টেরেজা মে কি ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থাকতে পারবেন?

  • ৯ জুন ২০১৭
টেরেজা মে ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption টেরেজা মে-র ভবিষ্যত অনিশ্চিত

টোরিরা পরবর্তী সরকার গঠন করতে পারবে কীনা শুধু তা নিয়েই নয়, এমনকী টেরেজা মে তার পদ ধরে রাখতে পারবেন কীনা তা নিয়েও কনজারভেটিভ দলে এখন আলোচনা শুরু হয়েছে।

বিবিসির রাজনৈতিক সম্পাদক লরা কুয়েন্সবার্গ লিখছেন, মিসেস মে তার উপদেষ্টাদের নিয়ে কনজারভেটিভ সদর দপ্তরে আলোচনায় বসেছেন। সাবেক একজন মন্ত্রী অ্যানা সব্রি বলেছেন "তার ভবিষ্যত নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর এখন ভাবা উচিত।" রাজনীতির ভাষায় এটা পদত্যাগের আহ্বান।

লরা বলছেন আরেকজন শীর্ষস্থানীয় এমপি তাকে বলেছেন "মিসেস মে কীভাবে থাকবেন আমি বুঝতে পারছি না।"

একজন মন্ত্রী তাকে টেক্সট করে বলেছেন "টোরি পার্টির অবস্থা একটা রাজতন্ত্রের মত- যেখানে জোর করে ক্ষমতা বদল হয়।" টোরি সূত্র থেকে লরাকে আরও বলা হয়েছে যে সকালের মধ্যে তার পদত্যাগের সম্ভাবনা ৫০ শতাংশ।

কোনো কোনো কনজারভেটিভ সদস্য অবশ্য সতর্ক মন্তব্য করছেন। তারা বলছেন এখন কিছুটা ঠাণ্ডা মাথায় পরিস্থিতি পর্যালোচনার প্রয়োজন।তারা বলছেন পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন লড়ার দায়িত্ব টেরেজা মে-র ওপর ছেড়ে দেওয়া যায় কীনা সেটা তাদের এখন বিবেচনা করে দেখতে হবে।

লরা কুয়েন্সবার্গ বলছেন ডেভিড ক্যামেরন ইইউ গণভোট নিয়ে জুয়া খেলেছিলেন, যে কারণে তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শেষ করতে হয়েছিল। একইভাবে টেরেজা মে মেয়াদের তিন বছর বাকি থাকতে নির্বাচন দিলেন, যেটার প্রয়োজন ছিল না। তিনিও জুয়া খেলে তার রাজনৈতিক ভবিষ্যত প্রশ্নের ছুঁড়ে দিয়েছেন।

কনজারভেটিভ পার্টি নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না বলেই পূর্বাভাস। হয়ত অন্য দলের সাহায্য নিয়ে কনজারভেটিভ সরকার গঠন করতেও পারে কিন্তু লরা বলছেন টেরেজা মে নিশ্চিতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তার "শক্তিশালী এবং স্থিতিশীল" ভাবমূর্তি ধূলায় লুটিয়েছে।

টেরেজা মে ভেবেছিলেন এখন হঠাৎ নির্বাচন ডাকলে টোরিরা তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা আরও বাড়াতে পারবে।

সেটা তো হয়ই নি, লরা কুয়েন্সবার্গ বলছেন টেরেজা মের কর্তৃত্ব বড়ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। তিনি বলছেন তার কর্তৃত্ব মিসেস মে কীভাবে পুনরুদ্ধার করবেন বা আদৌ তা পারবেন কীনা সেটাই এখন বড় প্রশ্ন।

সম্পর্কিত বিষয়