বাড্ডার শিশুটিকে খাবারের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ: পুলিশ

শিশুর এলাকায় পুলিশ ছবির কপিরাইট Sayala Roksana
Image caption বাড্ডায় শিশুটির বাড়ির পাশে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ।

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার বাড্ডা এলাকায় সাড়ে তিন বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে আজ সোমবার এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমএ জলিল বিবিসি বাংলার শায়লা রুখসানাকে জানান, বাড্ডা এলাকার একটি ঘরের পাশে বাথরুম থেকে তানহা নামে শিশুটির মরদেহ তারা উদ্ধার করেন রোববার রাতে। স্থানীয় বাসিন্দাদের খবর পেয়েই তারা শিশুটিকে উদ্ধার করতে যান।

এই ঘটনায় এক ব্যক্তিকে আজ সোমবার গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান মি: জলিল।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষে থেকে জানানো হয়, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির নাম মো: শিপন। গত রাত একটার দিকে গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ওই ব্যক্তি গ্রেফতার হয়।

প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে, শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।

ছবির কপিরাইট পুলিশের কাছ থেকে পাওয়া ছবি।
Image caption উদ্ধারের পর শিশুটির গায়ে আঘাতের চিহ্নও দেখেন কর্মকর্তারা।

পুলিশ কর্মকর্তা এমএ জলিল জানান, "ঘটনার সময় শিশুটির বাবা তার কর্মস্থলে ছিল। তার মা বাসায় ছিল। বিকালে আমড়া খাওয়ার পর শিশুটি বলে বাইরে খেলে আসি। সন্ধ্যার পর প্রতিবেশীর কাছ থেকে মা জানতে পারে তার মেয়েকে বাথরুম থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে"।

উদ্ধারের পর শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শিশু তানহার মরদেহ রাত থেকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। বিকেলের দিকে শিশুটির পোস্ট মর্টেম শুরু করেন চিকিৎসকেরা। প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পোস্ট মর্টেম চলছিল।

এদিকে বাড্ডায় শিশুটির বাসা ও এলাকা ঘুরে শায়লা রুখসানা দেখেছেন সেখানকার মানুষের মনে ক্ষোভ কাজ করছে। নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন কজন।

গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি মো: শিপনের স্ত্রী জানিয়েছেন তিনি এ ঘটনার বিচার চান।

ছবির কপিরাইট Sayala Roksana
Image caption শিশু তানহার মা শোকে বিহ্বল হয়ে পড়েছেন।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

সম্পর্কিত বিষয়

বিবিসির অন্যান্য সাইটে