সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ‘তরুণদেরকে ভীত ও উদ্বিগ্ন করে তুলছে’: গবেষণা

অনলাইন নির্ভর এক জীবন তরুণ-তরুণীদেরকে আরো উদ্বিগ্ন, অসম্পূর্ণ ও ভীত করে তুলতে পারে, বলছে গবেষণা। ছবির কপিরাইট Thinkstock
Image caption অনলাইন নির্ভর এক জীবন তরুণ-তরুণীদেরকে আরো উদ্বিগ্ন, অসম্পূর্ণ ও ভীত করে তুলতে পারে, বলছে গবেষণা।

ফেসবুক-টুইটারের মতো সোশ্যাল মিডিয়া বা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম তরুণ তুর্কীদেরকে আরো উদ্বিগ্ন করে তুলছে বলে এক গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে।

ডিচ দ্য লেবেল নামের একটি অ্যান্টি-বুলিয়িং বা পীড়ন-বিরোধী দাতব্য সংস্থা এই গবেষণাটি চালিয়েছে।

এই গবেষণা জরিপে অংশ নেয়াদের মধ্যে ৪০%-ই বলছে, কেউ যদি তাদের সেলফিতে লাইক না দেয়, তাহলে তারা খারাপ বোধ করে।

আর ৩৫% বলছে তাদের কি পরিমাণ ফলোয়ার বা অনুসারী তার উপর সরাসরি নির্ভর করে তাদের আত্মপ্রত্যয়ের ব্যাপারটি।

প্রতি তিন জনে একজন বলছে তারা সারাক্ষণই সাইবার-বুলিয়িংয়ের বা পীড়নের আতঙ্কে থাকে।

একজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে শিশুরা 'বৈরিতার সংস্কৃতির' মধ্যে বেড়ে উঠছে।

দশ হাজার তরুণ তরুণীর উপর এই জরিপটি চালানো হয়। এদের বয়েস ছিল ১২ থেকে ২০ এর মধ্যে।

এই জরিপে বেরিয়ে এসেছে সাইবার-বুলিয়িং ব্যাপক বিস্তৃতি লাভ করেছে।

৭০% অংশগ্রহণকারী স্বীকার করেছে যে তারা অনলাইনে অন্যের উপর পীড়নমূলক আচরণ করে।

১৭% দাবী করেছে তারা অনলাইনে পীড়নের স্বীকার হয়েছে।

অর্ধেকই বলেছে যে তারা অনলাইনে তাদের সাথে ঘটে যাওয়া খারাপ আচরণগুলো নিয়ে আলোচনা করতে চায় না।

গবেষণায় আরো জানা যাচ্ছে, ঘৃণা ছড়ানোর জন্য সবচাইতে বেশী ব্যবহৃত সোশ্যাল মিডিয়া হচ্ছে ইনস্টাগ্রাম।

আরো পড়ুন:

ভূমিকম্প প্রবণ স্থানে গভীর গর্ত খুঁড়ছে কেন ভারতীয়রা?

জার্মান গানের স্কুলে বহু ছেলে যৌন নির্যাতনের শিকার

সম্পর্কিত বিষয়