ইরানের পার্লামেন্ট ও খোমেনির মাজারে সন্ত্রাসী হামলায় ১২ জন নিহত

আয়াতোল্লাহ খোমেনির মাজারে কি ঘটেছে তা নিয়ে পরস্পর বিরোধী খবর পাওয়া যাচ্ছে ছবির কপিরাইট AFP
Image caption আয়াতোল্লাহ খোমেনির মাজারে কি ঘটেছে তা নিয়ে পরস্পর বিরোধী খবর পাওয়া যাচ্ছে

ইরানের রাজধানী তেহরানে একই সঙ্গে পার্লামেন্ট ভবন এবং আয়াতোল্লাহ খোমেনির মাজারে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের সর্বশেষ খবরে বলা হচ্ছে সেখানে অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছে।

ইসলামিক স্টেট এই হামলার দায় স্বীকার করেছে।

ইরানের ডেপুটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী জানিয়েছেন, মহিলাদের ছদ্মবেশে অস্ত্রধারীরা পার্লামেন্টের ভেতরে ঢুকে গুলি করা শুরু করে। এদের একজন শরীরে বাঁধা বোমার বেল্টের বিস্ফোরণ ঘটায়।

পুরো পার্লামেন্ট ভবন ঘিরে রাখা হয়েছে।

পার্লামেন্ট ভবনের বাইরে থেকে ধারণ করা ভিডিওতে প্রচন্ড গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। সেখানে একজন নিরাপত্তা রক্ষী নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

অন্যদিকে দক্ষিণ তেহরানে আয়াতোল্লাহ খোমেনির মাজারে হামলায় কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

একজন আত্মঘাতী হামলাকারি ও কয়েকজন বন্দুকধারি সেখানে হামলায় অংশ নেয়।

সেখানে দ্বিতীয় একটি আত্মঘাতী হামলা হয়েছে বলেও খবর পাওয়া যাচ্ছে।

পার্লামেন্ট ভবনে ঠিক কী ঘটছে সে সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর খবর পাওয়া যাচ্ছে।

কোন কোন খবরে বলা হচ্ছে সেখানে একটি আত্মঘাতী হামলা হয়। বন্দুকধারীরা সেখানে লোকজনকে জিম্মি করেছে বলেও কোন কোন গণমাধ্যমে খবর দেয়া হচ্ছে।

কিন্তু বিবিসি এখনো কোন সূত্র থেকে এসব খবরের সত্যাতা যাচাই করতে পারেনি।

ইরানের একজন এমপি সেইদ হোসেইন নাকভি হোসেইনিকে উদ্ধৃত করে ইসনা বার্তা সংস্থা জানাচ্ছে, পার্লামেন্ট ভবনের ভেতরে এখনো তিনজন বন্দুকধারী রয়েছে।

ছবির কপিরাইট AFP
Image caption রাজধানী থেকে কয়েক কিলোমিটার দক্ষিণে আয়াতুল্লাহ খোমেনির সমাধি স্থল ( ফাইল ফটো)

বন্দুকধারীদের হাতে কালাশনিকভ রাইফেল এবং পিস্তল দেখা গেছে।

ইরনা বার্তা সংস্থা বলছে, একজন বন্দুকধারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তেহরানের গভর্ণর জানিয়েছেন, আয়াতোল্লাহ খোমেনির মাজারে আত্মঘাতী বোমার বেল্ট বাঁধা এক হামলাকারি একটি বিস্ফোরণ ঘটায়।

কোন কোন খবরে বলা হচ্ছে আত্মঘাতী হামলাকারি ছিল এক মহিলা।

এ ঘটনার বিস্তারিত খবর এখনো আসছে।