ফেসবুকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় আবার মামলা

ফেসবুকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় আবার মামলা ছবির কপিরাইট CARL COURT
Image caption ফেসবুকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় আবার মামলা

বাংলাদেশের সিলেট জেলায় ফেইসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করে পোস্ট দেয়ায় এক কলেজ ছাত্রের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ।

জেলার পুলিশ বলছে তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলাটি হয়েছে।

ঐ কলেজ ছাত্রকে না পেয়ে পুলিশ তার ভাইকে ধরে নিয়ে আটকে রেখেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সিলেটে বিশ্বনাথ উপজেলার খারিকুনা গ্রামের ঘটনা। খুব ভোরে অভিযুক্ত কলেজ ছাত্র ফাইজুল ইসলামের বাড়িতে অভিযান হয়েছে।

তাকে না পেয়ে তার এক ভাইকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছে পরিবারের সদস্যরা। বড় ভাই মোহাম্মদ ইকবাল উদ্দিন বলছেন সকাল থেকে তার দিন গেছে থানা পুলিশ করে।

"বিকাল পর্যন্ত চেষ্টা করছি আমার ভাইকে তাদের কাছ থেকে আনার জন্য। তারা বলছে আরেকটু সময় যাক। আপনি আপনার ছোট ভাইকে দেন। আমি বলছি ভাই দেখেন আমি কিভাবে দেবো। আমি নিজেইতো তাকে খুজতেছি। যদি পাই তাহলে আমি নিজেই নিয়ে আসবো," বলেছেন তিনি।

ইকবাল উদ্দিন বলছেন, ফেইসবুক সম্পর্কে তার বা তার ভাইদের কারোরই তেমন অভিজ্ঞতা নেই। এক্ষেত্রে অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে অন্য কেউ পোস্ট দিয়েছে বলে দাবি করছেন তিনি।

তিনি বলছেন, "সে বলছে আমার আইডিটা চুরি হয়ে গেছে। সে বলছে তার অ্যাকাউন্ট হ্যাক না জানি কি হইছে। ফেইসবুক আমি নিজে বুঝি না আর ও নিজেও ফেইসবুকে দক্ষ না। এসব অভিযোগ প্রথম শোনার পর আমরা তাতে মারধোর বকাঝকা করেছি এর পর সে বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে।"

ওদিকে সিলেট জেলার পুলিশ কাউকে আটকে রাখার অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে তার ভাইকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছিলো।

সিলেট জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আ ক ম আক্তারুজ্জামান বসুনিয়া বলছেন, অভিযুক্ত ছেলেটি ছাত্র শিবিরের সাথে সম্পৃক্ত বলে তারা জানতে পেরেছেন।

তিনি বলছেন, "আমরা যতটুক জানতে পারছি সে একটু ইয়ে টাইপের আরকি। পড়াশোনা খুব একটা করেনি। কোন কাজ না করলে যেটা হয়। এই ঘটনার সাথে তার কোন সংযোগ থাকলেও থাকতে পারে। আর সে ছাত্র শিবির করে বলে এরকম জানা গেছে।"

মি বসুনিয়া বলছেন, পালিয়ে না গিয়ে বরং তাদের কাছে এলেই জিনিসটা সহজ হতো।

তিনি বলছেন, "সে বরং পালিয়ে না গিয়ে আমাদের সহযোগিতা করতে পারতো। তার ডিভাইসটা আমাদের দিলে আমরা এক্সামিন করতে পারতাম যে তার মোবাইল থেকে এটা করা হয়েছে কিনা। এখন প্রযুক্তি দিয়ে সব বের করে ফেলা যায়। কিন্তু সে যেহেতু পালিয়ে গেছে তাই আমরার ধরে নেবো সেই বিষয়টা করেছে।"

বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রী বা প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটুক্তির জেরে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা বা গ্রেফতার নতুন কিছু নয়।

এই আইনটির ৫৭ ধারা নিয়ে চলমান সমালোচনার মধ্যেই আবারো নতুন করে মামলার খবর এলো।