ব্লগারদের একাউন্ট হ্যাক করে তথ্য সংগ্রহ করতেন 'জঙ্গি' আইটি প্রধান

  • ২ মে ২০১৭
ছবির কপিরাইট DMP News
Image caption সোমবার রাতে ঢাকার ভাটারা এলাকা থেকে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার-আল-ইসলামের (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) তথ্যপ্রযুক্তি (আইটি) শাখার প্রধান আশফাক-উর-রহমান ওরফে অয়নকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট

বাংলাদেশের ঢাকার পুলিশ বলছে, তারা একটি নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনের তথ্যপ্রযুক্তি শাখার প্রধানকে গ্রেপ্তার করেছে, যিনি ব্লগারদের একাউন্ট হ্যাক করে তাদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করতেন। পরে ওই ব্লগারদের উপর হামলা করা হতো।

সোমবার রাতে ঢাকার ভাটারা এলাকা থেকে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার-আল-ইসলামের (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) তথ্যপ্রযুক্তি (আইটি) শাখার প্রধান আশফাক-উর-রহমান ওরফে অয়নকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।

গ্রেপ্তারকৃত অয়ন আরিফ বা অনীক নামেও পরিচিত বলে পুলিশ জানিয়েছে। তিনি পলাতক জঙ্গি নেতা মেজর জিয়ার ঘনিষ্ঠ সহযোগী বলে পুলিশ বলছে।

আরো পড়তে পারেন:

শস্য থেকে জ্বালানি: হুমকিতে পড়বে খাদ্য নিরাপত্তা?

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিমের সঙ্গে দেখা হবে সম্মানের: ট্রাম্প

ইসরায়েল নিয়ে নমনীয় হচ্ছে হামাস?

ঢাকায় একটি সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ জানিয়েছে, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের বহুল আলোচিত মেজর জিয়ার অধীনে ও পরিচালনায় রাজধানীর উত্তরায় ও পল্লবীর কালাপানি এলাকায় নাস্তিক ব্লগার হত্যা সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশিক্ষণে সে অংশ নেয়। পরবর্তী সময়ে সে আনসার-আল-ইসলাম (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) এর সামরিক বিভাগের আইটি শাখার প্রধান হিসাবে নিযুক্ত হয়।

তিনি ব্লগারদের আইডি হ্যাকিংসহ তাদের সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে টার্গেট চিহ্নিত করণের কাজে জড়িত ছিলেন। এছাড়া ওয়েব পেইজে ধর্মীয় উগ্রবাদ বক্তব্য সংবলিত বিভিন্ন লেখা অনুবাদ করে সে নিয়মিত ভাবে ওয়েব পেইজে আপলোড করতেন।

ঢাকার পুলিশ জানিয়েছে, তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে, ২০১৪ সালে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগে পড়াকালীন আনসার-আল-ইসলাম (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) এর সাংগঠনিক কার্যক্রম শুরু করে। এরপর ২০১৫ সালে সে আনসার-আল-ইসলাম (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) এর সামরিক বিভাগে যোগদান করে।

সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ২০১৫ সালে আনসারুল্লাহ বাংলা টিম নিষিদ্ধ করে বাংলাদেশের সরকার। ব্লগার রাজিব হায়দার হত্যাকাণ্ড, লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাসহ বেশ কয়েকটি হত্যাকাণ্ডে এই সংগঠন জড়িত বলে গোয়েন্দারা ধারণা করেন।

সম্পর্কিত বিষয়