রোহিঙ্গা হত্যা, ধর্ষণের সব অভিযোগ থেকে নিজেদের মুক্তি দিল বার্মিজ সেনাবাহিনী

  • ২৩ মে ২০১৭
মিয়ানমারে অত্যাচার নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের অনেকে সেখান থেকে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে ছবির কপিরাইট MUNIR UZ ZAMAN/AFP
Image caption মিয়ানমারে অত্যাচার নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের অনেকে সেখান থেকে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে।

বার্মিজ সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে বলেছে, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে হত্যা, ধর্ষণ বা নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে তারা নিজস্ব তদন্ত পরিচালনা করেছে এবং রোহিঙ্গা জাতিগত সংখ্যালঘুদের ওপর গুরুতর নির্যাতনের যে অভিযোগ উঠেছিল তা সব হয় মিথ্যা না-হয় ভ্রান্ত।

গত বছর রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের ৬৫ হাজারের বেশি মানুষ সীমান্ত পেরিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে প্রবেশ করে। তাদের অনেকেই বার্মিজ সেনাদের হাতে ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হওয়ার অভিযোগ করেন।

মিয়ানমার থেকে বিবিসির সংবাদদাতা জোনাহ ফিশার জানান, জাতিসংঘ বাংলাদেশে পালিয়ে আসা শত শত রোহিঙ্গা নাগরিকের বক্তব্য শোনার পর বার্মার সেনাবাহিনী গত ফেব্রুয়ারি মাসে এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করে।

বার্মিজ সেনাদের দ্বারা রাোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের নারীদের ব্যাপকহারে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ ওঠার পর জাতিসংঘের কর্মকর্তারা একে 'মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ' হিসেবে অভিহিত করেন।

আরও পড়ুন: ব্রিটেনে লন্ডন বোমা হামলার পর এটাই কি সবচেয়ে বড় হামলা?

কাশ্মিরী যুবককে 'মানব-ঢাল' বানানো ভারতীয় সেনাকে পুরস্কার

'চারদিকে পুলিশ, বুঝলাম আমাদের টার্গেট করেছে'

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অবস্থা দেখার জন্য জাতিসংঘ কর্মকর্তা ইয়াংহি লি কক্সবাজার সফর করেন

যদিও বার্মার সেনাবাহিনীর তদন্তকারী দল বাংলাদেশে যায়নি কিন্তু তারা বলছে, প্রায় ৩০০০ গ্রামবাসীর সাথে কথা বলেছে তারা।

বিবৃতিতে বলা হয়, জাতিসংঘের করা ধর্ষণ এবং হত্যার সবধরনের অভিযোগ ছিল অসত্য।

সেইসাথে তারা উল্লেখ করেছে, কেবলমাত্র দুটো ঘটনার ক্ষেত্রে সৈন্যরা অসদাচরণ করেছে।

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption বাংলাদেশের একটি শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শিশু

তবে সেসময় রাখাইন রাজ্যের আগুনে পুড়ে যাওয়া গ্রাম ও মানুষের মৃতদেহের যে ভয়াল ছবি এবং নারীদের বয়ানে যে চিত্র উঠে এসেছে, তার প্রেক্ষিতে এই তদন্ত দলের পর্যবেক্ষণ মেলানো বেশ কঠিন।

ঘটনার বিষয়ে অনুসন্ধানের জন্য জাতিসংঘের স্বাধীন তদন্ত দল পাঠানোর প্রচেষ্টাও মিয়ানমারের নেত্রী অং সাং সূচির বাধার কারণে আটকে গেছে বলে মনে করা হয়।

সম্পর্কিত বিষয়