রাশিয়ার ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নতুন অবরোধ ‘বাণিজ্য যুদ্ধ’, বললেন প্রধানমন্ত্রী মেদভেদেভ

রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ

রাশিয়ার ওপর নতুন করে অবরোধ আরোপের বিলে স্বাক্ষর করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মি. ট্রাম্পের আপত্তি সত্ত্বেও কংগ্রেসে পাশ হওয়া এই বিলটিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে অনুমতি দানের স্বাক্ষর করতে গিয়ে, বিলটিকে তিনি 'ফ্লড' বা 'ত্রুটিযুক্ত বিল' বলে আখ্যায়িত করেছেন।

রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেছেন, নতুন এই বিলের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র আসলে 'পূর্ণমাত্রায় বাণিজ্যকেন্দ্রিক যুদ্ধ' শুরুর প্ররোচনা দিচ্ছে।

মি: মেদভেদেভ বলেছেন, "এই যে বিলটিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে সই করলেন, এতেই স্পষ্ট হলো যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের গুরুত্ব আসলে কতটা"।

রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর ভাষায়, কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে পুরোপুরি অপদস্থ করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস গত সপ্তাহে প্রায় সর্বসম্মতভাবে রাশিয়ার ওপর নতুন করে অবরোধ আরোপের বিল পাশ করে।

এই বিল সংসদের দুই কক্ষেই পাশ হওয়ায় নাখোশ ছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

তাই অনেকেই মনে করছিলেন যে, প্রেসিডেন্ট হিসেবে বিলটিতে স্বাক্ষর করার সময়ে শেষ মুহূর্তে কোনো একটা অজুহাতে মি: ট্রাম্প হয়তো তাতে স্বাক্ষর নাও করতে পারেন।

কিন্তু সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে রুশ-অবরোধ বিলে অনিচ্ছা সত্ত্বেও স্বাক্ষর করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে নিজেকে আরো সমালোচিত করে তুলতে চাননি বলেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প হয়তো এই বিলে স্বাক্ষর করেছেন বলেও মনে করছেন অনেকেই।

ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার ভূমিকা ‌এবং ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাশিয়ার ওপর এই নতুন অবরোধ এলো।

গত মাসেই ট্রাম্প-পুতিনের প্রথম বৈঠক হলো জার্মানিতে জি-৭ সম্মেলনে।

এর পর দুই দেশই তাদের সম্পর্ক উন্নয়নে আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা বিল আবারো উত্তেজনার পারদই বাড়িয়ে দিল বলেও মনে করছে কেউ কেউ।

ছবির কপিরাইট AFP
Image caption প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চান রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন করতে

তবে, জাতিসংঘে নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূত ভাসিলি নেবেনজিয়া বলেছেন, নিষেধাজ্ঞার পরেও তারা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কাজ করে যাবে।

তিনি বলছেন, "আমি আজকাল সত্যিই এই ভেবে বিস্মিত হই যে, দুনিয়ায় এমন কোনো ইস্যু কি আছে যেটি নিয়ে আপনি রাশিয়াকে অভিযুক্ত করতে পারবেন না! কিন্তু আমরা খিটখিটে শিশুর মতন নই এবং চারিদিকে যা কিছু ঘটে তার সকল কিছু দিয়েই আমরা বিরক্ত বোধ করি না। আমাদের সহযোগীদের সাথে, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের সাথেও, আমরা কাজ করতে উপায় খুঁজবো"।

"আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে খুশী করতে চাই বা ওই বিলে কী আছে এইসবের জন্য নয়। বরং আন্তর্জাতিক সমাজের কল্যাণের নিমিত্তে, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র, আমরা একত্রে কাজ করবো এটা বোঝাতে যে, আমরাও সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাব নিয়ে কাজ করতে পারি" বলেন রুশ রাষ্ট্রদূত ভাসিলি নেবেনজিয়া ।

মার্কিন নির্বাচনে রুশ-হস্তক্ষেপের যে অভিযোগ এনে এই অবরোধ দেয়া হলো, সেই অভিযোগ শুরু থেকেই নাকচ করে আসছে রাশিয়া।

নতুন এই অবরোধ বিলের মাধ্যমে রাশিয়ার পাশাপাশি উত্তর কোরিয়া ও ইরানের বিরুদ্ধেও অবরোধ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইরানের ওপর আরোপ করা এই নিষেধাজ্ঞাটিকে পরমাণু চুক্তির লংঙ্ঘন হিসেবে উল্লেখ করেছে ইরান।

নিষেধাজ্ঞার জবাবে ইরান বলেছে, এর মাধ্যমে অ্যমেরিকা পরমাণু চুক্তির লঙ্ঘন করেছে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

সম্পর্কিত বিষয়