মাঠে ময়দানে
আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

ফুটবলার কেনাবেচায় শেষ কথা কার - ক্লাব না খেলোয়াড় ?

ইউরোপের ফুটবল দুনিয়ায় এখন চলছে খেলোয়াড় কেনাবেচার মওসুম।

আর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই শুরু হয়ে যাবে বড় বড় লিগগুলো। ক্লাবগুলো ব্যস্ত আসন্ন মওসুমের জন্য খেলোয়াগ কেনাবেচায়।

প্রতিদিনই খেলার পত্রিকাগুলোর প্রথম পৃষ্ঠায় থাকছে কোন তারকাকে কোন ক্লাব কিনে নিচ্ছে, কত টাকায় কিনছে।

কোন খেলোয়াড়ের জন্য কত দাম হাঁকা হচ্ছে, কোন খেলোয়াড়কে কোন ক্লাব ছাড়তে চাইছে না - এসব নিয়ে প্রতিদিনই ব্রিটেন, ফ্রান্স, স্পেন, জার্মানি আর ইতালির বড় বড় পত্রিকাগুলোয় রিপোর্ট বেরুচ্ছে।

গত কয়েক দিনে যেমন ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে - বার্সেলোনা্র ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারকে নিয়ে।

তাকে নাকি ১৯ কোটি ৬০ লাখ পাউন্ডের রেকর্ড দামে কিনে নেবার প্রস্তাব দিয়েছে ফ্রান্সের ক্লাব প্যারিস সঁ জারমেইন।

সেখানে নেইমারের সাপ্তাহিক বেতন হবে প্রায় ৬ লাখ পাউন্ড।

ছবির কপিরাইট David Ramos
Image caption নেইমার

সত্যিই যদি এরকম কোন চুক্তি হয়, তাহলে রেয়াল মাদ্রিদের ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো বা গ্যারেথ বেল, বার্সেলোনার লিওনেল মেসি, বা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পল পগবাকে বহু পিছনে ফেলে নেইমারই হবেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার।

এই খেলোয়াড় কেনা প্রক্রিয়াটাতে বিক্রেতা ও ক্রেতা ক্লাব, খেলোয়াড়, এবং তাদের এজেন্টরা - সবা্রই ভুমিকা থাকে।

কিন্তু আসল চাবিকাঠি কার হাতে? ক্লাব, খেলোয়াড় না তার এজেন্টদের?

এবারের মাঠে ময়দানেতে এ নিয়েই কথা বলেছেন ফুটবল ভাষ্যকার মিহির বোস।

ক্রিকেটে বাঁহাতিদের ব্যাটিং কেন এত অন্যরকম?

বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিংএর এক আলাদা সৌন্দর্য আছে, এ কথা সবাই বলেন। এর কারণ কি? বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা কি সত্যি এক বিরল প্রজাতির মানুষ?

ছবির কপিরাইট Hamish Blair
Image caption ব্রায়ান লারা

ব্রায়ান লারা, গ্রেম পোলক, গ্যারি সোবার্স, কুমারা সাঙ্গাক্কারা, ডেভিড গাওয়ার বা সৌরভ গাঙ্গুলি থেকে শুরু করে বাংলাদেশের তামিম ইকবাল পর্যন্ত - বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের খেলায় যেন আলাদা কিছু একটা আছে - এ কথা ক্রিকেট খেলা যারাই ভালোবাসেন তারাই বলবেন।

বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান বা বাঁ-হাতি বোলার কোন দেশেই খুব বেশি হয় না, তারা যেন একটা বিরল প্রজাতির মতোই।

বিবিসির ক্রিকেট বিশ্লেষক সাইমন হিউজ বলছেন, আপনি যদি ডেভিড গাওয়ার বা ব্রায়ান লারার কথা ভাবেন, সত্যি তাদের ব্যাটিংএর একটা অন্যরকম সৌন্দর্য আছে।

তার কথায়, দু -ধরণের বাঁহাতি ক্রিকেটার আছে - একটা হলো যারা বাঁ হাতে ব্যাট করলেও ডান হাতে বল করেন। এরা লেখা বা অন্যান্য কাজও করেন ডান হাতে।

"আর আরেক রকম আছেন যারা পুরোপুরি বাঁহাতি অথাৎ ব্যাটিং-বোলিং দুটোই করেন বাম হাতে । মনে করা হয়, পৃথিবীর সব মানুষের মধ্যে মাত্র ১০ শতাংশ বাঁ-হাতি ।"

সাইমন হিউজ বলছেন, 'আমি একজন বিজ্ঞানীর সাথে কথা বলেছি - যিনি মানুষের মস্তিষ্কের কার্যপদ্ধতি বিশ্লেষণ করে বলেছেন, যারা পুরোপুরি বাঁহাতি তাদের রিফ্লেক্স অন্যদের চাইতে উন্নত। বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা এখন তুলনামূলকভাবে বেশি সাফল্যও পাচ্ছে। টেস্ট ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রান করা ১০ ব্যাটসম্যানের মধ্যে পাঁচ জনই বাঁহাতি।"

"মজার ব্যাপার হলো, সফল ব্যাটসম্যানদের মধ্যে যত বাঁহাতি আছেন, বোলারদের মধ্যে কিন্তু তা নয়। সফলতম বোলারদের মধ্যে মাত্র ১০ শতাংশের মতো আছেন বাঁহাতি বোলার।"

এ নিয়ে আরও কথা বলেছেন বাংলাদেশ দলের সাবেক ক্রিকেটার এবং এখন লন্ডনে একজন ক্রিকেট কোচ শহিদুল আলম রতন।

শহিদুল আলম রতন বলছেন, একজন কোচের দৃষ্টিকোণ থেকেও বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান বা বাঁহাতি ক্রিকেটার বেশ বিরল বলেই তার মনে হয়েছে। ক্রিকেটের কোচিং নিতে আসে এরকম স্কুলের ছেলেমেয়েদের মধ্যেও মাত্র ১০ শতাংশ দেখা যায় বাঁহাতি।

তার কথায়, বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা দুর্লভ, এবং ব্যতিক্রমী। সে কারণে তারা একটা বাড়তি সুবিধাও পায়।

বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের এমন কিছু শট আছে যা একেবারেই তাদের নিজস্ব, বলেন তিনি।

এবারের মাঠে ময়দানে পরিবেশন করেছেন পুলক গুপ্ত।

সম্পর্কিত বিষয়