জেরুসালেমে তিন ইসরায়েলি ছুরিকাঘাতে নিহত

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption আক্রান্ত একজন ইসরায়েলিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

জেরুসালেমে আল-আকসা এলাকায় ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের নতুন নিরাপত্তা বেষ্টনী বসানোকে কেন্দ্র করে সহিংস পরিস্থিতি অব্যাহত রয়েছে।

পূর্ব জেরুসালেম ও পশ্চিম তীরে শুক্রবার ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েলি সৈন্যদের ব্যাপক সংঘর্ষে তিন জন ফিলিস্তিনি নিহত এবং শতাধিক আহত হয়।

এর পর অধিকৃত পশ্চিম তীরে রামাল্লা শহরের কাছে একটি ইহুদি বসতিতে এক আক্রমণে তিন জন ইসরায়েলি বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। তাদেরকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়।

জানা গেছে,একজন ফিলিস্তিনি একটি বাড়িতে ঢুকে ওই তিনজনকে হত্যা করে, পরে একজন প্রতিবেশী আক্রমণকারীকে গুলি করে আহত করার পর তাকে আটক করা হয়। আক্রমণকারীর বয়েস ১৯ বছর বলে জানা গেছে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

আদালতের নির্দেশ শুনে হতভম্ব হয়ে যাই: ইউএনও তারিক সালমন

জোর গুজব: নেইমার কি বার্সেলোনা ছেড়ে যাচ্ছেন?

Image caption মানচিত্রে জেরুসালেম ও অধিকৃত পশ্চিম তীর

হালামিশ নামে আরেকটি জায়গায় এক আক্রমণে আরেক ইসরায়েলি আহত হয়। ইসরায়েলি সেনাবাহিনী বলছে, আক্রমণকারীকে গুলি করার পর তাকে ধরা হয়েছে। তার অবস্থা কি তা এখনো স্পষ্ট নয়।

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, তিনি ইসরায়েলের সাথে সব রকম যোগাযোগ বন্ধ করে দিচ্ছেন।

এক সপ্তাহ আগে দুজন ইসরায়লি পুলিশ নিহত হবার পর ইসরায়েল কর্তৃপক্ষ হারাম-আল-শরিফ এলাকায় মেটাল ডিটেক্টর বসিয়ে নিরাপত্তা জোরদার করে। পঞ্চাশ বছরের কম বয়স্ক লোকদের আলআকসায় নামাজ পড়তে আসতে দেয়া হয় নি। ইহুদিদের কাছে এই এলাকাটি টেম্পল মাউন্ট হিসেবে পরিচিত।

আল-আকসা মসজিদে নামাজ পড়তে আসা ফিলিস্তিনি মুসলিমরা নিরাপত্তা বেষ্টনী নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে রাস্তার ওপরই নামাজ পড়েন, আর নামাজের পর শুরু হয় বিক্ষোভ।

সম্পর্কিত বিষয়