এক মিনিটের নিরবতা পালন কি সৌদি সংস্কৃতির বিরোধী

  • ১০ জুন ২০১৭
ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption নিরবতা পালন না করায় সৌদি ফুটবল দলের সমালোচনা করেন অস্ট্রেলিয়ার অনেক রাজনীতিক

লন্ডন ব্রিজে চালানো হামলায় নিহতদের স্মরণে এক মিনিটের নিরবতায় সৌদি আরবের জাতীয় ফুটবল দল অংশ না নেওয়ার ঘটনায় দেশটির ফুটবল প্রধান দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাই পর্বের এক খেলার আগে এই নিরবতা পালনের সময় অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়েরা পাশাপাশি হাতে হাত ধরে দাঁড়িয়ে অংশ নেন। কিন্তু এসময় সৌদি আরবের ফুটবলাররা যে যেই পজিশনে খেলেন মাঠের সেখানেই দাঁড়িয়ে থাকেন। তাদের অনেককে হাত পা নাড়তেও দেখা গেছে।

সৌদি আরবের কর্মকর্তারা বলছেন, তাদেরকে আগে থেকে বলে দেওয়া হয়েছিলো যে এক মিনিটের এই নিরবতা সৌদি সংস্কৃতির সঙ্গে বেমানান। ফলে তারা এতে অংশ নেওয়া থেকে বিরত থাকেন।

আরো পড়ুন: ব্রিটেনের লন্ডন ব্রিজে হামলার ঘটনায় পুলিশের তদন্তে পাওয়া নতুন কিছু তথ্য

আরো পড়ুন: বাংলাদেশের রাঙামাটিতে কেন এই সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা

অস্ট্রেলিয়ান এক সংসদ সদস্য সৌদি আরবের এই আচরণের তীব্র নিন্দা করে একে লজ্জাজনক বলে উল্লেখ করেন।

আন্তর্জাতিক ফুটবল পরিচালনাকারী সংস্থা ফিফার পক্ষ থেকে বলা হয় এজন্যে সৌদি টিমের ওপর কোন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে না।

ফিফা বলছে, ঘটনাটি তারা পর্যালোচনা করে দেখেছে এবং এতে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যে কিছু পাওয়া যায় নি।

লন্ডন ব্রিজে পথচারীদের ওপর লরি উঠিয়ে এবং কাছেই বরা মার্কেটে ছুরিকাঘাত করে আটজনকে হত্যা করা হয়। তাদের মধ্যে দু'জন অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক।

সৌদি ফুটবলের কর্মকর্তারা বলছেন, এক মিনিটের নিরবতা পালন আয়োজনের ব্যাপারে তারা একমত হয়েছিলেন।

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption নিরবতা পালন না করায় সৌদি ফুটবল দলের সমালোচনা করেন অস্ট্রেলিয়ার অনেক রাজনীতিক

কিন্তু তাদেরকে বলা হয় এটা সৌদি সংস্কৃতির অংশ নয়। ফলে ফুটবলাররা যে যার মতো মাঠে অবস্থান নেয়।

এক মিনিটের এই নিরবতার সময় অস্ট্রেলিয়ার ফুটবলাররা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়ান। কিন্তু সৌদি খেলোয়াড়েরা মাঠে যার যার জায়গায় অবস্থান নিতে শুরু করেন।

কয়েকজন খেলোয়াড়কে এসময় স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতেও দেখা গেছে।

এই ঘটনায় সৌদি আরবের ফুটবল ফেডারেশন গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছে।

এক বিবৃতিতে বলেছে, "নিহতদের প্রতি আমাদের খেলোয়াড়ের অশ্রদ্ধা জানাতে এরকম করেনি। এরকম কোন উদ্দেশ্যও তাদের ছিলো না।"

"সৌদি আরাবিয়ান ফুটবল ফেডারেশন সব ধরনের সন্ত্রাসী তৎপরতা ও চরমপন্থার নিন্দা করে। হামলায় যারা নিহত হয়েছেন তাদের পরিবার, যুক্তরাজ্যের সরকার এবং জনগণের প্রতি আমরা গভীর সমবেদনা প্রকাশ করছি," বলা হয় বিবৃতিতে।

এক মিনিট নিরবতা কি সৌদি সংস্কৃতির বিরোধী?

নিরবতা পালনের মতো অনুষ্ঠান নিয়ে বহু বছর ধরেই মধ্যপন্থী ধর্মীয় নেতাদের মধ্যে মতবিরোধ রয়েছে। অনেকেই এতে আপত্তি করেন না এবং নিহতদের প্রতি সম্মান জানানোর জন্যে এটিকে যথাযথ একটি অনুষ্ঠান বলেই মনে করেন।

আরো পড়ুন: ঘৃণা-জনিত অপরাধের সংখ্যা বাড়ছে ব্রিটেনে

তবে কট্টরপন্থী সালাফি নেতারা মনে করেন, ধর্মে এধরনের নিরবতা পালনকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

মুসলিম অধ্যুষিত বৃহত্তম দেশ ইন্দোনেশিয়ায় ফুটবল ম্যাচের আগে এক মিনিটের নিরবতা পালন অস্বাভাবিক কোন ঘটনায় নয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ নানা ঘটনায় নিহতদের স্মরণে মাঠে এরকম নিরবতা পালন করা হয়েছে।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption গত বছর কাতারে এক ফুটবল ম্যাচের আগে সৌদি খেলোয়াড়েরা নিরবতা পালন করছেন

সৌদি দলটি অ্যাডেলেইডে নিরবতা পালন না করলেও দেশটির খেলোয়াড়রা এর আগেও বিভিন্ন সময় নিরবতা পালন করেছেন বলে জানা গেছে।

অনেকেই মনে করছেন, সৌদি আরবের আভ্যন্তরীণ রাজনীতির উত্তেজনার সাথে এই ঘটনার সম্পর্ক থাকতে পারে।

আরো পড়ুন: 'মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যেই' লংগদুর নয়নকে হত্যা: পুলিশ

এই নিরবতায় অংশ না নেয়ায় অস্ট্রেলিয়ার রাজনীতিবিদরা সৌদি টিমের সমালোচনা করেছেন।

তারা বলছেন, "এটা সংস্কৃতির কোন বিষয় নয়। এখানে শ্রদ্ধা জানানোর ক্ষেত্রে ঘাটতি রয়েছে।"

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী এবিষয়ে কোন মন্তব্য করেন নি। তিনি সতর্কভাবেই চুপ থেকেছেন। কিন্তু এবিষয়ে তার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেছেন, তিনি এই ফুটেজটি দেখেন নি। তবে "সন্ত্রাসবাদের নিন্দা জানাতে সারাবিশ্বই একজোট হয়েছে।"