এভারেস্টে উঠতে গিয়ে পর্বতারোহী উয়েলি স্টেক নিহত

ছবির কপিরাইট ইপিএ
Image caption উয়েলি স্টেকস

সুইস পর্বতারোহী উয়েলি স্টেক পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এভারেস্টে এক অভিযানের সময় নিহত হয়েছেন।

চল্লিশ বছর বয়স্ক উয়েলি স্টেক পর্বতাারোহণের জন্য বহু পুরস্কার পেয়েছেন, এবং তিনি দ্রুতগতিতে পর্বতে ওঠার ক্ষমতার জন্য সুপরিচিত ছিলেন। তাকে অনেকে 'একজন কিংবদন্তী' বলেও আখ্যায়িত করেছেন এবং তাকে নিয়ে তৈরি হওয়া সিনেমা নতুন প্রজন্মের অনেককে পর্বতারোহণের প্রতি আকৃষ্ট করেছে।

তিনি অক্সিজেন ছাড়াই নতুন একটি পথ দিয়ে এভারেস্ট শৃঙ্গে ওঠার অভিযানের জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলেন। সে সময় এক দুর্ঘটনায় তিনি নিহত হন বলে জানিয়েছেন নেপালী পর্যটন অফিসের কর্মকর্তারা।

জানা গেছে দুর্ঘটনার সময় তিনি একাই পর্বত বেয়ে উঠছিলেন, এবং সে সময় বরফের ঢাল থেকে পিছলে প্রায় ১ হাজার মিটার নিচে পড়ে গিয়ে তার মৃত্যু ঘটে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

তিন বছর আইএসের 'ক্রীতদাস' হয়ে থাকা ৩৬ ইয়াজিদি মুক্ত

দোষ প্রমাণের আগে রাজাকার না বলতে পরামর্শ

'আয়রনম্যান' স্যুট পরে উড়ে দেখালেন উদ্ভাবক

ছবির কপিরাইট এএফপি
Image caption মাউন্ট এভারেস্ট

মি. স্টেক ২০১২ সালে একবার অক্সিজেন ছাড়া মাউন্ট এভারেস্টে উঠেছিলেন।

এ ছাড়া ২০১৫ সালে ইউরোপের আল্পস পর্বতমালার ৮২টি শৃঙ্গে আরোহণ করেছিলেন মাত্র ৬২ দিনে।

পর্বতারোহণের ক্ষেত্রে তার দৃষ্টিভঙ্গী এবং কষ্ট সহ্য করার ক্ষমতার জন্য মি. স্টেককে অনেকে ডাকতেন 'সুইস মেশিন' বলে। তার কয়েকটি অভিযান নিয়ে চলচ্চিত্রও তৈরি হয়েছে।

তার মৃতদেহ হেলিকপ্টারে করে নামিয়ে এনে কাঠমান্ডু নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ব্রিটিশ পর্বতারোহী কেনটন কুল তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তাকে একজন 'অনুপ্রেরণার উৎস' বলে আখ্যায়িত করেছেন। ব্রিটিশ পর্বতারোহণ কাউন্সিল তাকে একজন কিংবদন্তী বলে বর্ণনা করে শোক প্রকাশ করেছে।

সম্পর্কিত বিষয়