি ক্ষমতাধর দেশের যে চুক্তি হয়েছিল, তার লক্ষ্য ছিল ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ক্ষমতা সীমিত করে দেয়া, যাতে করে তারা পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে না পারে।

এর বিনিময়ে ইরানের বিরুদ্ধে জারি করা আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হয়েছিল।

ইরান অবশ্য একথা বরাবরই অস্বীকার করেছে যে তারা পরমাণু অস্ত্র তৈরির চেষ্টা করছে।

যুক্তরাষ্ট্র যদি ইরানের সঙ্গে করা চুক্তি ভঙ্গ করে, সেটা মধ্যপ্রাচ্যে আরও অনিশ্চয়তা এবং অস্থিতিশীলতা তৈরি করতে পারে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

তারা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র এ কাজ করলে ইরানও তাদের প্রতিশ্রুতি থেকে সরে গিয়ে নতুন করে পরমাণু কর্মসূচি সম্প্রসারণে লেগে যেতে পারে।

সম্পর্কিত বিষয়