মাঠে ময়দানে
আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

আফগানিস্তানকে হয়তো টেস্ট খেলতে হবে দিল্লির কাছে নয়ডায়

আফগানিস্তান আর আয়ারল্যান্ড টেস্ট মর্যাদা পেয়েছে। অনেক দিন ধরেই এটা নিয়ে কথা চলছিল, শেষ পর্যন্ত বাস্তবে পরিণত হলো তা।

আয়ারল্যান্ডে টেস্ট ক্রিকেট খেলার পরিবেশ বা সুযোগসুবিধার অভাব নেই। কিন্তু যুদ্ধবিধ্বস্ত, নিরাপত্তা সমস্যায় জর্জরিত আফগানিস্তান কিভাবে কোথায় টেস্ট ক্রিকেট খেলবে?

বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেটার ও অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুল এখন আইসিসির একজন কর্মকর্তা - যিনি এশিয়ায় ক্রিকেটের উন্নয়নের জন্য কাজ করছেন।

লন্ডনে আইসিসির সম্মেলনের পর বিবিসি বাংলাকে আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, আফগানিস্তান এখন কাবুল ও কান্দাহারে ক্রিকেটের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য কাজ করছে, সেখানে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটও চালু হয়েছে।

"কিন্তু এখনই হয়তো বিদেশী দলগুলো কাবুল বা কান্দাহারে গিয়ে ক্রিকেট খেলতে চাইবে না। তাই ভারতের দিল্লির নিকটবর্তী নয়ডাতে আফগান ক্রিকেটের জন্য যে স্টেডিয়াম তৈরি করে দিয়েছে ভারত, সেখানে বা দুবাই-এর মতো অন্য কোন শহরে আফগানিস্তান হয়তো তাদের 'হোম ম্যাচ'গুলো খেলবে" - বলছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল।

বাংলাদেশ দশম দেশ হিসেবে টেস্ট মর্যাদা পেয়েছিল ২০০০ সালে। এর পরের ১৭ বছরে টেস্ট ক্রিকেট খেলুড়ে দেশের তালিকায় আর নতুন কোন দেশ যুক্ত হয়নি । এবার একাদশ ও দ্বাদশ দেশ হিসেবে টেস্ট মর্যাদা পেলো আফগানিস্তান আর আয়ারল্যান্ড।

বস্তুত আয়ারল্যান্ড ২০০৫ সালে এবং আফগানিস্তান ২০০৯ সালে ওডিআই মর্যাদা পাবার পর থেকেই তাদের প্রতিভা ও সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে। তারা একাধিকবার বিশ্বকাপের মতো বড় টুর্নামেন্টগুলোতে পূর্ণ সদস্য দেশগুলোর বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছে, সমানে সমানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে - বুঝিয়ে দিয়েছে যে তারা সবোচ্চ স্তরে খেলার যোগ্যতা রাখে।

এবার আইসিসি সঙ্গতভাবেই তার স্বীকৃতি দিয়েছে।

ছবির কপিরাইট PAUL MCERLANE
Image caption আয়ারল্যান্ড খেলছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে

আয়ারল্যান্ডের ক্রিকেট কর্তৃপক্ষের চেয়ামম্যান রস ম্যাককোলম বলছিলেন তারা আশা করছেন খুব দ্রুতই তারা প্রথম টেস্ট ম্যাচটি খেলার সুযোগ পাবেন।

হয়তো আয়ারল্যান্ডের চাইতে আফগানিস্তানের টেস্ট মর্যাদা পাওয়াটা আরো বেশী তাৎপর্যপূর্ণ । যুদ্ধবিধ্বস্ত এবং দরিদ্র দেশটিতে ক্রিকেট খেলার সুযোগ-সুবিধা অতি সীমিত এবং নিরাপত্তার সমস্যাও গুরুতর। এটা রীতি মত বিস্ময় কর যে এর মধ্যে থেকেই শুধু ক্রিকেট প্রতিভার জোরে আফগানিস্তান এই পূর্ণ সদস্যপদ পেয়েছে ।

আফগানিস্তানের ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান আতিফ মাশাল বিবিসিকে বলছিলেন, "আফগানিস্তানের জন্য এটা অবশ্যই একটা বড় খবর। আমি এ অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। এটা ছিল আমাদের একটা স্বপ্ন। আমি নিজেও ছোটবেলা থেকে পূর্ণ সদস্য দেশগুলোকে পরস্পরের বিরুদ্ধে খেলতে দেখেছি। আজ আমরাও পূর্ণ সদস্য হলাম। আফগানিস্তানের জনগণ এ খবরে উল্লসিত, আমি জানাতে পারি যে পাঁচটি অঞ্চলেই লোকজন রাস্তায় বেরিয়ে আনন্দ উল্লাস করেছে। "

"আইসিসির সাথে আলোচনায় একটা বড় ইস্যু ছিল মেয়েদের ক্রিকেট খেলা। আমরা অনুরোধ করেছি এই ব্যাপারটি আপাতত স্থগিত রাখতে। আমরা ইংলান্ডে এসে গত পাঁচদিন হলো আইসিসিকে এটা বোঝানোর চেষ্টা করেছি - তার সমর্থন পেতে চেষ্টা করেছি। ইংল্যান্ডকেও ব্যাপারটা আমাদের বোঝাতে হয়েছে। ভারত প্রথমদিকে আমাদের ক্রিকেট কাঠামোটি সমর্থন করে নি। তবে আমরা শেষ পর্যন্ত সবার কাছ থেকে শতভাগ সমর্থন পেয়েছি।"

মি. মাশাল বলেন, "এ ব্যাপারে আমাদের অঙ্গীকার রয়েছে। কিন্তু ঐতিহ্যগত ও ধর্মীয় পরিস্থিতির কারণে আমরা এখনই মেয়েদের ক্রিকেট চালু করতে পারছি না।"

"আমরা পূর্ণ সদস্যদের বোঝাতে পেরেছি যে এটা করতে হবে পর্যায়ক্রমে। আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে, ধীরে ধীরে এবং পরিস্থিতি বুঝে মেয়েদের স্কুলে পর্যায়ক্রমে ক্রিকেট চালু করা ।"

ছবির কপিরাইট RANDY BROOKS
Image caption ওডিআই মর্যাদা পাবার পর থেকেই আফগানিস্তানের খেলা সবার নজর কেড়েছে

"আমরা এখন ক্রিকেটের মাঠ, স্টেডিয়াম এগুলোর ওপর কাজ করছি। আমাদের স্বপ্ন ইংল্যান্ডকে আফগানিস্তানে ক্রিকেট খেলতে নিয়ে যাওয়ার। তবে এতে সময় লাগবে। কিন্তু এটা অসম্ভব কিছু নয়, আমি মনে করি একদিন এটা হবে" - বলছিলেন আতিফ মাশাল।

আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তানের পূর্ণ সদস্যপদ পাওয়া প্রক্রিয়া খুব কাছে থেকে দেখেছেন বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেটার ও অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুল - যিনি এখন আইসিসির একজন ক্রিকেট উন্নয়ন কর্মকর্তা। বাংলাদেশ টেস্ট মর্যাদা পাবার পর প্রথম টেস্টে তিনি খেলেছিলেন এবং শতরান করেছিলেন।

এমন এক সময় আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তান টেস্ট মর্যাদা পেলো যখন বিশ্বজুড়েই পাঁচদিনের ক্রিকেটের দর্শক কমে যাচ্ছে।

দুটি দেশ যোগ হওয়ায় কি এতে কোন ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে?

লন্ডনে আইসিসির সম্মেলনের পর আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলছিলেন, এটা ক্রিকেটের বিশ্বায়নের জন্যও এক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা,।

তিনি বলছেন, আফগানিস্তান আর আয়ারল্যান্ডের দৃষ্টান্ত দেখে অন্য আরো ক্রিকেট খেলিয়ে দেশ তাদের ক্রিকেটকে টেস্ট স্তরে উন্নীত করতে অনুপ্রাণিত হবে।

এবারের মাঠে ময়দানে পরিবেশন করেছেন পুলক গুপ্ত